বিজয়ার নাটক ‘বিসর্জন’

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে অরোরা এ্যাড মিডিয়া ব্যানারে নির্মিত হয়েছে বিশেষ নাটক “বিসর্জন”। রাজীব মণি দাসের রচনা ও চিত্রনাত্রে নাটকটি পরিচালনা করেছেন সঞ্জয় রাজ। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে দেখা যাবে- সঞ্জয় রাজ, সুমনা সোমা, এনিলা তানজুম, সঞ্জয় রাজ, রেবেকা রউফ, খলিলুর রহমান কাদেরী, আশরাফ কবির প্রমুখ। নাটকটি দুর্গাপূজার দশমীর দিন এস এ টিভিতে রাত ৯টায় সম্প্রচার হবে। নাটকটি প্রযোজনা করেছেন অরোরা এ্যাড মিডিয়া। নাটকের গল্পে গাঁয়ের বধূ বলতে যা বোঝাই সবই বিদ্যমান দিয়ার মাঝে। তার মনটা উদারতায় ভরা, যদিও তার শরীরের রং উজ্জ্বল শ্যাম বর্ণ, দেখতে যেন সাক্ষাৎ অন্নপূর্ণা। শ্বশুর-শাশুড়ি থেকে আরম্ভ করে বাড়ির দশ দিক একাই সামলে রাখে দিয়া। স্বামীর অবহেলার কথা মনে পড়লেই দিয়ার মনটা হুহু করে কেঁদে উঠে। চোখ দিয়ে অশ্রু গড়িয়ে আসে। দিয়া কষ্টটা শ্বশুর-শাশুড়ি বুঝতে পারে তাকে সান্ত¡না দেয়া ছাড়া তাদের আর কোনো কিছু করার নেই।

দিয়া বোন দিব্যা পূজা উপলক্ষে বেড়াতে আসে। দিব্যাকে দেখে দীপকের মনটা হুহু করে উঠে কারণে সে দিয়ার থেকে অনেক সুন্দরী। আজকাল দীপককে বেশ হাস্যোজ্জ্বল দেখা যায় এটা দিয়ার কাছে খুব ভালো লাগে। দীপক বিভিন্ন সময় শ্যালিকাকে নিয়ে ঘুরতে যায়। কথাচ্ছলে ঘুরাচ্ছলে কখন যে তাদের মধ্যে এক প্রকার হৃদ্যতার সম্পর্ক গড়ে উঠেছে সে বুঝতে পারে না। দিব্যা ও দীপক একজন আরেকজনকে ছাড়া বাঁচতে পারবে না। তাদের মাঝখানে কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে দিয়া। দিব্যার চলাফেরা দিয়ার শ্বশুর-শাশুড়ির কাছে সন্দেহ লাগে। দিয়া বলে পূজা শেষ হয়ে গেলেই তো দিব্যা চলে যাবে শুধু শুধু ওর মনে কষ্ট দিয়ে লাভ কি।

রাতের আঁধারে দীপক ও দিব্যা পরিকল্পনা করে কিভাবে তাদের দু’জনের মাঝখানের কাঁটাকে সরিয়ে ফেলা যায়। প্ল্যান হয় দশমী পূজার দিন সবাই ঠাকুর বিসর্জন নিয়ে ব্যস্ত থাকে সেই সময় তার দু’জন মিলে দিয়াকে পুকুরে ফেলে দিয়ে মেরে ফেলবে। মানুষ মনে করবে যে হয়তো মায়ের প্রতিমার নিচে পড়ে দিয়ার মৃত্যু হয়েছে।

সহজ-সরল দিয়া স্বামীর কথায় বিশ^াস করে এবং তার ফাঁদে পা দেয়। দিয়া দশমী পূজার দিন দীপকের সঙ্গে বের হয়, সে এমন রূপে স্বজিত হয়েছে যেন সাক্ষাৎ দুর্গা মা। অন্যের জন্য ফাঁদ পাতলে সে ফাঁদে নিজেকেই পড়তে হয়। সেটা প্রমাণ পাওয়া যায় যখন দিয়াকে ধাক্কা দিতে গিয়ে ঘটনাক্রমে কোনো কিছুর সঙ্গে লেগে জলের মধ্যে পড়ে যায় দিব্যা। দীপক কোনো কিছু বুঝে উঠার আগে দুর্গা মার সঙ্গে দিব্যা বির্সজন হয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার, ১৪ অক্টোবর ২০২১ , ২৯ আশ্বিন ১৪২৮ ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিজয়ার নাটক ‘বিসর্জন’

