ক্লিনফিড বাস্তবায়নে সরকারের সিদ্ধান্ত ব্যর্থ হতে দেয়া যাবে না

ক্লিনফিড বাস্তবায়নে সরকারের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্যাবল টিভি দর্শক ফোরাম। গতকাল সংগঠনটির সভাপতি এরফানুল হক নাহিদ ও মহাসচিব শাহাদাৎ হোসেন মুন্না যৌথ বিবৃতিতে সংবাদ মাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ক্যাবল টেলিভিশন দর্শক ফোরাম দীর্ঘদিন থেকে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে সমুন্নত রাখতে বিদেশি অনুমোদনহীন চ্যানেলগুলো বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছে। সরকারের এই সিদ্ধান্তে দেশের পারিবারিক, সামাজিক, এবং রাষ্ট্রীয় ক্ষেত্রে মূল্যবোধ তৈরি এবং বাঙালি সংস্কৃতিকে উচ্চ শিখরে নিয়ে যেতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

বিবৃতিতে তারা বলেন, দেশীয় বিজ্ঞাপন যাতে দেশের টেলিভিশনগুলোর মধ্যেই থাকে সে বিষয়টিও সরকারকে কার্যকর করতে হবে। বাঙালি সংস্কৃতিকে প্রধান উপজীব্য করে সামাজিক মূল্যবোধ তৈরি করবে এমন নাটক-সিনেমা এবং অন্য অনুষ্ঠান নির্মাণসহ মানসম্মত অনুষ্ঠানও প্রচার করতে হবে। এর পাশাপাশি সংবাদ এবং অনুষ্ঠান প্রচারের মধ্যে মাত্রাতিরিক্ত বিজ্ঞাপন প্রচার করে দর্শকদের কোনভাবেই বিরক্ত করা যাবে না। পরিমিত বিজ্ঞাপন প্রচারের মাধ্যমে অনুষ্ঠানমালাকে দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে হবে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে। কোনও ধরনের চাপ কিংবা অশুভ শক্তি যেন এই সিদ্ধান্তকে ব্যর্থ করতে না পারে, সেজন্য দেশীয় টেলিভিশনসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

শনিবার, ০৯ অক্টোবর ২০২১ , ২৪ আশ্বিন ১৪২৮ ০১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ক্লিনফিড বাস্তবায়নে সরকারের সিদ্ধান্ত ব্যর্থ হতে দেয়া যাবে না

ক্লিনফিড বাস্তবায়নে সরকারের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্যাবল টিভি দর্শক ফোরাম। গতকাল সংগঠনটির সভাপতি এরফানুল হক নাহিদ ও মহাসচিব শাহাদাৎ হোসেন মুন্না যৌথ বিবৃতিতে সংবাদ মাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ক্যাবল টেলিভিশন দর্শক ফোরাম দীর্ঘদিন থেকে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে সমুন্নত রাখতে বিদেশি অনুমোদনহীন চ্যানেলগুলো বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছে। সরকারের এই সিদ্ধান্তে দেশের পারিবারিক, সামাজিক, এবং রাষ্ট্রীয় ক্ষেত্রে মূল্যবোধ তৈরি এবং বাঙালি সংস্কৃতিকে উচ্চ শিখরে নিয়ে যেতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

বিবৃতিতে তারা বলেন, দেশীয় বিজ্ঞাপন যাতে দেশের টেলিভিশনগুলোর মধ্যেই থাকে সে বিষয়টিও সরকারকে কার্যকর করতে হবে। বাঙালি সংস্কৃতিকে প্রধান উপজীব্য করে সামাজিক মূল্যবোধ তৈরি করবে এমন নাটক-সিনেমা এবং অন্য অনুষ্ঠান নির্মাণসহ মানসম্মত অনুষ্ঠানও প্রচার করতে হবে। এর পাশাপাশি সংবাদ এবং অনুষ্ঠান প্রচারের মধ্যে মাত্রাতিরিক্ত বিজ্ঞাপন প্রচার করে দর্শকদের কোনভাবেই বিরক্ত করা যাবে না। পরিমিত বিজ্ঞাপন প্রচারের মাধ্যমে অনুষ্ঠানমালাকে দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে হবে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে। কোনও ধরনের চাপ কিংবা অশুভ শক্তি যেন এই সিদ্ধান্তকে ব্যর্থ করতে না পারে, সেজন্য দেশীয় টেলিভিশনসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।