রাজধানীতে নারী চিকিৎসকসহ তিন নারীর লাশ উদ্ধার

রাজধানীর খিলক্ষেত নিকুঞ্জে মাহফুজা আক্তার (২৫) নামে এক নারী চিকিৎসকের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গত শনিবার রাতে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য তার মৃতদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার আসাদুজ্জামান টেলিফোনে সংবাদকে বলেন, প্রাথমিক তথ্যে পুলিশ জানতে পেরেছে ওই নারী চিকিৎসক আত্মহত্যা করেছেন। তবে কি কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন সেটি খতিয়ে দেখছে পুলিশ। পাশাপাশি অন্য কোন বিষয় আছে কিনা সেটিও তদন্ত করা হচ্ছে।

চিকিৎসক মাহফুজা আক্তারের রুমমেট রুম্পা রানী বলেন, গতকাল ‘ডা. মাহফুজার প্রেমিক আমাকে ফোন দিয়ে বলে তার সঙ্গে আমার ঝগড়া হয়েছে। একটু গিয়ে দেখেন কী অবস্থায় আছে সে। আমি গেলাম, বার বার দরজা নক করলেও সে দরজা খোলে না। এরপর তার প্রেমিক আমাকে আবার ফোন দিয়ে বলে সে বলেছে গলায় ফাঁস দেবে।’ পরে আমি আবার গিয়ে তাকে ডাকাডাকি করি এবং ফোন করি। আমি বাইরে থেকে শুনতে পাচ্ছিলাম তার ফোন বেজে যাচ্ছে, কিন্তু সে ধরছে না। এরপর আমি হোস্টেল সুপারকে ডেকে আনি। তিনিও ডাকাডাকি করলেও দরজা না খোলায় দরজা ভেঙে দেখা যায় সে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলছে। পরে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে।

ডা. মাহফুজার বাবা নূর মোহাম্মদ খান জানান, তার মেয়ের হঠাৎ বুকে ব্যথা হয়। পাশের রুমমেটকে বলে আমার বুকে ব্যথা। পরে পানি খেয়ে শুয়ে পড়লে আর দরজা খোলে না। পরে তারা তাকে মৃত অবস্থায় পায়।

নিহতের ভাই মেহেদী হাসান মুন্না জানান, ২০১৯ সালে ময়মনসিংহ মেডিকে?ল থেকে এমবিবিএস পাস করেন মাহফুজা। তিনি টঙ্গীতে একটি গার্মেন্টসে মেডিকে?ল অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। পাশাপাশি তিনি এফসিপিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। নিকুঞ্জ হোস্টেলে থেকে তিনি কোচিং করতেন। তাদের বাড়ি গাজীপুর জেলায়। বর্তমানে স্থায়ীভাবে কদমতলীর উত্তর মুরাদপুরে পরিবার নিয়ে থাকেন তারা। তার বাবা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা। এক ভাই দুই বোনের মধ্যে মাহফুজা ছিলেন দ্বিতীয়।

পুলিশ জানায়, শনিবার দুপুরের পর মাহফুজার পাশের রুমের মেয়েরা ফোনে অনেক জোরে কথা বলতে শোনেন। বিকেলে তার রুমের দরজা বন্ধ দেখে তারা ডাকাডাকি করেন। এক পর্যায়ে সাড়া-শব্দ না পেয়ে পুলিশে খবর দেয়া হয়। পুলিশ গিয়ে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে। গত বছরের জানুয়ারি মাসে মাহফুজা আক্তার ওই হোস্টেলে ওঠেন। তার রুমে আরও একজন থাকেন। তবে তিনি ঐসময় হোস্টেলে ছিলেন না বলে জানা গেছে।

খিলক্ষেত থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাবরিনা রহমান মৌরী বলেন, মাহফুজার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ কম ছিল। কিভাবে কেন ওই চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে পুলিশ তদন্ত করছে।

