আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক

সামাজিক নিরাপত্তা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলাসহ দেশের যে কোনো জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলায় জনগণের পাশে এসে দাঁড়ানো এবং প্রয়োজনে তাদের সক্রিয়ভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করার পরিকল্পনা নিয়ে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা দল গঠন করা হয়েছে। এ যাবৎ আনসার ভিডিপির প্রতিটি সদস্য সদস্যা উপরোক্ত প্রতিটি ব্যাপারে ইতিবাচক ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন। প্রায় ৬০ লক্ষাধিক সদস্য-সদস্যা নিয়ে এ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা দল গঠিত। বাংলাদেশে সুবৃহৎ, সুশৃঙ্খল ও সুসংগঠিত বিশাল এ বাহিনী সমসংখ্যক পুরুষ ও মহিলার সমন্বয়ে গঠিত নিম্ন-মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ও বিত্তহীন স্বেচ্ছাসেবী বিশাল এ জনগোষ্ঠীর দারিদ্র্যবিমোচন, বেকারত্ব দূরীকরণ ও আত্ম-কর্মসংস্থারে মাধ্যমে স্বনির্ভর বাংলাদেশ গঠনের দৃঢ়প্রত্যয় ও অঙ্গীকার নিয়ে আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের আত্মপ্রকাশ।

দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা থেকে পরিষ্কার যে, গ্রামের বেকার, নিম্নবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত, বিত্তহীন শ্রেণী বিশেষ করে নারীদের সদিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও প্রয়োজনীয় পুঁজির অভাবে ভাগ্য উন্নয়নের কোন অর্থকরী কার্যক্রম হাতে নিতে সক্ষম হচ্ছে না। আনসার ও ভিডিপি সংগঠনের বিপুলসংখ্যক সদস্য সদস্যার দারিদ্র্যবিমোচনের লক্ষ্যে আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে স্বনির্ভর ও স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলাসহ তাদের সার্বিক আর্র্র্থ-সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে এই ব্যাংক ইতোমধ্য বহুমুখী ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচি চালু করেছে। এই ব্যাংকের শেয়ার বিক্রি করা হয়েছে শুধুমাত্র আনসার ভিডিপি সদস্য সদস্যাদের মধ্যে। শেয়ার হোল্ডার হিসাবে তারাই এই ব্যাংকের মালিক হয়েছে। এই ব্যাংক ঋণ দিচ্ছে শুধুমাত্র আনসার ভিডিপি সদস্য সদস্যাদের মধ্যে যারাই এ ব্যাংকের মালিক। পিছিয়ে পড়া মানুষের বিনা বন্ধকিতে পুঁজির ব্যবস্থা হয়েছে এই ব্যাংকের মাধ্যমে। অন্যদিকে ঋণের অর্থ প্রধানতÑ উৎপাদনশীল ক্ষেত্রে বিনিয়োগ হওয়ায় জাতীয় উৎপাদনে এর ইতিবাচক ভূমিকা রয়েছে। এই ব্যাংক একটি ব্যতিক্রমী ব্যাংক। এই কার্যক্রম শুধু ঋণ প্রদান ও আদায়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। সব কার্যক্রমের জন্য ব্যাংক ঋণ গ্রহীতাদের গ্রুপ গঠন, প্রকল্প গ্রহণ, ঋণের অর্থের সঠিক ও লাভজনক বিনিয়োগ এসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দিয়ে থাকে। তাই এই ব্যাংকের কর্মপ্রক্রিয়াও ব্যতিক্রমী। ঋণ কর্মসূচির আওতায় এ ব্যাংক বর্তমানে গরু, ছাগল মোটাতাজাকরণ, হাঁস-মুরগি পালন, মৎস্য চাষ, হ্যাচারি প্রকল্প, শাক-সবজি ফলমুল উৎপাদন, নার্সারি প্রকল্প, কুটির শিল্প স্থাপন, রিকশা ও রিকশাভ্যান ক্রয়, মৃৎশিল্প, পাটের হস্তশিল্প, সেলাই মেশিন ক্রয়, রেডিও, টিভি ঘড়ি মেরামত খাতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঋণ (মাইক্রো ক্রেডিট) বিনা জামানতে প্রদান করছে।

