সিনহা হত্যা মামলায় পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণ ২৫ অক্টোবর

সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ২৫, ২৬ ও ২৭ অক্টোবর দিন ধার্য করা হয়েছে। পঞ্চম দফার শেষ দিনে গতকাল চারজনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। তারা হলেন, সেনা কর্মকর্তা লে. কর্নেল ইমরান, এসআই সোহেল সিকদার, এএসআই নজরুল ও কনস্টেবল শুভ পাল। সকাল সাড়ে ১০টায় শেষ দিনে ৩২তম সাক্ষী সেনা কর্মকর্তা লে. কর্নেল ইমরানকে দিয়ে প্রতিদিনের মতো আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়। এর আগে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে মামলার ১৫ আসামিকে প্রিজনভ্যানে কড়া পুলিশ পাহারায় আদালতে আনা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম জানান, ৯ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য উপস্থিত রাখা হয়েছিল। কিন্তু আসামি পক্ষের আইনজীবীদের অনীহার কারণে চারজনের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও কালক্ষেপণের অংশ হিসেবে মামলার দুই নম্বর সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম সিফাতকে রিকল করার আবেদন করেছেন আসামি পক্ষের আইনজীবী।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১ , ২৮ আশ্বিন ১৪২৮ ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সিনহা হত্যা মামলায় পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণ ২৫ অক্টোবর

সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ২৫, ২৬ ও ২৭ অক্টোবর দিন ধার্য করা হয়েছে। পঞ্চম দফার শেষ দিনে গতকাল চারজনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। তারা হলেন, সেনা কর্মকর্তা লে. কর্নেল ইমরান, এসআই সোহেল সিকদার, এএসআই নজরুল ও কনস্টেবল শুভ পাল। সকাল সাড়ে ১০টায় শেষ দিনে ৩২তম সাক্ষী সেনা কর্মকর্তা লে. কর্নেল ইমরানকে দিয়ে প্রতিদিনের মতো আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়। এর আগে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে মামলার ১৫ আসামিকে প্রিজনভ্যানে কড়া পুলিশ পাহারায় আদালতে আনা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ফরিদুল আলম জানান, ৯ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য উপস্থিত রাখা হয়েছিল। কিন্তু আসামি পক্ষের আইনজীবীদের অনীহার কারণে চারজনের সাক্ষ্যগ্রহণ সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও কালক্ষেপণের অংশ হিসেবে মামলার দুই নম্বর সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম সিফাতকে রিকল করার আবেদন করেছেন আসামি পক্ষের আইনজীবী।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।