এক ঘণ্টার পৌর মেয়র কিশোরী হুমাইরা

টাঙ্গাইল পৌরসভায় প্রতীকী মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন হুমাইরা বিনতে হারুন (১৬) নামের এক কিশোরী। সে গতকাল দুপুরে মেয়র সিরাজুল হক আলমগীরের কাছ থেকে এক ঘণ্টার জন্য দায়িত্ব গ্রহণ করেন। টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়রের কক্ষে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের গার্লস টেকওভার কর্মসূচির আয়োজন করে ন্যাশনাল চিলড্রেনস টাস্ক ফোর্স (এনসিটিএফ) টাঙ্গাইল জেলা শাখা।

এক ঘণ্টার প্রতীকী মেয়রের দায়িত্ব পালনকালে হুমাইরা বিনতে হারুন বলেন, আজকের এই প্রতীকী দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে আমি একজন কিশোরী হয়েও টাঙ্গাইল পৌরসভার মতো একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে পেরে নিজেকে ধন্য ও গর্বিত মনে করছি। এতে আমি আরও আত্মবিশ্বাসী এবং নিজের স্বপ্ন পূরণে অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়েছি। বর্তমানে টাঙ্গাইল পৌরসভার অবকাঠামো, পরিবেশ ও বিনোদন এবং সৌন্দর্য বর্ধনে ব্যাপক কাজ চলমান রয়েছে। তবে টাঙ্গাইল পৌরসভাকে নারী ও শিশুদের জন্য নিরাপদ ও যৌন হয়রানী বা নির্যাতন এবং বৈষম্যহীন শ্রেষ্ঠ শহর হিসেবে গড়ে তুলতে কয়েকটি প্রস্তাব উপস্থাপন করেছি।

টাঙ্গাইল পৌরসভার অফিসিয়াল কভার ফাইলের মাধ্যমে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন বর্তমান পৌরসভার মেয়র সিরাজুল হক আলমগীর ও দায়িত্ব গ্রহণ করেন ন্যাশনাল চিলড্রেনস টাস্ক ফোর্স (এনসিটিএফ) টাঙ্গাইল জেলা শাখার ভাইস প্রেসিডেন্ট বিন্দুবাসিনী বালিকা বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হুমাইরা বিনতে হারুন। এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র সিরাজুল হক আলমগীর বলেন, নারীদের বা আমাদের কন্যাদের একটু বেশি সুযোগ দিলে তারা অনেক কিছু করতে পারে। তাদের সুযোগ দেয়া প্রয়োজন। আজ আমার খুবই ভালো লাগছে। এ রকম একজন কন্যা মেয়রের চেয়ারে বসে তার অবস্থান থেকে বক্তব্য দিচ্ছে। এ রকম বয়সে আমরা ঠিক কথাও বলতে পারতাম না। আজকে প্রতীকী মেয়রের দাবি ও সুপারিশগুলো আমরা আমাদের কর্মপরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করব এবং বাস্তবায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করব।

এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, এনসিটিএফ ডিস্ট্রিক্ট ভলান্টিয়ার নুসরাত হাসান, মেহেদী হাসান, পৌরসভার কাউন্সিল ও কর্মকর্তারা।

গার্লস টেকওভার আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের একটি বৈশ্বিক কার্যক্রম। কন্যা শিশুরা সমান সুযোগ এবং সমঅধিকার পেলে বদলে দিতে পারে তাদের নিজের জীবন। তাদের আশপাশের সমাজ এবং সমাজের মানুষের এমন বিশ্বাস থেকেই ‘গার্লস টেকওভার কর্মসূচির উদ্যোগ গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন করে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল। এই কর্মসূচির মাধ্যমে একজন কিশোরী, কন্যাশিশু অথবা যুব নারীকে নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা হয়, যাতে করে তার আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং নিজের স্বপ্ন পূরণে সে অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়।

মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১ , ২৭ আশ্বিন ১৪২৮ ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

