ইন্টারনেট সেবায় বিটিআরসির নতুন নির্দেশনা

ব্রডব্যান্ড সেবায় বিঘœ ঘটলে গ্রাহকদের বিলে ছাড় দেয়ার শর্ত যোগ করে ইন্টারনেট সেবাদাতাদের (আইএসপি) জন্য নতুন নির্দেশনা দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

নতুন শর্ত অনুযায়ী, ইন্টারনেট সেবা টানা তিনদিন বিচ্ছিন্ন থাকলে গ্রাহকদের কাছ থেকে ওই মাসে কোন বিল নিতে পারবে না আইএসপি। টানা একদিন ইন্টারনেট সেবা বিচ্ছিন্ন থাকলে আইএসপি মাসিক বিলের ৫০ শতাংশ ও টানা দুদিন সেবা বিচ্ছিন্ন থাকলে ২৫ শতাংশ নিতে পারবে।

তবে মাসিক বিল থেকে সমন্বয়ের বিটিআরসির নতুন এই শর্ত মেনে চলা ‘কষ্টকর’ হবে বলে মনে করেন ইন্টারনেট সেবাদাতাদের সংগঠন ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সভাপতি আমিনুল হাকিম।

তিনি বলেন, ইন্টারনেট গেইটওয়ে আইআইজিতে সংযোগ বন্ধ রাখলে বা স্থানীয় কাজে যখন কেবল কাটা যায়, তখন আইএসপির কিছু করার থাকে না। বিষয়গুলো আমলে নেয়া উচিত ছিল। ‘ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট বিল অগ্রীম নেয়া হয়ে থাকে। আমরা সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমরাও চাই গ্রাহকরা যেন কোনভাবে সেবা থেকে বঞ্চিত না হয়।’

বিটিআরসির নির্দেশনায় বলা হয়, গ্রাহক অভিযোগ (টিকেটিং নাম্বারসহ) দ্রুততার সঙ্গে সমাধান করতে হবে। গ্রাহক কোন অভিযোগ জানালে বিটিআরসি প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে। এছাড়া অভিযোগ সমাধানের তথ্য কমপক্ষে ছয় মাসের জন্য সংরক্ষণ করতে হবে। গত জুন মাস থেকে গ্রাম থেকে শহর, সারাদেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের মাসিক ফি নির্ধারণ করে দিয়েছে বিটিআরসি।

সে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, গ্রাহক পর্যায়ে ৫ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেটের সর্বোচ্চ মূল্য হবে ৫০০ টাকা। ১০ এমবিপিএসের মূল্য ৮০০ টাকা এবং ২০ এমবিপিএসের মূল্য ১২০০ টাকা বেঁধে দেয়া হয়। বিটিআরসির হিসাবে গত আগস্ট মাস নাগাদ ১ কোটির বেশি ব্রডব্যান্ড গ্রাহক রয়েছে।

শুক্রবার, ০৮ অক্টোবর ২০২১ , ২৩ আশ্বিন ১৪২৮ ৩০ সফর ১৪৪৩

ইন্টারনেট সেবায় বিটিআরসির নতুন নির্দেশনা

ব্রডব্যান্ড সেবায় বিঘœ ঘটলে গ্রাহকদের বিলে ছাড় দেয়ার শর্ত যোগ করে ইন্টারনেট সেবাদাতাদের (আইএসপি) জন্য নতুন নির্দেশনা দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

নতুন শর্ত অনুযায়ী, ইন্টারনেট সেবা টানা তিনদিন বিচ্ছিন্ন থাকলে গ্রাহকদের কাছ থেকে ওই মাসে কোন বিল নিতে পারবে না আইএসপি। টানা একদিন ইন্টারনেট সেবা বিচ্ছিন্ন থাকলে আইএসপি মাসিক বিলের ৫০ শতাংশ ও টানা দুদিন সেবা বিচ্ছিন্ন থাকলে ২৫ শতাংশ নিতে পারবে।

তবে মাসিক বিল থেকে সমন্বয়ের বিটিআরসির নতুন এই শর্ত মেনে চলা ‘কষ্টকর’ হবে বলে মনে করেন ইন্টারনেট সেবাদাতাদের সংগঠন ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সভাপতি আমিনুল হাকিম।

তিনি বলেন, ইন্টারনেট গেইটওয়ে আইআইজিতে সংযোগ বন্ধ রাখলে বা স্থানীয় কাজে যখন কেবল কাটা যায়, তখন আইএসপির কিছু করার থাকে না। বিষয়গুলো আমলে নেয়া উচিত ছিল। ‘ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট বিল অগ্রীম নেয়া হয়ে থাকে। আমরা সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমরাও চাই গ্রাহকরা যেন কোনভাবে সেবা থেকে বঞ্চিত না হয়।’

বিটিআরসির নির্দেশনায় বলা হয়, গ্রাহক অভিযোগ (টিকেটিং নাম্বারসহ) দ্রুততার সঙ্গে সমাধান করতে হবে। গ্রাহক কোন অভিযোগ জানালে বিটিআরসি প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে। এছাড়া অভিযোগ সমাধানের তথ্য কমপক্ষে ছয় মাসের জন্য সংরক্ষণ করতে হবে। গত জুন মাস থেকে গ্রাম থেকে শহর, সারাদেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের মাসিক ফি নির্ধারণ করে দিয়েছে বিটিআরসি।

সে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, গ্রাহক পর্যায়ে ৫ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেটের সর্বোচ্চ মূল্য হবে ৫০০ টাকা। ১০ এমবিপিএসের মূল্য ৮০০ টাকা এবং ২০ এমবিপিএসের মূল্য ১২০০ টাকা বেঁধে দেয়া হয়। বিটিআরসির হিসাবে গত আগস্ট মাস নাগাদ ১ কোটির বেশি ব্রডব্যান্ড গ্রাহক রয়েছে।