image

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে অরোরা এ্যাড মিডিয়া ব্যানারে নির্মিত হয়েছে বিশেষ নাটক “বিসর্জন”। রাজীব মণি দাসের রচনা ও চিত্রনাত্রে নাটকটি পরিচালনা করেছেন সঞ্জয় রাজ। নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে দেখা যাবে- সঞ্জয় রাজ, সুমনা সোমা, এনিলা তানজুম, সঞ্জয় রাজ, রেবেকা রউফ, খলিলুর রহমান কাদেরী, আশরাফ কবির প্রমুখ। নাটকটি দুর্গাপূজার দশমীর দিন এস এ টিভিতে রাত ৯টায় সম্প্রচার হবে। নাটকটি প্রযোজনা করেছেন অরোরা এ্যাড মিডিয়া। নাটকের গল্পে গাঁয়ের বধূ বলতে যা বোঝাই সবই বিদ্যমান দিয়ার মাঝে। তার মনটা উদারতায় ভরা, যদিও তার শরীরের রং উজ্জ্বল শ্যাম বর্ণ, দেখতে যেন সাক্ষাৎ অন্নপূর্ণা। শ্বশুর-শাশুড়ি থেকে আরম্ভ করে বাড়ির দশ দিক একাই সামলে রাখে দিয়া। স্বামীর অবহেলার কথা মনে পড়লেই দিয়ার মনটা হুহু করে কেঁদে উঠে। চোখ দিয়ে অশ্রু গড়িয়ে আসে। দিয়া কষ্টটা শ্বশুর-শাশুড়ি বুঝতে পারে তাকে সান্ত¡না দেয়া ছাড়া তাদের আর কোনো কিছু করার নেই।

দিয়া বোন দিব্যা পূজা উপলক্ষে বেড়াতে আসে। দিব্যাকে দেখে দীপকের মনটা হুহু করে উঠে কারণে সে দিয়ার থেকে অনেক সুন্দরী। আজকাল দীপককে বেশ হাস্যোজ্জ্বল দেখা যায় এটা দিয়ার কাছে খুব ভালো লাগে। দীপক বিভিন্ন সময় শ্যালিকাকে নিয়ে ঘুরতে যায়। কথাচ্ছলে ঘুরাচ্ছলে কখন যে তাদের মধ্যে এক প্রকার হৃদ্যতার সম্পর্ক গড়ে উঠেছে সে বুঝতে পারে না। দিব্যা ও দীপক একজন আরেকজনকে ছাড়া বাঁচতে পারবে না। তাদের মাঝখানে কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে দিয়া। দিব্যার চলাফেরা দিয়ার শ্বশুর-শাশুড়ির কাছে সন্দেহ লাগে। দিয়া বলে পূজা শেষ হয়ে গেলেই তো দিব্যা চলে যাবে শুধু শুধু ওর মনে কষ্ট দিয়ে লাভ কি।

রাতের আঁধারে দীপক ও দিব্যা পরিকল্পনা করে কিভাবে তাদের দু’জনের মাঝখানের কাঁটাকে সরিয়ে ফেলা যায়। প্ল্যান হয় দশমী পূজার দিন সবাই ঠাকুর বিসর্জন নিয়ে ব্যস্ত থাকে সেই সময় তার দু’জন মিলে দিয়াকে পুকুরে ফেলে দিয়ে মেরে ফেলবে। মানুষ মনে করবে যে হয়তো মায়ের প্রতিমার নিচে পড়ে দিয়ার মৃত্যু হয়েছে।

সহজ-সরল দিয়া স্বামীর কথায় বিশ^াস করে এবং তার ফাঁদে পা দেয়। দিয়া দশমী পূজার দিন দীপকের সঙ্গে বের হয়, সে এমন রূপে স্বজিত হয়েছে যেন সাক্ষাৎ দুর্গা মা। অন্যের জন্য ফাঁদ পাতলে সে ফাঁদে নিজেকেই পড়তে হয়। সেটা প্রমাণ পাওয়া যায় যখন দিয়াকে ধাক্কা দিতে গিয়ে ঘটনাক্রমে কোনো কিছুর সঙ্গে লেগে জলের মধ্যে পড়ে যায় দিব্যা। দীপক কোনো কিছু বুঝে উঠার আগে দুর্গা মার সঙ্গে দিব্যা বির্সজন হয়ে যায়।