দেশে একদিনে

করোনায় মৃত্যু ২০ জন শনাক্ত হাজারের নিচে

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন ৯৯১ জন। এ নিয়ে টানা চারদিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হাজারের নিচে রয়েছে। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে সাত হাজার ৬৭০ জনের। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ১৭ হাজার ৯২০ জনে। গতকাল স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৯৪৪ জন। সরকারি হিসাবে মোট করোনা শনাক্ত হয়েছেন পাঁচ লাখ ১৭ হাজার ৯২০ জন। এ পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন চার লাখ ৬২ হাজার ৪৫৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছয় দশমিক ৮৫ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত ১৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৯ দশমিক ২৯ শতাংশ, মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৮ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, দেশে বর্তমানে ১১৪টি আরটি-পিসিআর, ২৬টি জিন-এক্সপার্ট ও ৪০টি র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষাগারসহ মোট ১৮০টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১৪ হাজার ৬২৯টি, পরীক্ষা হয়েছে ১৪ হাজার ৪৬২টি। দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩২ লাখ ৮৬ হাজার ৮৮৫টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ২৫ লাখ ৯৯ হাজার ৯৫৬টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ছয় লাখ ৮৬ হাজার ৯২৯টি পরীক্ষা হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২০ জনের মধ্যে পুরুষ ১৬ জন এবং নারী চার জন। এখন পর্যন্ত পাঁচ হাজার ৮৩১ জন পুরুষ এবং এক হাজার ৮৩৯ জন নারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। মৃতদের মধ্যে শতকরা হিসাবে পুরুষ ৭৬ দশমিক শূন্য তিন শতাংশ আর নারী ২৩ দশমিক ৯৭ শতাংশ। বয়স বিবেচনায় তাদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন আট জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আট জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে দুই জন এবং ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুই জন। তাদের মধ্যে হাসপাতালে ১৯ জন এবং বাড়িতে একজন মারা গেছেন। মারা যাওয়া ২০ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে আছেন ১৪ জন, চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহ বিভাগে দুই জন করে এবং খুলনা ও সিলেট বিভাগে আছেন একজন করে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হওয়া ৯৪৪ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে রয়েছেন ৬৯৪ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১০৯ জন, রংপুর বিভাগে ৪৭ জন, খুলনা বিভাগে ১৪ জন, বরিশাল বিভাগে ১৯ জন, রাজশাহী বিভাগে ৩০ জন, সিলেট বিভাগে ২২ জন আর ময়মনসিংহ বিভাগে রয়েছেন নয় জন। গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিনে যুক্ত হয়েছেন ৬১৯ জন আর ছাড় পেয়েছেন ৪৭৮ জন। এখন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে যুক্ত হয়েছেন ছয় লাখ ছয় হাজার ৬২১ জন আর ছাড় পেয়েছেন পাঁচ লাখ ৬৮ হাজার দুই জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে আছেন ৩৮ হাজার ৬১৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ১১৭ জন আর ছাড় পেয়েছেন ১৫০ জন। এখন পর্যন্ত আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ৯৬ হাজার ৮৮১ জন এবং ছাড় পেয়েছেন ৮৫ হাজার ৫৬৯ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১১ হাজার ৩১২ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে সরকারি হিসাবে মারা যাওয়া সাত হাজার ৬৭০ জনের মধ্যে চার হাজার ২২৩ জনই ঢাকা বিভাগের। শতকরা হিসাবে যা ৫৫ দশমিক শূন্য ছয় শতাংশ।

অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, ঢাকা বিভাগের পর চট্টগ্রাম বিভাগে মারা গেছেন এক হাজার ৪১৮ জন, যা ১৮ দশমিক ৪৯ শতাংশ। রাজশাহী বিভাগে ৪৪১ জন, যা পাঁচ দশমিক ৭৫ শতাংশ। খুলনা বিভাগে ৫৩৭ জন, যা সাত শতাংশ। বরিশাল বিভাগে ২৩৮ জন যা তিন দশমিক ১০ শতাংশ। সিলেট বিভাগে ২৯৪ জন, যা তিন দশমিক ৮৩ শতাংশ। রংপুর বিভাগে ৩৪৬ জন, যা চার দশমিক ৫১ শতাংশ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে মারা গেছেন ১৭৩ জন, যা দুই দশমিক ২৬ শতাংশ। অন্যদিকে বয়স বিবেচনায় অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, মোট মারা যাওয়াদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন চার হাজার ১৯০ জন, যা ৫৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ। ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে রয়েছেন এক হাজার ৯৪৮ জন, যা ২৫ দশমিক ৪০ শতাংশ। ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৮৯৭ জন, যা ১১ দশমিক ৬৯ শতাংশ। ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৩৮২ জন, যা চার দশমিক ৯৮ শতাংশ। ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ১৬০ জন, যা দুই দশমিক শূন্য নয় শতাংশ। ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ৫৭ জন, যা শূন্য দশমিক ৭৪ শতাংশ এবং শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে ৩৬ জন, যা শূন্য দশমিক ৪৭ শতাংশ।

বুধবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২১ , ২২ পৌষ ১৪২৭, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪২

