চলছে ধারাবাহিক নাটক ‘সেন্টিমেন্টাল ফ্যামিলি’র শুটিং

রাজধানীর উত্তরায় সম্প্রতি শুরু হয়েছে ‘সেন্টিমেন্টাল ফ্যামিলি’ নামে একটি ধারাবাহিক নাটকের শুটিং। নাটকটি রচনা করেছেন শফিকুর রহমান শান্তনু ও পরিচালনা করেছেন মুসাফির রনি। অন্যরকম এক পরিবারের গল্প নিয়ে নাটকটি নির্মিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন নির্মাতা। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন শহীদুজ্জামান সেলিম, ডা. এজাজ, ফারুক আহমেদ, শামীমা নাজনীন, রাশেদ মামুন অপু, হিমি, ইমতু, নিরব, শাকিলা প্রমুখ।

এর গল্পে দেখা যাবে, ঢাকা শহরে এখনো যে গুটিকয়েক যৌথ পরিবার আছে, তাদের অন্যতম খান পরিবার। কিন্তু তারা সবাই খুবই সেন্টিমেন্টাল। পরিবারের কর্তা খান সাহেব কানে শোনেন কম; কিন্তু কথা বলেন চেঁচিয়ে। খানের স্ত্রী সহজ-সরল স্বভাবের মহিলা। খানের বোন ও তার স্বামী থাকে এ বাড়িতে। দুজনই হচ্ছে সিসিটিভি স্বভাব। খান সাহেবের শ্যালিকাও থাকেন একই বাড়িতে। সে কথায় কথায় মানুষকে চড় মেরে বসে। বিয়ে হয়েছিল তার। কিন্তু স্বামীকে চড় মারার কারণে সে বিয়ে ভেঙে যায়। এ পরিবারের মোস্ট সিনিয়র হচ্ছেন দাদি বা খান সাহেবের মা। ভদ্রমহিলা চোখে দেখেন না; কিন্তু কে কখন কোথায় কী করছে সব খবর তার কাছে ‘প্রতি ঘণ্টার বুলেটিনে’র মতো চলে আসে। খান সাহেবের দুই ছেলে। একজন ভীষণ লাজুক। অন্যজন অস্থির স্বভাবের যুবক। এদের নিয়েই নানা নাটকীয়তায় এগিয়ে যাবে গল্প।

শনিবার, ১৯ জুন ২০২১ , ৫ আষাঢ় ১৪২৮ ৭ জিলকদ ১৪৪২

চলছে ধারাবাহিক নাটক ‘সেন্টিমেন্টাল ফ্যামিলি’র শুটিং

image

রাজধানীর উত্তরায় সম্প্রতি শুরু হয়েছে ‘সেন্টিমেন্টাল ফ্যামিলি’ নামে একটি ধারাবাহিক নাটকের শুটিং। নাটকটি রচনা করেছেন শফিকুর রহমান শান্তনু ও পরিচালনা করেছেন মুসাফির রনি। অন্যরকম এক পরিবারের গল্প নিয়ে নাটকটি নির্মিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন নির্মাতা। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন শহীদুজ্জামান সেলিম, ডা. এজাজ, ফারুক আহমেদ, শামীমা নাজনীন, রাশেদ মামুন অপু, হিমি, ইমতু, নিরব, শাকিলা প্রমুখ।

এর গল্পে দেখা যাবে, ঢাকা শহরে এখনো যে গুটিকয়েক যৌথ পরিবার আছে, তাদের অন্যতম খান পরিবার। কিন্তু তারা সবাই খুবই সেন্টিমেন্টাল। পরিবারের কর্তা খান সাহেব কানে শোনেন কম; কিন্তু কথা বলেন চেঁচিয়ে। খানের স্ত্রী সহজ-সরল স্বভাবের মহিলা। খানের বোন ও তার স্বামী থাকে এ বাড়িতে। দুজনই হচ্ছে সিসিটিভি স্বভাব। খান সাহেবের শ্যালিকাও থাকেন একই বাড়িতে। সে কথায় কথায় মানুষকে চড় মেরে বসে। বিয়ে হয়েছিল তার। কিন্তু স্বামীকে চড় মারার কারণে সে বিয়ে ভেঙে যায়। এ পরিবারের মোস্ট সিনিয়র হচ্ছেন দাদি বা খান সাহেবের মা। ভদ্রমহিলা চোখে দেখেন না; কিন্তু কে কখন কোথায় কী করছে সব খবর তার কাছে ‘প্রতি ঘণ্টার বুলেটিনে’র মতো চলে আসে। খান সাহেবের দুই ছেলে। একজন ভীষণ লাজুক। অন্যজন অস্থির স্বভাবের যুবক। এদের নিয়েই নানা নাটকীয়তায় এগিয়ে যাবে গল্প।