বাইডেন শপথ নিচ্ছেন আজ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ শপথ নেবেন জো বাইডেন। রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটল হিলে স্থানীয় সময় বুধবার দুপুরে (বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১০টা) শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ক্যাপিটল হিলে শপথ নেয়ার পর বাইডেন হোয়াইট হাউজে প্রবেশ করবেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প সমর্থকদের সহিংসতার আশঙ্কা এবং করোনা মহামারীর জন্য এবারে শপথ অনুষ্ঠান আগের চেয়ে ভিন্ন হবে।

বাইডেনের অভিষেক উপলক্ষে ক্যাপিটল হিলের চারপাশে সামরিক ‘গ্রিন জোন’ ঘোষণা করা হয়েছে। রাজধানী ওয়াশিংটনের বেশিরভাগ রাস্তা এবং মেট্রো স্টেশনগুলোর পাশাপাশি কর্তৃপক্ষ জাতীয় উদ্যান হিসেবে পরিচিত ন্যাশনাল মলও বন্ধ করে দিয়েছে। এর ফলে, ন্যাশনাল পার্কে অন্য সময় যে লাখো মানুষের ভিড় থাকে, এবার সেটি খালিই দেখা যাবে। ভার্জিনিয়া রাজ্য থেকে শহরে প্রবেশের সেতুগুলোও বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে।

অভিষেক অনুষ্ঠানে যাদের আমন্ত্রণ জানানো হয় করোনা মহামারীর কারণে এবার সেটি হচ্ছে না।

বদলেছে ক্যাপিটল হিলের আশপাশের দৃশ্যও। আগে উন্মুক্ত থাকলেও বর্তমানে ভবনটির চারপাশে বসানো হয়েছে ৭ ফুট উঁচু কাঁটাতারের বেড়া। তীব্র নিরাপত্তা উদ্বেগ সত্ত্বেও বাইডেন অনুষ্ঠানটি ঐতিহ্যবাহী স্থানেই করছেন। সহিংসতার শঙ্কায় ওয়াশিংটন ডিসিতে বর্তমানে হাই অ্যালার্ট চলছে। শহরজুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে ২৫ হাজার ন্যাশনাল গার্ড সদস্য।

অভিষেকের দিন

সাধারণত অভিষেকের দিন সকালেই নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট হোয়াইট হাউজে পৌঁছে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ও তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। সেখান থেকে তারা একসঙ্গে অভিষেক অনুষ্ঠানে যান।

কিন্তু এবার বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে যাবেন না। হোয়াইট হাউজ ভ্রমণ শেষে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্যাপিটল ভবনে পৌঁছালেই শুরু হয় অভিষেকের আনুষ্ঠানিকতা। প্রথমে শপথবাক্য পাঠ করেন নতুন প্রেসিডেন্ট। এরপর রীতি মেনে অভিষেকের বক্তব্য রাখেন।

কংগ্রেসের নেতাদের সঙ্গে দুপুরের খাবার খান প্রেসিডেন্ট। পরে মিছিল নিয়ে হোয়াইট হাউজে পৌঁছান তিনি। সেখানে অভিষেক উপলক্ষে জাঁকজমক পার্টিতে যোগ দেন নতুন প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডি।

কিন্তু এ বছর অভিষেক অনুষ্ঠানের আয়োজন একেবারে সীমিত করে ফেলা হয়েছে। ইতোমধ্যে জানা গেছে, হোয়াইট হাউজে যাওয়ার মিছিলটি হবে ভার্চুয়াল। হচ্ছে না কংগ্রেস সদস্যদের সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজ। বাদ অভিষেক পার্টিও।

তারকারা থাকবেন

বাইডেনের অভিষেকে ক্যাপিটল ভবনের অনুষ্ঠানে মঞ্চ আলোকিত করতে উপস্থিত থাকবেন একঝাঁক তারকা।

ইউএস ক্যাপিটলের পশ্চিম ভাগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত গাইবেন পপ তারকা লেডি গাগা। এরপর একটি মিউজিক্যাল পারফরমেন্সে অংশ নেবেন গায়িকা-অভিনেত্রী জেনিফার লোপেজ।

এতে আরও অংশ নেবেন সংগীতশিল্পী জাস্টিন টিম্বারলেক, জন বন জোভি, ডেমি লোভাটো এবং অ্যান্ট ক্লেমনস। বাইডেনের শপথগ্রহণ উপলক্ষে ৯০ মিনিটের একটি অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন দুইবার অস্কারজয়ী অভিনেতা টম হ্যাংকস।

‘নতুন প্রশাসন’ আসবে ট্রাম্প তা মেনে নেয়া সত্ত্বেও নিজের পরাজয় মেনে নিতে বা বাইডেনকে অভিনন্দন জানাতে অস্বীকার করেছেন। ট্রাম্প শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের ১৬০ বছরের মার্কিন ঐতিহ্য উপেক্ষা করে ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি অভিষেক অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন না। তবে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

ট্রাম্প একটি বিদায়ী লাল গালিচা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ওয়াশিংটন ছাড়ার পরিকল্পনা করছেন। এরপর প্রেসিডেন্টের বিমান এয়ারফোর্স ওয়ানে চড়ে তিনি ফ্লোরিডার উদ্দেশে যাত্রা করবেন।

বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১ , ৬ মাঘ ১৪২৭, ৬ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বাইডেন শপথ নিচ্ছেন আজ