দেশে একদিনে

করোনায় মৃত্যু ২০ জন শনাক্ত হাজারের নিচে

image

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন ৯৯১ জন। এ নিয়ে টানা চারদিন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হাজারের নিচে রয়েছে। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে সাত হাজার ৬৭০ জনের। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ১৭ হাজার ৯২০ জনে। গতকাল স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৯৪৪ জন। সরকারি হিসাবে মোট করোনা শনাক্ত হয়েছেন পাঁচ লাখ ১৭ হাজার ৯২০ জন। এ পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন চার লাখ ৬২ হাজার ৪৫৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছয় দশমিক ৮৫ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত ১৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৯ দশমিক ২৯ শতাংশ, মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৮ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, দেশে বর্তমানে ১১৪টি আরটি-পিসিআর, ২৬টি জিন-এক্সপার্ট ও ৪০টি র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষাগারসহ মোট ১৮০টি পরীক্ষাগারে করোনার নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ১৪ হাজার ৬২৯টি, পরীক্ষা হয়েছে ১৪ হাজার ৪৬২টি। দেশে এখন পর্যন্ত মোট করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩২ লাখ ৮৬ হাজার ৮৮৫টি। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ২৫ লাখ ৯৯ হাজার ৯৫৬টি এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ছয় লাখ ৮৬ হাজার ৯২৯টি পরীক্ষা হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২০ জনের মধ্যে পুরুষ ১৬ জন এবং নারী চার জন। এখন পর্যন্ত পাঁচ হাজার ৮৩১ জন পুরুষ এবং এক হাজার ৮৩৯ জন নারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। মৃতদের মধ্যে শতকরা হিসাবে পুরুষ ৭৬ দশমিক শূন্য তিন শতাংশ আর নারী ২৩ দশমিক ৯৭ শতাংশ। বয়স বিবেচনায় তাদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন আট জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আট জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে দুই জন এবং ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুই জন। তাদের মধ্যে হাসপাতালে ১৯ জন এবং বাড়িতে একজন মারা গেছেন। মারা যাওয়া ২০ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে আছেন ১৪ জন, চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহ বিভাগে দুই জন করে এবং খুলনা ও সিলেট বিভাগে আছেন একজন করে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হওয়া ৯৪৪ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে রয়েছেন ৬৯৪ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১০৯ জন, রংপুর বিভাগে ৪৭ জন, খুলনা বিভাগে ১৪ জন, বরিশাল বিভাগে ১৯ জন, রাজশাহী বিভাগে ৩০ জন, সিলেট বিভাগে ২২ জন আর ময়মনসিংহ বিভাগে রয়েছেন নয় জন। গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিনে যুক্ত হয়েছেন ৬১৯ জন আর ছাড় পেয়েছেন ৪৭৮ জন। এখন পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে যুক্ত হয়েছেন ছয় লাখ ছয় হাজার ৬২১ জন আর ছাড় পেয়েছেন পাঁচ লাখ ৬৮ হাজার দুই জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে আছেন ৩৮ হাজার ৬১৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ১১৭ জন আর ছাড় পেয়েছেন ১৫০ জন। এখন পর্যন্ত আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ৯৬ হাজার ৮৮১ জন এবং ছাড় পেয়েছেন ৮৫ হাজার ৫৬৯ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১১ হাজার ৩১২ জন। দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে সরকারি হিসাবে মারা যাওয়া সাত হাজার ৬৭০ জনের মধ্যে চার হাজার ২২৩ জনই ঢাকা বিভাগের। শতকরা হিসাবে যা ৫৫ দশমিক শূন্য ছয় শতাংশ।

অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, ঢাকা বিভাগের পর চট্টগ্রাম বিভাগে মারা গেছেন এক হাজার ৪১৮ জন, যা ১৮ দশমিক ৪৯ শতাংশ। রাজশাহী বিভাগে ৪৪১ জন, যা পাঁচ দশমিক ৭৫ শতাংশ। খুলনা বিভাগে ৫৩৭ জন, যা সাত শতাংশ। বরিশাল বিভাগে ২৩৮ জন যা তিন দশমিক ১০ শতাংশ। সিলেট বিভাগে ২৯৪ জন, যা তিন দশমিক ৮৩ শতাংশ। রংপুর বিভাগে ৩৪৬ জন, যা চার দশমিক ৫১ শতাংশ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে মারা গেছেন ১৭৩ জন, যা দুই দশমিক ২৬ শতাংশ। অন্যদিকে বয়স বিবেচনায় অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, মোট মারা যাওয়াদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব রয়েছেন চার হাজার ১৯০ জন, যা ৫৪ দশমিক ৬৩ শতাংশ। ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে রয়েছেন এক হাজার ৯৪৮ জন, যা ২৫ দশমিক ৪০ শতাংশ। ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৮৯৭ জন, যা ১১ দশমিক ৬৯ শতাংশ। ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ৩৮২ জন, যা চার দশমিক ৯৮ শতাংশ। ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ১৬০ জন, যা দুই দশমিক শূন্য নয় শতাংশ। ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ৫৭ জন, যা শূন্য দশমিক ৭৪ শতাংশ এবং শূন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে ৩৬ জন, যা শূন্য দশমিক ৪৭ শতাংশ।