নারী মুক্তি ও নারীর ক্ষমতায়ন বর্তমান সময়ে অত্যন্ত আলোচিত বিষয়। বর্তমান বিশ্বে জীবিকা অর্জনের লক্ষ্যে নারীর অধিপত্য সৃষ্টি হয়েছে। আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর নারীরা শুধু পেশাগত ও কারিগরি উভয় শিক্ষায় শিক্ষিতই নয়, বরং তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধিরও সুযোগ রয়েছে। এ বাহিনীর মহিলাদের মানবাধিকার ও জেন্ডার ইস্যুর ওপর ধারণা দেয়া হয়। নারীর ক্ষমতায়নকে লক্ষ্য রেখে আনসার ভিডিপির নারী সদস্যকে গ্রাম সরকারে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আর্থিক ও সামাজিক ক্ষমতায়নের জন্য আনসার ভিডিপি নারী সদস্যদের বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণ যেমন- সেলাই, বুনন, তাঁতের কাজ, বিভিন্ন গৃহসরঞ্জাম সংরক্ষণ, নার্সারি, মৎস্য ও পশুসম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রশিক্ষণও প্রদান করা হয়। আনসার ভিডিপি সমিতির অধীনে সদস্য সদস্যারা বিভিন্নমুখী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে। জাতির উন্নয়নের জন্য আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীতে নারীদের অঙ্গীভূতকরণ বা সম্পৃক্তকরণ একটি বড় ধাপ। ভয়, কুসংস্কার এবং সমাজের নিন্দা ধারণাকে উপেক্ষা করে নারীরা এগিয়ে এসেছে। জাতির উন্নয়নের জন্য নারী নেতৃত্ব এবং নারী মুক্তি অবশ্যই প্রয়োজন। যদি আমাদের নারীরা রক্ষণশীল বা গোড়া সমাজ থেকে বেরিয়ে আসে তবে তারা নারী নেতৃত্ব এবং নারীর ক্ষমতায়ন প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবে এবং রাজনীতির ক্ষেত্রেও একটি সুন্দর উপযোগী পরিবেশ সৃষ্টিতে সাহায্য করবে। নারীরা সচেতন হলে সমাজ ক্রমান্বয়ে উন্নতির দিকে যাবে। অনেক অপরাধ এবং দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে চলে আসবে। সামাজিক বৈষম্যদূর হবে। পরিবার, সাজসহ সর্বত্র একটি সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করবে। নারীদের কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাথে সম্পৃক্ত করে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিরাপদ সমাজ গঠন এবং শিশুপাচার রোধে একটি চ্যালেঞ্জে অংশ নিতে পারে। সরকারের কাছ থেকে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীকে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করা হলে আমাদের নারী সমাজের উন্নয়ন অতি শীঘ্রই সম্ভব হবে।

আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের কার্যক্রম সফল বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে আনসার ও ভিডিপি সংগঠন ব্যাংকের তৃণমূল থেকে সব স্তরে যোগাযোগ ও সমন্বয় অতীব প্রয়োজন। সেই লক্ষ্যে থানা আনসার ভিডিপি অফিসে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকেন। জেলা পর্যায়ে জেলা আনসার অ্যাডজুট্যান্টের সাথে ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা সময়ে সময়ে ও প্রয়োজনে যোগাযোগ এবং সমন্বয় রক্ষা করে থাকেন। পরিশেষে আমরা বলতে পারি, সেবা ও মাইক্রোক্রেডিটের এক ব্যতিক্রমী ধারা হচ্ছে বাংলাদেশ আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক। অভিজ্ঞ ও দক্ষ পরিচালনায় এ ব্যাংক গ্রামীণ আর্থ-সামাজিক সম্ভাব্য উন্নয়নের রোল মডেলের ভূমিকা পালন করতে পারে।

সোমবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২১ , ১১ মাঘ ১৪২৭, ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আনসার-ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক

