টিসিবির পেঁয়াজ কালোবাজারে বিক্রির সময় জনতার ধাওয়া

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে টিসিবির পেঁয়াজ কালোবাজারে আড়তে বিক্রির সময়ে জনগণের ধাওয়ায় তা প- হয়েছে। ঘটনাস্থলে কালীগঞ্জের সহকারী কমিশনার ভূমি উপস্থিত হয়ে সাড়ে ১৪ বস্তা টিসিবির পেঁয়াজ ও তা বহনকারী পিকআপ জব্দ করে থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছেন। এ সময় পিকআপের চালক গাড়ি ফেলে পালিয়ে রক্ষা পেলেও পরে প্রশাসনের কাছে বেরিয়ে এসেছে থলের বিড়ালের তথ্য। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বেলা সাড়ে ১২টার দিকে কালীগঞ্জ শহরের নিমতলা বাসস্ট্যান্ডে।

জনতা কালীগঞ্জ শহরের পাইকারি তরকারির এক আড়তে চুরি করে পেঁয়াজ নামানোর সময় পেছন থেকে জনগণ ধাওয়া করে নিমতলা স্ট্যান্ডের ধান হাটায় নিয়ে আটক করে প্রশাসনকে খবর দেয়। পরে প্রশাসন নিশ্চিত হয়েছে পিকআপটিতে সরোয়ার হোসেন শিপন মৃধা নামের এক ডিলারের মেধা জেনারেল স্টোর থেকে সকালে ৩শ কেজি চিনি, ৩শ কেজি ডাল, ৪শ কেজি তেল, ৪০ কেজি ওজনের সাড়ে ১৪ বস্তা পেঁয়াজ বোঝাই দিয়ে বের হয়। এরমধ্যে ৬শ কেজি পেঁয়াজ শহরের এমইউ কলেজ রোডের ইমা বাণিজ্য ভান্ডার নামের অলোক বিশ্বাসের তরকারি আড়তে নামানোর সময়ে জনগণ ধাওয়া করে। তারা পেঁয়াজসহ পিকআপ আটক করে। এখন জনগণের প্রশ্ন পেঁয়াজ পাওয়া গেল কিন্তু চিনি, ডাল, তেল গেল কোথায়?। আবার টিসিবির পণ্য কালোবাজারে বিক্রি করলেও দায়িত্বপ্রাপ্ত ট্যাগ অফিসার কিছুই জানেন না।

জানাগেছে, মঙ্গলবার সকালে টিসিবির ডিলার সরোয়ার হোসেন শিপন মৃধা শহরের কাঁচামাল ও পাকামাল পেঁয়াজগুলো বিক্রির জন্য অলোক বিশ্বাসের ম্যানেজার ফিরোজ মিয়ার কাছে পাঠান। এরপর সেগুলো জনগণের তাড়ায় আটক হয়। পরে তারা প্রশাসনকে খবর দেন।

স্থানীয়রা বলছেন, সম্প্রতি সময়ে বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় বেশি লাভ করার জন্য ওই ডিলার কালোবাজারে বিক্রির চেষ্টা করেছেন। সরকার যে উদ্দেশ্যে টিসিবিতে মাল বিক্রি করছেন কতিপয় কিছু ডিলার নিজেদের পেট ভরাতে হতে দিচ্ছে না। তাদের দাবি- এরা দফায় দফায় এভাবে ধরা পড়েছে কিন্তু সবশেষে কিছুই হয়নি। এদের ডিলারশিপ বাতিল করা উচিৎ।

ইমা বাণিজ্য ভান্ডারের ম্যানেজার ফিরোজ হোসেন জানান, সকালে টিসিবির ডিলার সরোয়ার হোসেন শিপন ফোন করে পেঁয়াজগুলো কিনতে অনুরোধ করে পাঠিয়ে দেন। এ সময় লোকজন তাড়া করে এতটুকু জানি। পরে কি হয়েছে আমি জানি না।

টিসিবির ডিলার মৃধা জেনারেল স্টোরের মালিক সরোয়ার হোসেন শিপন জানান, সকালে তিনি পণ্য উত্তোলনের কথা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছিলেন। সকালের প্রথম দিকে বারবাজার এলাকায় চিনি, তেল ও ডাল বিক্রি করেছেন। পিয়াজগুলো সেখানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

