ব্যাংকে নাটকীয়ভাবে গ্রাহকের এক লাখ ৩১ হাজার টাকা চুরি

মুখে মাস্ক পরা একজন চোর নিজেই টাকা ফেলে দিয়ে একজন গ্রাহককে সেই টাকার বিষয়টি জানান। এ সময় ওই নারী গ্রাহক টাকা তুলতে মাথা নিচু করলে তৎক্ষণাৎ ওই লোকটি বাম হাত দিয়ে কাউন্টারের সামনে রাখা ওই গ্রাহকের ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা তার ব্যাগে তুলে ব্যাংক থেকে বের হয়ে যান। নিচে পড়ে থাকা টাকা তুলে উপরে ওঠে ওই গ্রাহক কাউন্টারের সামনে টাকা না পেয়ে এদিক-ওদিক এবং তার ব্যাগে টাকা খুঁজতে শুরু করেন। প্রায় এক-দেড় মিনিট ধরে তাকে খোঁজাখুঁজি করতে দেখা যায়। ব্যাংকের সিসি ক্যামেরা ফুটেজে অভিনব কৌশলে চুরির এ ঘটনাটি ধরা পড়েছে। গত সোমবার দুপুর ১২টার দিকে নওগাঁ শহরের হোটেলপট্টি সোনালী ব্যাংক শাখায় এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী ওই গ্রাহকের নাম নাছরিন আক্তার। তিনি নওগাঁ পৌরসভার চকদেব ডাক্তারপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি একজন গৃহিণী।

নাছরিন আক্তার বলেন, গত সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার চাচাকে সঙ্গে নিয়ে তিনি তার অ্যাকাউন্টে ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা স্থায়ী আমানত (এফডিআর) হিসেবে জমা দিতে যান। ব্যাংকে গিয়ে রশিদ পূরণ করার পর টাকাগুলো জমা দেয়ার জন্য জমা কাউন্টারের সামনে যান। এ সময় ব্যাংকে প্রচ- ভিড় ছিল। এক পর্যায়ে তিনি টাকাগুলো কাউন্টারের ভেতরে কর্মকর্তাকে দেয়ার জন্য রাখেন। এ সময় পাশে থাকা এক ব্যক্তি তাকে বলেন, তার পায়ের কাছে কিছু টাকা পড়ে আছে। তিনি ও তার চাচা সেই টাকা তুলতে মাথা নিচু করলে এই সুযোগে কাউন্টারের উপরে রাখা ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা নিয়ে ওই ব্যক্তি উধাও হয়ে যায়। পরে বিষয়টি ব্যাংকের ব্যবস্থাপককে জানান। ব্যাংকটির ওই শাখার ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক রবিউল ইসলাম বলেন, ‘ওই গ্রাহক টাকা চুরির বিষয়টি আমাদের জানানোর পর আমরা ব্যাংকের সিসি টিভি ফুটেজ চেক করেছি। ফুটেজে ওই গ্রাহকের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। ফুটেজে দেখা গেছে, অ্যাশ কালারের ফুলহাতা শার্ট পরা এবং হাতে একটি কাপড়ের ব্যাগ নিয়ে এক ব্যক্তি ওই গ্রাহকের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। লোকটির মুখে মাস্ক পরা ছিল। মাস্ক পরে থাকায় লোকটির মুখ খুব ভালোভাবে বোঝা যাচ্ছে না।’ তিনি আরও বলেন, ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, মাস্ক পরা লোকটি নিজেই টাকা ফেলে দিয়ে ওই গ্রাহককে সেই টাকার বিষয়টি জানান। এ সময় ওই নারী গ্রাহক টাকা তুলতে মাথা নিচু করলে তৎক্ষণাৎ ওই লোকটি বাম হাত দিয়ে কাউন্টারের সামনে রাখা টাকাগুলো নিয়ে তার ব্যাগে তুলে ব্যাংক থেকে বের হয়ে যান। নিচে পড়ে থাকা টাকা তুলে উপরে ওঠে ওই গ্রাহক কাউন্টারের সামনে টাকা না পেয়ে এদিক-ওদিক এবং তার ব্যাগে টাকা খুঁজতে শুরু করেন। প্রায় এক-দেড় মিনিট ধরে তাকে খোঁজাখুঁজি করতে দেখা যায়। সঙ্গে সঙ্গে চিৎকার করলে কিংবা ব্যাংকের কাউকে জানালে ব্যাংক থেকে বের হওয়ার আগেই চোরটিকে ধরা সম্ভব হতো।’ এ ব্যাপারে নওগাঁ সদর থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল সংবাদকে বলেন, এ ব্যাপারে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। আমরা সিসিটিভি ফুটেজ দেখে চোর শনাক্তের চেষ্টা করছি। এখন পর্যন্ত কেউ আটক হয়নি।

বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১ , ২৮ আশ্বিন ১৪২৮ ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ব্যাংকে নাটকীয়ভাবে গ্রাহকের এক লাখ ৩১ হাজার টাকা চুরি

মুখে মাস্ক পরা একজন চোর নিজেই টাকা ফেলে দিয়ে একজন গ্রাহককে সেই টাকার বিষয়টি জানান। এ সময় ওই নারী গ্রাহক টাকা তুলতে মাথা নিচু করলে তৎক্ষণাৎ ওই লোকটি বাম হাত দিয়ে কাউন্টারের সামনে রাখা ওই গ্রাহকের ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা তার ব্যাগে তুলে ব্যাংক থেকে বের হয়ে যান। নিচে পড়ে থাকা টাকা তুলে উপরে ওঠে ওই গ্রাহক কাউন্টারের সামনে টাকা না পেয়ে এদিক-ওদিক এবং তার ব্যাগে টাকা খুঁজতে শুরু করেন। প্রায় এক-দেড় মিনিট ধরে তাকে খোঁজাখুঁজি করতে দেখা যায়। ব্যাংকের সিসি ক্যামেরা ফুটেজে অভিনব কৌশলে চুরির এ ঘটনাটি ধরা পড়েছে। গত সোমবার দুপুর ১২টার দিকে নওগাঁ শহরের হোটেলপট্টি সোনালী ব্যাংক শাখায় এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী ওই গ্রাহকের নাম নাছরিন আক্তার। তিনি নওগাঁ পৌরসভার চকদেব ডাক্তারপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি একজন গৃহিণী।

নাছরিন আক্তার বলেন, গত সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার চাচাকে সঙ্গে নিয়ে তিনি তার অ্যাকাউন্টে ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা স্থায়ী আমানত (এফডিআর) হিসেবে জমা দিতে যান। ব্যাংকে গিয়ে রশিদ পূরণ করার পর টাকাগুলো জমা দেয়ার জন্য জমা কাউন্টারের সামনে যান। এ সময় ব্যাংকে প্রচ- ভিড় ছিল। এক পর্যায়ে তিনি টাকাগুলো কাউন্টারের ভেতরে কর্মকর্তাকে দেয়ার জন্য রাখেন। এ সময় পাশে থাকা এক ব্যক্তি তাকে বলেন, তার পায়ের কাছে কিছু টাকা পড়ে আছে। তিনি ও তার চাচা সেই টাকা তুলতে মাথা নিচু করলে এই সুযোগে কাউন্টারের উপরে রাখা ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা নিয়ে ওই ব্যক্তি উধাও হয়ে যায়। পরে বিষয়টি ব্যাংকের ব্যবস্থাপককে জানান। ব্যাংকটির ওই শাখার ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক রবিউল ইসলাম বলেন, ‘ওই গ্রাহক টাকা চুরির বিষয়টি আমাদের জানানোর পর আমরা ব্যাংকের সিসি টিভি ফুটেজ চেক করেছি। ফুটেজে ওই গ্রাহকের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। ফুটেজে দেখা গেছে, অ্যাশ কালারের ফুলহাতা শার্ট পরা এবং হাতে একটি কাপড়ের ব্যাগ নিয়ে এক ব্যক্তি ওই গ্রাহকের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। লোকটির মুখে মাস্ক পরা ছিল। মাস্ক পরে থাকায় লোকটির মুখ খুব ভালোভাবে বোঝা যাচ্ছে না।’ তিনি আরও বলেন, ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, মাস্ক পরা লোকটি নিজেই টাকা ফেলে দিয়ে ওই গ্রাহককে সেই টাকার বিষয়টি জানান। এ সময় ওই নারী গ্রাহক টাকা তুলতে মাথা নিচু করলে তৎক্ষণাৎ ওই লোকটি বাম হাত দিয়ে কাউন্টারের সামনে রাখা টাকাগুলো নিয়ে তার ব্যাগে তুলে ব্যাংক থেকে বের হয়ে যান। নিচে পড়ে থাকা টাকা তুলে উপরে ওঠে ওই গ্রাহক কাউন্টারের সামনে টাকা না পেয়ে এদিক-ওদিক এবং তার ব্যাগে টাকা খুঁজতে শুরু করেন। প্রায় এক-দেড় মিনিট ধরে তাকে খোঁজাখুঁজি করতে দেখা যায়। সঙ্গে সঙ্গে চিৎকার করলে কিংবা ব্যাংকের কাউকে জানালে ব্যাংক থেকে বের হওয়ার আগেই চোরটিকে ধরা সম্ভব হতো।’ এ ব্যাপারে নওগাঁ সদর থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল সংবাদকে বলেন, এ ব্যাপারে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। আমরা সিসিটিভি ফুটেজ দেখে চোর শনাক্তের চেষ্টা করছি। এখন পর্যন্ত কেউ আটক হয়নি।