ড. ফোরকান উদ্দিন আহাম্মদ

সামাজিক নিরাপত্তা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলাসহ দেশের যে কোনো জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলায় জনগণের পাশে এসে দাঁড়ানো এবং প্রয়োজনে তাদের সক্রিয়ভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করার পরিকল্পনা নিয়ে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা দল গঠন করা হয়েছে। এ যাবৎ আনসার ভিডিপির প্রতিটি সদস্য সদস্যা উপরোক্ত প্রতিটি ব্যাপারে ইতিবাচক ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন। প্রায় ৬০ লক্ষাধিক সদস্য-সদস্যা নিয়ে এ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা দল গঠিত। বাংলাদেশে সুবৃহৎ, সুশৃঙ্খল ও সুসংগঠিত বিশাল এ বাহিনী সমসংখ্যক পুরুষ ও মহিলার সমন্বয়ে গঠিত নিম্ন-মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত ও বিত্তহীন স্বেচ্ছাসেবী বিশাল এ জনগোষ্ঠীর দারিদ্র্যবিমোচন, বেকারত্ব দূরীকরণ ও আত্ম-কর্মসংস্থারে মাধ্যমে স্বনির্ভর বাংলাদেশ গঠনের দৃঢ়প্রত্যয় ও অঙ্গীকার নিয়ে আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের আত্মপ্রকাশ।

দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা থেকে পরিষ্কার যে, গ্রামের বেকার, নিম্নবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত, বিত্তহীন শ্রেণী বিশেষ করে নারীদের সদিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও প্রয়োজনীয় পুঁজির অভাবে ভাগ্য উন্নয়নের কোন অর্থকরী কার্যক্রম হাতে নিতে সক্ষম হচ্ছে না। আনসার ও ভিডিপি সংগঠনের বিপুলসংখ্যক সদস্য সদস্যার দারিদ্র্যবিমোচনের লক্ষ্যে আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে স্বনির্ভর ও স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলাসহ তাদের সার্বিক আর্র্র্থ-সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে এই ব্যাংক ইতোমধ্য বহুমুখী ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচি চালু করেছে। এই ব্যাংকের শেয়ার বিক্রি করা হয়েছে শুধুমাত্র আনসার ভিডিপি সদস্য সদস্যাদের মধ্যে। শেয়ার হোল্ডার হিসাবে তারাই এই ব্যাংকের মালিক হয়েছে। এই ব্যাংক ঋণ দিচ্ছে শুধুমাত্র আনসার ভিডিপি সদস্য সদস্যাদের মধ্যে যারাই এ ব্যাংকের মালিক। পিছিয়ে পড়া মানুষের বিনা বন্ধকিতে পুঁজির ব্যবস্থা হয়েছে এই ব্যাংকের মাধ্যমে। অন্যদিকে ঋণের অর্থ প্রধানতÑ উৎপাদনশীল ক্ষেত্রে বিনিয়োগ হওয়ায় জাতীয় উৎপাদনে এর ইতিবাচক ভূমিকা রয়েছে। এই ব্যাংক একটি ব্যতিক্রমী ব্যাংক। এই কার্যক্রম শুধু ঋণ প্রদান ও আদায়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। সব কার্যক্রমের জন্য ব্যাংক ঋণ গ্রহীতাদের গ্রুপ গঠন, প্রকল্প গ্রহণ, ঋণের অর্থের সঠিক ও লাভজনক বিনিয়োগ এসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দিয়ে থাকে। তাই এই ব্যাংকের কর্মপ্রক্রিয়াও ব্যতিক্রমী। ঋণ কর্মসূচির আওতায় এ ব্যাংক বর্তমানে গরু, ছাগল মোটাতাজাকরণ, হাঁস-মুরগি পালন, মৎস্য চাষ, হ্যাচারি প্রকল্প, শাক-সবজি ফলমুল উৎপাদন, নার্সারি প্রকল্প, কুটির শিল্প স্থাপন, রিকশা ও রিকশাভ্যান ক্রয়, মৃৎশিল্প, পাটের হস্তশিল্প, সেলাই মেশিন ক্রয়, রেডিও, টিভি ঘড়ি মেরামত খাতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ঋণ (মাইক্রো ক্রেডিট) বিনা জামানতে প্রদান করছে।

