স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা চলতি সপ্তাহেই

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম জানিয়েছেন, ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে চলতি সপ্তাহে। গতকাল দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সার্ভাইভারস কিট হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি আরও জানান, শিশু-কিশোরদের টিকাকেন্দ্র আলাদা হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘সক্ষমতা অনুযায়ী সারাদেশের জেলা ও সিটি করপোরেশন পর্যায়ে ২১টি কেন্দ্র নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে স্কুল শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকা দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। আশা করছি, চলতি সপ্তাহে আমরা টিকাদান শুরু করতে পারবো।’

প্রাথমিকভাবে আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে টিকা দেয়ার পরিকল্পনা করেছে অধিদপ্তর। মহাপরিচালকের আশা, ‘এক্ষেত্রে আমরা একসঙ্গে অনেক শিক্ষার্থীকে টিকা দিতে পারবো। তবে সম্মেলন কেন্দ্রটি চাইলেই তো হবে না, জায়গাটা পেতে হবে। তাছাড়া লোকবলের বিষয়ও আছে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আরও বলেন, ‘স্কুল শিক্ষার্থীদের তালিকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরবরাহ করবে। আমরা তাদের বিস্তারিত সুরক্ষা প্ল্যাটফর্মে দিয়ে দিব। আমরা যে কোন একটা টিকা দেয়ার আগে টেস্ট রান করি। ৫০-১০০ জন যেটুকু পারি সেটা দিয়ে করবো। তাদের দিয়ে আমরা পর্যবেক্ষণ করবো। এরপর বড় আকারে দিব।’

বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১ , ২৮ আশ্বিন ১৪২৮ ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকা চলতি সপ্তাহেই

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম জানিয়েছেন, ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে চলতি সপ্তাহে। গতকাল দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সার্ভাইভারস কিট হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি আরও জানান, শিশু-কিশোরদের টিকাকেন্দ্র আলাদা হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘সক্ষমতা অনুযায়ী সারাদেশের জেলা ও সিটি করপোরেশন পর্যায়ে ২১টি কেন্দ্র নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে স্কুল শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকা দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। আশা করছি, চলতি সপ্তাহে আমরা টিকাদান শুরু করতে পারবো।’

প্রাথমিকভাবে আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে টিকা দেয়ার পরিকল্পনা করেছে অধিদপ্তর। মহাপরিচালকের আশা, ‘এক্ষেত্রে আমরা একসঙ্গে অনেক শিক্ষার্থীকে টিকা দিতে পারবো। তবে সম্মেলন কেন্দ্রটি চাইলেই তো হবে না, জায়গাটা পেতে হবে। তাছাড়া লোকবলের বিষয়ও আছে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আরও বলেন, ‘স্কুল শিক্ষার্থীদের তালিকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরবরাহ করবে। আমরা তাদের বিস্তারিত সুরক্ষা প্ল্যাটফর্মে দিয়ে দিব। আমরা যে কোন একটা টিকা দেয়ার আগে টেস্ট রান করি। ৫০-১০০ জন যেটুকু পারি সেটা দিয়ে করবো। তাদের দিয়ে আমরা পর্যবেক্ষণ করবো। এরপর বড় আকারে দিব।’