ক্যাপিটল ভবনের চার পাশে সামরিক ‘গ্রিন জোন’ ঘোষণা

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ শপথ নেবেন জো বাইডেন। রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটল হিলে স্থানীয় সময় বুধবার দুপুরে (বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১০টা) শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ক্যাপিটল হিলে শপথ নেয়ার পর বাইডেন হোয়াইট হাউজে প্রবেশ করবেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প সমর্থকদের সহিংসতার আশঙ্কা এবং করোনা মহামারীর জন্য এবারে শপথ অনুষ্ঠান আগের চেয়ে ভিন্ন হবে।

বাইডেনের অভিষেক উপলক্ষে ক্যাপিটল হিলের চারপাশে সামরিক ‘গ্রিন জোন’ ঘোষণা করা হয়েছে। রাজধানী ওয়াশিংটনের বেশিরভাগ রাস্তা এবং মেট্রো স্টেশনগুলোর পাশাপাশি কর্তৃপক্ষ জাতীয় উদ্যান হিসেবে পরিচিত ন্যাশনাল মলও বন্ধ করে দিয়েছে। এর ফলে, ন্যাশনাল পার্কে অন্য সময় যে লাখো মানুষের ভিড় থাকে, এবার সেটি খালিই দেখা যাবে। ভার্জিনিয়া রাজ্য থেকে শহরে প্রবেশের সেতুগুলোও বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে।

অভিষেক অনুষ্ঠানে যাদের আমন্ত্রণ জানানো হয় করোনা মহামারীর কারণে এবার সেটি হচ্ছে না।

বদলেছে ক্যাপিটল হিলের আশপাশের দৃশ্যও। আগে উন্মুক্ত থাকলেও বর্তমানে ভবনটির চারপাশে বসানো হয়েছে ৭ ফুট উঁচু কাঁটাতারের বেড়া। তীব্র নিরাপত্তা উদ্বেগ সত্ত্বেও বাইডেন অনুষ্ঠানটি ঐতিহ্যবাহী স্থানেই করছেন। সহিংসতার শঙ্কায় ওয়াশিংটন ডিসিতে বর্তমানে হাই অ্যালার্ট চলছে। শহরজুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে ২৫ হাজার ন্যাশনাল গার্ড সদস্য।

অভিষেকের দিন

সাধারণত অভিষেকের দিন সকালেই নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট হোয়াইট হাউজে পৌঁছে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ও তার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন। সেখান থেকে তারা একসঙ্গে অভিষেক অনুষ্ঠানে যান।

কিন্তু এবার বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে যাবেন না। হোয়াইট হাউজ ভ্রমণ শেষে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্যাপিটল ভবনে পৌঁছালেই শুরু হয় অভিষেকের আনুষ্ঠানিকতা। প্রথমে শপথবাক্য পাঠ করেন নতুন প্রেসিডেন্ট। এরপর রীতি মেনে অভিষেকের বক্তব্য রাখেন।

কংগ্রেসের নেতাদের সঙ্গে দুপুরের খাবার খান প্রেসিডেন্ট। পরে মিছিল নিয়ে হোয়াইট হাউজে পৌঁছান তিনি। সেখানে অভিষেক উপলক্ষে জাঁকজমক পার্টিতে যোগ দেন নতুন প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডি।

কিন্তু এ বছর অভিষেক অনুষ্ঠানের আয়োজন একেবারে সীমিত করে ফেলা হয়েছে। ইতোমধ্যে জানা গেছে, হোয়াইট হাউজে যাওয়ার মিছিলটি হবে ভার্চুয়াল। হচ্ছে না কংগ্রেস সদস্যদের সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজ। বাদ অভিষেক পার্টিও।

তারকারা থাকবেন

বাইডেনের অভিষেকে ক্যাপিটল ভবনের অনুষ্ঠানে মঞ্চ আলোকিত করতে উপস্থিত থাকবেন একঝাঁক তারকা।

ইউএস ক্যাপিটলের পশ্চিম ভাগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত গাইবেন পপ তারকা লেডি গাগা। এরপর একটি মিউজিক্যাল পারফরমেন্সে অংশ নেবেন গায়িকা-অভিনেত্রী জেনিফার লোপেজ।

এতে আরও অংশ নেবেন সংগীতশিল্পী জাস্টিন টিম্বারলেক, জন বন জোভি, ডেমি লোভাটো এবং অ্যান্ট ক্লেমনস। বাইডেনের শপথগ্রহণ উপলক্ষে ৯০ মিনিটের একটি অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন দুইবার অস্কারজয়ী অভিনেতা টম হ্যাংকস।

‘নতুন প্রশাসন’ আসবে ট্রাম্প তা মেনে নেয়া সত্ত্বেও নিজের পরাজয় মেনে নিতে বা বাইডেনকে অভিনন্দন জানাতে অস্বীকার করেছেন। ট্রাম্প শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের ১৬০ বছরের মার্কিন ঐতিহ্য উপেক্ষা করে ঘোষণা দিয়েছেন, তিনি অভিষেক অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন না। তবে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার কথা রয়েছে।

ট্রাম্প একটি বিদায়ী লাল গালিচা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ওয়াশিংটন ছাড়ার পরিকল্পনা করছেন। এরপর প্রেসিডেন্টের বিমান এয়ারফোর্স ওয়ানে চড়ে তিনি ফ্লোরিডার উদ্দেশে যাত্রা করবেন।