নারী মুক্তি ও নারীর ক্ষমতায়ন বর্তমান সময়ে অত্যন্ত আলোচিত বিষয়। বর্তমান বিশ্বে জীবিকা অর্জনের লক্ষ্যে নারীর অধিপত্য সৃষ্টি হয়েছে। আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর নারীরা শুধু পেশাগত ও কারিগরি উভয় শিক্ষায় শিক্ষিতই নয়, বরং তাদের ক্ষমতা বৃদ্ধিরও সুযোগ রয়েছে। এ বাহিনীর মহিলাদের মানবাধিকার ও জেন্ডার ইস্যুর ওপর ধারণা দেয়া হয়। নারীর ক্ষমতায়নকে লক্ষ্য রেখে আনসার ভিডিপির নারী সদস্যকে গ্রাম সরকারে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আর্থিক ও সামাজিক ক্ষমতায়নের জন্য আনসার ভিডিপি নারী সদস্যদের বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষণ যেমন- সেলাই, বুনন, তাঁতের কাজ, বিভিন্ন গৃহসরঞ্জাম সংরক্ষণ, নার্সারি, মৎস্য ও পশুসম্পদ ব্যবস্থাপনা প্রশিক্ষণও প্রদান করা হয়। আনসার ভিডিপি সমিতির অধীনে সদস্য সদস্যারা বিভিন্নমুখী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে। জাতির উন্নয়নের জন্য আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীতে নারীদের অঙ্গীভূতকরণ বা সম্পৃক্তকরণ একটি বড় ধাপ। ভয়, কুসংস্কার এবং সমাজের নিন্দা ধারণাকে উপেক্ষা করে নারীরা এগিয়ে এসেছে। জাতির উন্নয়নের জন্য নারী নেতৃত্ব এবং নারী মুক্তি অবশ্যই প্রয়োজন। যদি আমাদের নারীরা রক্ষণশীল বা গোড়া সমাজ থেকে বেরিয়ে আসে তবে তারা নারী নেতৃত্ব এবং নারীর ক্ষমতায়ন প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হবে এবং রাজনীতির ক্ষেত্রেও একটি সুন্দর উপযোগী পরিবেশ সৃষ্টিতে সাহায্য করবে। নারীরা সচেতন হলে সমাজ ক্রমান্বয়ে উন্নতির দিকে যাবে। অনেক অপরাধ এবং দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে চলে আসবে। সামাজিক বৈষম্যদূর হবে। পরিবার, সাজসহ সর্বত্র একটি সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করবে। নারীদের কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাথে সম্পৃক্ত করে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী নিরাপদ সমাজ গঠন এবং শিশুপাচার রোধে একটি চ্যালেঞ্জে অংশ নিতে পারে। সরকারের কাছ থেকে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীকে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করা হলে আমাদের নারী সমাজের উন্নয়ন অতি শীঘ্রই সম্ভব হবে।

আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংকের কার্যক্রম সফল বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে আনসার ও ভিডিপি সংগঠন ব্যাংকের তৃণমূল থেকে সব স্তরে যোগাযোগ ও সমন্বয় অতীব প্রয়োজন। সেই লক্ষ্যে থানা আনসার ভিডিপি অফিসে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকেন। জেলা পর্যায়ে জেলা আনসার অ্যাডজুট্যান্টের সাথে ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা সময়ে সময়ে ও প্রয়োজনে যোগাযোগ এবং সমন্বয় রক্ষা করে থাকেন। পরিশেষে আমরা বলতে পারি, সেবা ও মাইক্রোক্রেডিটের এক ব্যতিক্রমী ধারা হচ্ছে বাংলাদেশ আনসার ভিডিপি উন্নয়ন ব্যাংক। অভিজ্ঞ ও দক্ষ পরিচালনায় এ ব্যাংক গ্রামীণ আর্থ-সামাজিক সম্ভাব্য উন্নয়নের রোল মডেলের ভূমিকা পালন করতে পারে।