মৃধা জেনারেল স্টোরের ট্যাগ অফিসার ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার তরুণ কুমার দাস বলেন, সরকারি নিয়ম আছে কোন ডিলার পণ্য উত্তোলন করলে অবশ্যই ট্যাগ অফিসারকে জানাতে হবে। কিন্তু তিনি পণ্য উত্তোলন করলেও আমাকে কিছু জানানো হয়নি।

কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ভূপালী সরকার জানান, মঙ্গলবার সকালে ঝিনাইদহ থেকে টিসিবির ডিলার মৃধা জেনারেল স্টোরের মালিক সরোয়ার হোসেন শিপন ৩০০ কেজি চিনি, ডাল ৩০০ কেজি, তেল ৪০০ লিটার ও ৬০০ কেজি পেঁয়াজ উত্তোলন করেন। কিন্তু পিকআপে চিনি, ডাল ও তেল পাওয়া যায়নি। ১৪ বস্তায় ৬০০ কেজি পেঁয়াজ পিকআপে ছিল। সেগুলো জব্দ করা হয়েছে। টিসিবির পণ্য কেউ এভাবে বিক্রি করতে পারেন না।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া জেরিন জানান, ডিলার সরোয়ার হোসেন শিপন মৃধা পণ্য উত্তোলনের কোন তথ্য আমাকে জানাননি। এটা অবশ্যই অনিয়ম। এভাবে বিক্রিরও কোন নিয়ম নেই। ফলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, এর আগেও এই টিসিবি ডিলার রাতের আঁধারে কালোবাজারে টিসিবি পণ্য বিক্রির অপরাধে জেল-জরিমানা করেছিলেন সে সময়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুবর্ণা রানী সরকার। সেটা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই আবার করলেন টিসিবির পণ্য নিয়ে অনিয়ম। আসলে তিনি প্রভাবশালী হওয়ায় কোন কিছুই তোয়াক্কা করেন না।

বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১ , ২৮ আশ্বিন ১৪২৮ ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

টিসিবির পেঁয়াজ কালোবাজারে বিক্রির সময় জনতার ধাওয়া

পেঁয়াজ পাওয়া গেলেও পিকআপে পাওয়া যায়নি চিনি, ডাল, তেল

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে টিসিবির পেঁয়াজ কালোবাজারে আড়তে বিক্রির সময়ে জনগণের ধাওয়ায় তা প- হয়েছে। ঘটনাস্থলে কালীগঞ্জের সহকারী কমিশনার ভূমি উপস্থিত হয়ে সাড়ে ১৪ বস্তা টিসিবির পেঁয়াজ ও তা বহনকারী পিকআপ জব্দ করে থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছেন। এ সময় পিকআপের চালক গাড়ি ফেলে পালিয়ে রক্ষা পেলেও পরে প্রশাসনের কাছে বেরিয়ে এসেছে থলের বিড়ালের তথ্য। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল বেলা সাড়ে ১২টার দিকে কালীগঞ্জ শহরের নিমতলা বাসস্ট্যান্ডে।

জনতা কালীগঞ্জ শহরের পাইকারি তরকারির এক আড়তে চুরি করে পেঁয়াজ নামানোর সময় পেছন থেকে জনগণ ধাওয়া করে নিমতলা স্ট্যান্ডের ধান হাটায় নিয়ে আটক করে প্রশাসনকে খবর দেয়। পরে প্রশাসন নিশ্চিত হয়েছে পিকআপটিতে সরোয়ার হোসেন শিপন মৃধা নামের এক ডিলারের মেধা জেনারেল স্টোর থেকে সকালে ৩শ কেজি চিনি, ৩শ কেজি ডাল, ৪শ কেজি তেল, ৪০ কেজি ওজনের সাড়ে ১৪ বস্তা পেঁয়াজ বোঝাই দিয়ে বের হয়। এরমধ্যে ৬শ কেজি পেঁয়াজ শহরের এমইউ কলেজ রোডের ইমা বাণিজ্য ভান্ডার নামের অলোক বিশ্বাসের তরকারি আড়তে নামানোর সময়ে জনগণ ধাওয়া করে। তারা পেঁয়াজসহ পিকআপ আটক করে। এখন জনগণের প্রশ্ন পেঁয়াজ পাওয়া গেল কিন্তু চিনি, ডাল, তেল গেল কোথায়?। আবার টিসিবির পণ্য কালোবাজারে বিক্রি করলেও দায়িত্বপ্রাপ্ত ট্যাগ অফিসার কিছুই জানেন না।