এক ঘণ্টার পৌর মেয়র কিশোরী হুমাইরা

image

টাঙ্গাইল পৌরসভায় প্রতীকী মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন হুমাইরা বিনতে হারুন (১৬) নামের এক কিশোরী। সে গতকাল দুপুরে মেয়র সিরাজুল হক আলমগীরের কাছ থেকে এক ঘণ্টার জন্য দায়িত্ব গ্রহণ করেন। টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়রের কক্ষে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের গার্লস টেকওভার কর্মসূচির আয়োজন করে ন্যাশনাল চিলড্রেনস টাস্ক ফোর্স (এনসিটিএফ) টাঙ্গাইল জেলা শাখা।

এক ঘণ্টার প্রতীকী মেয়রের দায়িত্ব পালনকালে হুমাইরা বিনতে হারুন বলেন, আজকের এই প্রতীকী দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে আমি একজন কিশোরী হয়েও টাঙ্গাইল পৌরসভার মতো একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে পেরে নিজেকে ধন্য ও গর্বিত মনে করছি। এতে আমি আরও আত্মবিশ্বাসী এবং নিজের স্বপ্ন পূরণে অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়েছি। বর্তমানে টাঙ্গাইল পৌরসভার অবকাঠামো, পরিবেশ ও বিনোদন এবং সৌন্দর্য বর্ধনে ব্যাপক কাজ চলমান রয়েছে। তবে টাঙ্গাইল পৌরসভাকে নারী ও শিশুদের জন্য নিরাপদ ও যৌন হয়রানী বা নির্যাতন এবং বৈষম্যহীন শ্রেষ্ঠ শহর হিসেবে গড়ে তুলতে কয়েকটি প্রস্তাব উপস্থাপন করেছি।

টাঙ্গাইল পৌরসভার অফিসিয়াল কভার ফাইলের মাধ্যমে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন বর্তমান পৌরসভার মেয়র সিরাজুল হক আলমগীর ও দায়িত্ব গ্রহণ করেন ন্যাশনাল চিলড্রেনস টাস্ক ফোর্স (এনসিটিএফ) টাঙ্গাইল জেলা শাখার ভাইস প্রেসিডেন্ট বিন্দুবাসিনী বালিকা বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হুমাইরা বিনতে হারুন। এ বিষয়ে টাঙ্গাইল পৌরসভার মেয়র সিরাজুল হক আলমগীর বলেন, নারীদের বা আমাদের কন্যাদের একটু বেশি সুযোগ দিলে তারা অনেক কিছু করতে পারে। তাদের সুযোগ দেয়া প্রয়োজন। আজ আমার খুবই ভালো লাগছে। এ রকম একজন কন্যা মেয়রের চেয়ারে বসে তার অবস্থান থেকে বক্তব্য দিচ্ছে। এ রকম বয়সে আমরা ঠিক কথাও বলতে পারতাম না। আজকে প্রতীকী মেয়রের দাবি ও সুপারিশগুলো আমরা আমাদের কর্মপরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করব এবং বাস্তবায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করব।

এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, এনসিটিএফ ডিস্ট্রিক্ট ভলান্টিয়ার নুসরাত হাসান, মেহেদী হাসান, পৌরসভার কাউন্সিল ও কর্মকর্তারা।

গার্লস টেকওভার আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের একটি বৈশ্বিক কার্যক্রম। কন্যা শিশুরা সমান সুযোগ এবং সমঅধিকার পেলে বদলে দিতে পারে তাদের নিজের জীবন। তাদের আশপাশের সমাজ এবং সমাজের মানুষের এমন বিশ্বাস থেকেই ‘গার্লস টেকওভার কর্মসূচির উদ্যোগ গ্রহণ এবং বাস্তবায়ন করে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল। এই কর্মসূচির মাধ্যমে একজন কিশোরী, কন্যাশিশু অথবা যুব নারীকে নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা হয়, যাতে করে তার আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং নিজের স্বপ্ন পূরণে সে অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়।