ঢাক-ঢোল পিটিয়ে সাপে কাটা রোগীর চিকিৎসা, পুলিশ দেখে পালালেন কবিরাজ

বরিশালের বাবুগঞ্জে ঢাক-ঢোলসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে সাপে কাটা এক তরুণীর চিকিৎসা করছিলেন কথিত কবিরাজ ও তার দল। খবর

পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে দল নিয়ে পালিয়ে যান তিনি। পরে পুলিশ অসুস্থ তরুণীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়নের আগরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। কথিত কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেন (৩৫) মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ রমজানপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার দলের সদস্যরা হল দক্ষিণ রমজানপুর গ্রামের মো. তফেল, মো. হাফিজুল, মো. বাপ্পি, মো. হানিফ ও মো. শাজাহান।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার রাতে ওই তরুণীকে সাপ বা বিষাক্ত কোন পোকায় কামড় দেয়। এতে তিনি আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। ওই রাতেই তাকে কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেনের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। ঝাড়ফুঁক শেষে আবার বাড়ি ফিরিয়ে আনা হয়। ফের অসুস্থ হয়ে পড়লে তরুণীর স্বজনরা গিয়ে কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেনকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। ওই দিন বাড়ির উঠানে সামিয়ানা টাঙানো হয়। কলা গাছের সামনে মোমবাতি, আগরবাতি ও ধূপ জ্বলানো হয়। ঘেরাও দেয়া সীমানার মধ্যে একটি চেয়ারে বসানো হয় তরুণীকে। এরপর শুরু কবিরাজের বুজরুকি চিকিৎসা। কিছুক্ষণ পর পর ঢাক-ঢোলসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে মন্ত্র পড়ে তরুণীকে ও কলাগাছকে ঝাড়ফুঁক করতে থাকেন কবিরাজ। জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারেক বিষয়টি জানতে পেরে গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন। এ সময় পুলিশ দেখে দল নিয়ে পালিয়ে যান কবিরাজ।

তরুণীর স্বজনরা জানান, গত মঙ্গলবার সকালে কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেনকে জানালে তিনি বাড়িতে এসে ঝাড়ফুঁক করেন। জানান তাকে বিষধর সাপে কামড়েছে। শুধু ঝাড়ফুঁক নয়। লাগবে ‘আধ্যাত্মিক’ চিকিৎসা। এজন্য তরুণীর বাবার কাছ থেকে ৪৫ হাজার টাকা দাবি করেন। পরে তার সঙ্গে ৩৭ হাজার টাকায় দফারফা হয়। শর্ত অনুযায়ী, কবিরাজের সঙ্গে ছয় সদস্যের দল রোগীর বাড়িতে থাকবে ও এখানে খাওয়া দাওয়া করবে। বাদ্য-বাজনার তালে তালে মন্ত্র পড়ে ‘আধ্যাত্মিক’ চিকিৎসা দেয়া হবে। এ সময় খাবার, ডেকোরেশনসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা ও এর ব্যয় রোগীর অভিভাবককে বহন করতে হবে। তিন, পাঁচ বা সাত দিনের মধ্যে তরুণীকে পুরোপুরি সুস্থ করে তোলার গ্যারান্টিও দেন কবিরাজ মো. আলী আকবর। তরুণীর পিতা জানান, গত মঙ্গলবার সকাল থেকে গত বুধবার রাত পর্যন্ত কবিরাজের চিকিৎসায় তার মেয়ের শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হচ্ছিল। তবে কবিরাজ পালিয়ে গেলে বুধবার রাতে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেয়েকে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসার পর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়। গতকাল ভোরে চিকিৎসকদের অনুমতি নিয়ে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। তার মেয়ে এখন পুরোপুরি সুস্থ।

শুক্রবার, ১১ জুন ২০২১ , ২৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ ২৯ শাওয়াল ১৪৪২

বরিশালের বাবুগঞ্জে

ঢাক-ঢোল পিটিয়ে সাপে কাটা রোগীর চিকিৎসা, পুলিশ দেখে পালালেন কবিরাজ

বরিশালের বাবুগঞ্জে ঢাক-ঢোলসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে সাপে কাটা এক তরুণীর চিকিৎসা করছিলেন কথিত কবিরাজ ও তার দল। খবর

পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে দল নিয়ে পালিয়ে যান তিনি। পরে পুলিশ অসুস্থ তরুণীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়নের আগরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। কথিত কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেন (৩৫) মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ রমজানপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার দলের সদস্যরা হল দক্ষিণ রমজানপুর গ্রামের মো. তফেল, মো. হাফিজুল, মো. বাপ্পি, মো. হানিফ ও মো. শাজাহান।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার রাতে ওই তরুণীকে সাপ বা বিষাক্ত কোন পোকায় কামড় দেয়। এতে তিনি আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। ওই রাতেই তাকে কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেনের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। ঝাড়ফুঁক শেষে আবার বাড়ি ফিরিয়ে আনা হয়। ফের অসুস্থ হয়ে পড়লে তরুণীর স্বজনরা গিয়ে কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেনকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। ওই দিন বাড়ির উঠানে সামিয়ানা টাঙানো হয়। কলা গাছের সামনে মোমবাতি, আগরবাতি ও ধূপ জ্বলানো হয়। ঘেরাও দেয়া সীমানার মধ্যে একটি চেয়ারে বসানো হয় তরুণীকে। এরপর শুরু কবিরাজের বুজরুকি চিকিৎসা। কিছুক্ষণ পর পর ঢাক-ঢোলসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে মন্ত্র পড়ে তরুণীকে ও কলাগাছকে ঝাড়ফুঁক করতে থাকেন কবিরাজ। জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারেক বিষয়টি জানতে পেরে গত বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন। এ সময় পুলিশ দেখে দল নিয়ে পালিয়ে যান কবিরাজ।

তরুণীর স্বজনরা জানান, গত মঙ্গলবার সকালে কবিরাজ মো. আলী আকবর হোসেনকে জানালে তিনি বাড়িতে এসে ঝাড়ফুঁক করেন। জানান তাকে বিষধর সাপে কামড়েছে। শুধু ঝাড়ফুঁক নয়। লাগবে ‘আধ্যাত্মিক’ চিকিৎসা। এজন্য তরুণীর বাবার কাছ থেকে ৪৫ হাজার টাকা দাবি করেন। পরে তার সঙ্গে ৩৭ হাজার টাকায় দফারফা হয়। শর্ত অনুযায়ী, কবিরাজের সঙ্গে ছয় সদস্যের দল রোগীর বাড়িতে থাকবে ও এখানে খাওয়া দাওয়া করবে। বাদ্য-বাজনার তালে তালে মন্ত্র পড়ে ‘আধ্যাত্মিক’ চিকিৎসা দেয়া হবে। এ সময় খাবার, ডেকোরেশনসহ বিভিন্ন ব্যবস্থা ও এর ব্যয় রোগীর অভিভাবককে বহন করতে হবে। তিন, পাঁচ বা সাত দিনের মধ্যে তরুণীকে পুরোপুরি সুস্থ করে তোলার গ্যারান্টিও দেন কবিরাজ মো. আলী আকবর। তরুণীর পিতা জানান, গত মঙ্গলবার সকাল থেকে গত বুধবার রাত পর্যন্ত কবিরাজের চিকিৎসায় তার মেয়ের শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হচ্ছিল। তবে কবিরাজ পালিয়ে গেলে বুধবার রাতে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেয়েকে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসার পর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়। গতকাল ভোরে চিকিৎসকদের অনুমতি নিয়ে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। তার মেয়ে এখন পুরোপুরি সুস্থ।