ক্ষুদ্রঋণে পুনঃঅর্থায়নের সীমা বাড়লো

কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পখাত (সিএমএসএমই) উন্নয়নে গঠিত পুনঃঅর্থায়ন তহবিলের আওতায় পুনঃঅর্থায়ন সীমা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। গতকাল এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সব তফসিলি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তা (সিএমএসএমই) খাতে ঋণপ্রবাহ বাড়ানোর মাধ্যমে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য সরকার ও এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) যৌথ অর্থায়নে পরিচালিত সেকেন্ড স্মল অ্যান্ড মিডিয়াম সাইজড এন্টারপ্রাইজ ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (এসএমইডিপি-২) শীর্ষক পুনঃঅর্থায়ন তহবিলের বিষয়ে নিম্নরূপ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

পুনঃঅর্থায়ন সীমা বাড়িয়ে কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা প্রকল্প/প্রতিষ্ঠানে দেয়া ঋণের বিপরীতে সর্বোচ্চ তিন কোটি টাকা এবং মাঝারি উদ্যোক্তা প্রকল্প/প্রতিষ্ঠানে দেয়া ঋণের বিপরীতে সর্বোচ্চ পাঁচ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। চলতি মূলধন ঋণের ক্ষেত্রে মোট ঋণের ৩০ শতাংশের পরিবর্তে সর্বোচ্চ ১০০ শতাংশ পর্যন্ত এক বছর মেয়াদে পুনঃঅর্থায়ন এবং দুটি সমান ষান্মাসিক কিস্তিতে আদায় হবে।

বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২১ , ৩০ পৌষ ১৪২৭, ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪২

ক্ষুদ্রঋণে পুনঃঅর্থায়নের সীমা বাড়লো

কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পখাত (সিএমএসএমই) উন্নয়নে গঠিত পুনঃঅর্থায়ন তহবিলের আওতায় পুনঃঅর্থায়ন সীমা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। গতকাল এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সব তফসিলি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তা (সিএমএসএমই) খাতে ঋণপ্রবাহ বাড়ানোর মাধ্যমে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য সরকার ও এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) যৌথ অর্থায়নে পরিচালিত সেকেন্ড স্মল অ্যান্ড মিডিয়াম সাইজড এন্টারপ্রাইজ ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (এসএমইডিপি-২) শীর্ষক পুনঃঅর্থায়ন তহবিলের বিষয়ে নিম্নরূপ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

পুনঃঅর্থায়ন সীমা বাড়িয়ে কুটির, মাইক্রো, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা প্রকল্প/প্রতিষ্ঠানে দেয়া ঋণের বিপরীতে সর্বোচ্চ তিন কোটি টাকা এবং মাঝারি উদ্যোক্তা প্রকল্প/প্রতিষ্ঠানে দেয়া ঋণের বিপরীতে সর্বোচ্চ পাঁচ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। চলতি মূলধন ঋণের ক্ষেত্রে মোট ঋণের ৩০ শতাংশের পরিবর্তে সর্বোচ্চ ১০০ শতাংশ পর্যন্ত এক বছর মেয়াদে পুনঃঅর্থায়ন এবং দুটি সমান ষান্মাসিক কিস্তিতে আদায় হবে।