ভাটারায় হাত-পা বাঁধা নারীর লাশ

এদিকে রাজধানীর ভাটারা থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় শিপন আক্তার (৩২) নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। অজ্ঞাত হিসেবে উদ্ধারের পর ওই নারীর পরিচয় শনাক্ত করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। র‌্যাব সদরদপ্তরের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান জানান, গতকাল দুপুর ১২টার দিকে রাজধানী ভাটারার কোকাকোলা ঢালী বাড়ি সড়কের পাশের একটি প্লট থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আশপাশের এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ার কারণে স্থানীয় লোকজন নিকটস্থ থানায় ও র?্যাবে খবর দেয়। পরে ঘটনাস্থলে এসে র?্যাব ও পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে।

তিনি আরও বলেন, র?্যাবের ফরেনসিক টিম ঘটনাস্থলে তাৎক্ষণিকভাবে উপস্থিত হয়ে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় মরদেহের পরিচয় শনাক্ত করেছে। নিহতের নাম মোছা. শিপন আখতার (৩০)। তার বাবার নাম মো. আবদুল কুদ্দুস, সে বগুড়া সোনাতলার বাসিন্দা।

প্রথমিকভাবে সন্দেহ করা হচ্ছে, এটি একটি হত্যাকা-। হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে র?্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে ।

পল্টনে অজ্ঞাত নারীর লাশ

এদিকে পল্টন থানাধীন বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম মার্কেটের ৯৮ নম্বর দোকানের সামনে ফুটপাত থেকে অজ্ঞাত এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার বয়স আনুমানিক ৫৫ বছর। পরনে ছিল নীল রঙা প্রিন্টের ম্যাক্সি।

পল্টন থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল জলিল জানান, ৯৯৯ নম্বরে খবর পেয়ে সকাল ১১টায় স্টেডিয়ামের পাশে ফুটপাত থেকে ওই নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এরপর আইনি প্রক্রিয়া শেষে ময়নাতদন্তের জন্য দুপুর সোয়া ২টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে লাশ পাঠানো হয়। এসআই বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যায়, বার্ধক্যজনিত কারণে ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে। তার শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে ওই নারীর মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে। আমরা এখন তার পরিচয় জানার চেষ্টা করছি।’

সোমবার, ১১ অক্টোবর ২০২১ , ২৬ আশ্বিন ১৪২৮ ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

রাজধানীতে নারী চিকিৎসকসহ তিন নারীর লাশ উদ্ধার

রাজধানীর খিলক্ষেত নিকুঞ্জে মাহফুজা আক্তার (২৫) নামে এক নারী চিকিৎসকের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গত শনিবার রাতে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য তার মৃতদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার আসাদুজ্জামান টেলিফোনে সংবাদকে বলেন, প্রাথমিক তথ্যে পুলিশ জানতে পেরেছে ওই নারী চিকিৎসক আত্মহত্যা করেছেন। তবে কি কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন সেটি খতিয়ে দেখছে পুলিশ। পাশাপাশি অন্য কোন বিষয় আছে কিনা সেটিও তদন্ত করা হচ্ছে।

চিকিৎসক মাহফুজা আক্তারের রুমমেট রুম্পা রানী বলেন, গতকাল ‘ডা. মাহফুজার প্রেমিক আমাকে ফোন দিয়ে বলে তার সঙ্গে আমার ঝগড়া হয়েছে। একটু গিয়ে দেখেন কী অবস্থায় আছে সে। আমি গেলাম, বার বার দরজা নক করলেও সে দরজা খোলে না। এরপর তার প্রেমিক আমাকে আবার ফোন দিয়ে বলে সে বলেছে গলায় ফাঁস দেবে।’ পরে আমি আবার গিয়ে তাকে ডাকাডাকি করি এবং ফোন করি। আমি বাইরে থেকে শুনতে পাচ্ছিলাম তার ফোন বেজে যাচ্ছে, কিন্তু সে ধরছে না। এরপর আমি হোস্টেল সুপারকে ডেকে আনি। তিনিও ডাকাডাকি করলেও দরজা না খোলায় দরজা ভেঙে দেখা যায় সে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলছে। পরে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে।

ডা. মাহফুজার বাবা নূর মোহাম্মদ খান জানান, তার মেয়ের হঠাৎ বুকে ব্যথা হয়। পাশের রুমমেটকে বলে আমার বুকে ব্যথা। পরে পানি খেয়ে শুয়ে পড়লে আর দরজা খোলে না। পরে তারা তাকে মৃত অবস্থায় পায়।