জানাগেছে, মঙ্গলবার সকালে টিসিবির ডিলার সরোয়ার হোসেন শিপন মৃধা শহরের কাঁচামাল ও পাকামাল পেঁয়াজগুলো বিক্রির জন্য অলোক বিশ্বাসের ম্যানেজার ফিরোজ মিয়ার কাছে পাঠান। এরপর সেগুলো জনগণের তাড়ায় আটক হয়। পরে তারা প্রশাসনকে খবর দেন।

স্থানীয়রা বলছেন, সম্প্রতি সময়ে বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় বেশি লাভ করার জন্য ওই ডিলার কালোবাজারে বিক্রির চেষ্টা করেছেন। সরকার যে উদ্দেশ্যে টিসিবিতে মাল বিক্রি করছেন কতিপয় কিছু ডিলার নিজেদের পেট ভরাতে হতে দিচ্ছে না। তাদের দাবি- এরা দফায় দফায় এভাবে ধরা পড়েছে কিন্তু সবশেষে কিছুই হয়নি। এদের ডিলারশিপ বাতিল করা উচিৎ।

ইমা বাণিজ্য ভান্ডারের ম্যানেজার ফিরোজ হোসেন জানান, সকালে টিসিবির ডিলার সরোয়ার হোসেন শিপন ফোন করে পেঁয়াজগুলো কিনতে অনুরোধ করে পাঠিয়ে দেন। এ সময় লোকজন তাড়া করে এতটুকু জানি। পরে কি হয়েছে আমি জানি না।

টিসিবির ডিলার মৃধা জেনারেল স্টোরের মালিক সরোয়ার হোসেন শিপন জানান, সকালে তিনি পণ্য উত্তোলনের কথা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছিলেন। সকালের প্রথম দিকে বারবাজার এলাকায় চিনি, তেল ও ডাল বিক্রি করেছেন। পিয়াজগুলো সেখানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।

মৃধা জেনারেল স্টোরের ট্যাগ অফিসার ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার তরুণ কুমার দাস বলেন, সরকারি নিয়ম আছে কোন ডিলার পণ্য উত্তোলন করলে অবশ্যই ট্যাগ অফিসারকে জানাতে হবে। কিন্তু তিনি পণ্য উত্তোলন করলেও আমাকে কিছু জানানো হয়নি।

কালীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ভূপালী সরকার জানান, মঙ্গলবার সকালে ঝিনাইদহ থেকে টিসিবির ডিলার মৃধা জেনারেল স্টোরের মালিক সরোয়ার হোসেন শিপন ৩০০ কেজি চিনি, ডাল ৩০০ কেজি, তেল ৪০০ লিটার ও ৬০০ কেজি পেঁয়াজ উত্তোলন করেন। কিন্তু পিকআপে চিনি, ডাল ও তেল পাওয়া যায়নি। ১৪ বস্তায় ৬০০ কেজি পেঁয়াজ পিকআপে ছিল। সেগুলো জব্দ করা হয়েছে। টিসিবির পণ্য কেউ এভাবে বিক্রি করতে পারেন না।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া জেরিন জানান, ডিলার সরোয়ার হোসেন শিপন মৃধা পণ্য উত্তোলনের কোন তথ্য আমাকে জানাননি। এটা অবশ্যই অনিয়ম। এভাবে বিক্রিরও কোন নিয়ম নেই। ফলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, এর আগেও এই টিসিবি ডিলার রাতের আঁধারে কালোবাজারে টিসিবি পণ্য বিক্রির অপরাধে জেল-জরিমানা করেছিলেন সে সময়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুবর্ণা রানী সরকার। সেটা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই আবার করলেন টিসিবির পণ্য নিয়ে অনিয়ম। আসলে তিনি প্রভাবশালী হওয়ায় কোন কিছুই তোয়াক্কা করেন না।