রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারের মামলায় কারাগারে রাকা

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউব ব্যবহার করে রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার সাংবাদিক কনক সরওয়ারের বোন নুসরাত শাহরিন রাকার বিরুদ্ধে পৃথক দুই মামলায় রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। গতকাল শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মামুনুর রশিদের আদালত রাকার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই বদরুল মিল্লাত আসামি রাকাকে আদালতে হাজির করে সংশ্লিষ্ট থানায় দায়ের করা মামলায় আটক রাখার আবেদন করেন।

আটক রাখার আবেদনে বলা হয়, আসামিকে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করেছেন যা যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। তার নাম-ঠিকানাও বাছাই করা হচ্ছে। আসামির প্রায় সকল আত্মীয়-স্বজন বর্তমানে প্রবাসে অবস্থান করছে বলে জানা গেছে। জামিনে মুক্ত হলে এ আসামি স্থায়ীভাবে বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

গত ৪ অক্টোবর রাতে রাজধানীর উত্তরায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা। তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি এবং মাদক আইনে আরেকটি মামলা করে র‌্যাব। এরপর গত ৬ অক্টোবর আসামির ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

জানা গেছে, রাকা রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারকারী ও ষড়যন্ত্রকারী চক্রের একজন সক্রিয় সদস্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে মিথ্যাচার, বিভ্রান্তিকর, মানহানিকর তথ্য ছড়ানোসহ বিভিন্ন উস্কানিমূলক তথ্য প্রচার করছিল। সে দেশের শান্তি শৃঙ্খলা বিনষ্টের অপচেষ্টায় ছিল। চক্রের বেশ কয়েকজন সদস্য বিদেশে অবস্থান করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন অপপ্রচারের সঙ্গেও জড়িত। দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করার উদ্দেশে তারা প্রচারণা চালিয়ে আসছিল। অভিযানে রাষ্ট্রবিরোধী কন্টেন্টসহ একটি মোবাইল, একটি পাসপোর্ট ও ভয়ঙ্কর মাদক আইস জব্দ করা হয়েছে।

বুধবার, ১৩ অক্টোবর ২০২১ , ২৮ আশ্বিন ১৪২৮ ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারের মামলায় কারাগারে রাকা

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউব ব্যবহার করে রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার সাংবাদিক কনক সরওয়ারের বোন নুসরাত শাহরিন রাকার বিরুদ্ধে পৃথক দুই মামলায় রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। গতকাল শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মামুনুর রশিদের আদালত রাকার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই বদরুল মিল্লাত আসামি রাকাকে আদালতে হাজির করে সংশ্লিষ্ট থানায় দায়ের করা মামলায় আটক রাখার আবেদন করেন।

আটক রাখার আবেদনে বলা হয়, আসামিকে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করেছেন যা যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। তার নাম-ঠিকানাও বাছাই করা হচ্ছে। আসামির প্রায় সকল আত্মীয়-স্বজন বর্তমানে প্রবাসে অবস্থান করছে বলে জানা গেছে। জামিনে মুক্ত হলে এ আসামি স্থায়ীভাবে বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

গত ৪ অক্টোবর রাতে রাজধানীর উত্তরায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা। তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি এবং মাদক আইনে আরেকটি মামলা করে র‌্যাব। এরপর গত ৬ অক্টোবর আসামির ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

জানা গেছে, রাকা রাষ্ট্রবিরোধী অপপ্রচারকারী ও ষড়যন্ত্রকারী চক্রের একজন সক্রিয় সদস্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিয়ে মিথ্যাচার, বিভ্রান্তিকর, মানহানিকর তথ্য ছড়ানোসহ বিভিন্ন উস্কানিমূলক তথ্য প্রচার করছিল। সে দেশের শান্তি শৃঙ্খলা বিনষ্টের অপচেষ্টায় ছিল। চক্রের বেশ কয়েকজন সদস্য বিদেশে অবস্থান করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন অপপ্রচারের সঙ্গেও জড়িত। দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করার উদ্দেশে তারা প্রচারণা চালিয়ে আসছিল। অভিযানে রাষ্ট্রবিরোধী কন্টেন্টসহ একটি মোবাইল, একটি পাসপোর্ট ও ভয়ঙ্কর মাদক আইস জব্দ করা হয়েছে।