নিহতের ভাই মেহেদী হাসান মুন্না জানান, ২০১৯ সালে ময়মনসিংহ মেডিকে?ল থেকে এমবিবিএস পাস করেন মাহফুজা। তিনি টঙ্গীতে একটি গার্মেন্টসে মেডিকে?ল অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। পাশাপাশি তিনি এফসিপিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। নিকুঞ্জ হোস্টেলে থেকে তিনি কোচিং করতেন। তাদের বাড়ি গাজীপুর জেলায়। বর্তমানে স্থায়ীভাবে কদমতলীর উত্তর মুরাদপুরে পরিবার নিয়ে থাকেন তারা। তার বাবা অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা। এক ভাই দুই বোনের মধ্যে মাহফুজা ছিলেন দ্বিতীয়।

পুলিশ জানায়, শনিবার দুপুরের পর মাহফুজার পাশের রুমের মেয়েরা ফোনে অনেক জোরে কথা বলতে শোনেন। বিকেলে তার রুমের দরজা বন্ধ দেখে তারা ডাকাডাকি করেন। এক পর্যায়ে সাড়া-শব্দ না পেয়ে পুলিশে খবর দেয়া হয়। পুলিশ গিয়ে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে। গত বছরের জানুয়ারি মাসে মাহফুজা আক্তার ওই হোস্টেলে ওঠেন। তার রুমে আরও একজন থাকেন। তবে তিনি ঐসময় হোস্টেলে ছিলেন না বলে জানা গেছে।

খিলক্ষেত থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাবরিনা রহমান মৌরী বলেন, মাহফুজার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ কম ছিল। কিভাবে কেন ওই চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে পুলিশ তদন্ত করছে।

ভাটারায় হাত-পা বাঁধা নারীর লাশ

এদিকে রাজধানীর ভাটারা থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় শিপন আক্তার (৩২) নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। অজ্ঞাত হিসেবে উদ্ধারের পর ওই নারীর পরিচয় শনাক্ত করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। র‌্যাব সদরদপ্তরের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের সহকারী পরিচালক এএসপি আ ন ম ইমরান খান জানান, গতকাল দুপুর ১২টার দিকে রাজধানী ভাটারার কোকাকোলা ঢালী বাড়ি সড়কের পাশের একটি প্লট থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আশপাশের এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ার কারণে স্থানীয় লোকজন নিকটস্থ থানায় ও র?্যাবে খবর দেয়। পরে ঘটনাস্থলে এসে র?্যাব ও পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে।

তিনি আরও বলেন, র?্যাবের ফরেনসিক টিম ঘটনাস্থলে তাৎক্ষণিকভাবে উপস্থিত হয়ে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় মরদেহের পরিচয় শনাক্ত করেছে। নিহতের নাম মোছা. শিপন আখতার (৩০)। তার বাবার নাম মো. আবদুল কুদ্দুস, সে বগুড়া সোনাতলার বাসিন্দা।

প্রথমিকভাবে সন্দেহ করা হচ্ছে, এটি একটি হত্যাকা-। হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনতে র?্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে ।

পল্টনে অজ্ঞাত নারীর লাশ

এদিকে পল্টন থানাধীন বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম মার্কেটের ৯৮ নম্বর দোকানের সামনে ফুটপাত থেকে অজ্ঞাত এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার বয়স আনুমানিক ৫৫ বছর। পরনে ছিল নীল রঙা প্রিন্টের ম্যাক্সি।

পল্টন থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল জলিল জানান, ৯৯৯ নম্বরে খবর পেয়ে সকাল ১১টায় স্টেডিয়ামের পাশে ফুটপাত থেকে ওই নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এরপর আইনি প্রক্রিয়া শেষে ময়নাতদন্তের জন্য দুপুর সোয়া ২টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে লাশ পাঠানো হয়। এসআই বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যায়, বার্ধক্যজনিত কারণে ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে। তার শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে ওই নারীর মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে। আমরা এখন তার পরিচয় জানার চেষ্টা করছি।’