বিতর্কিতরা যেন পদে না আসে প্রত্যাশা কর্মী ও শিক্ষার্থীদের

দীর্ঘদিন পর অনুষ্ঠিত হবে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল শাখার সম্মেলন। এর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮ হলের ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্ব নির্ধারণ হবে। তবে নেতৃত্বে কোন ধরনের বিতর্কিতদের নেতা হিসেবে দেখতে চায় না ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মীরা। অন্যদিকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে যোগ্যরাই নেতা হবে যারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর নির্যাতন বা হয়রানি করবে না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্রলীগের পদ-প্রত্যাশী মিলন হোসেন নিরব বলেন, ত্যাগী কর্মী যারা দলের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, দেশরতœ শেখ হাসিনার হাতকে যারা শক্তিশালী করতে পারবে তাদেরকেই যেন নেতৃত্বে নিয়ে আসা হয়। সুদক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোকে মডেল ইউনিটে পরিণত করতে পারে তাদেরই যেন অগ্রাধিকার দেয়া হয়। যেহেতু এটি ছাত্র রাজনীতি তাই সাধারণ ছাত্রদের মধ্যে যাদের গ্রহণযোগ্যতা আছে এরকম নিয়মিত শিক্ষার্থীই নেতৃত্বে আসবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

অপরদিকে ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশী থাকা অবস্থায় বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে হলে সাধারণ ছাত্রদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ ওঠেছিল। যার কারণে সাধারণ শিক্ষার্থীরা এ ধরনের কাউকে নেতৃত্বে দেখতে চায় না। বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী নোমান খন্দকার সংবাদকে বলেন, আমি মনে করি যারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর নির্যাতন করে তাদের ছাত্র রাজনীতি করার অধিকার নেই। কারণ আমাদের কল্যাণেই তো ছাত্ররাজনীতি। ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের কাছে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে তারা যেন যোগ্যদের পদ দেন।

স্যার এ এফ রহমান হলে সভাপতি-সম্পাদক এই দুই পদে প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহমুদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান রনি, সাংগঠনিক সম্পাদক সালেহ উদ্দিন আহমেদ সাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক রাহিম সরকার, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুনিম শাহরিয়ার মুন।

শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কামাল উদ্দিন রানা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুবেল হোসেন, হল সংসদের সাবেক ভিপি সাইফুল্লাহ আব্বাসী অনন্ত, সাবেক সাহিত্য বিষয়ক উপ-সম্পাদক আহমেদ মুনীর তাঈফ।

সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে শীর্ষ দুই পদে যারা যেতে চান তারা হলেন, হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মিলন হোসেন নিরব, সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর শিকদার, ছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক হাকিমুল ইসলাম তারেক, গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মিশাত সরকার।

জগন্নাথ হলের পদপ্রার্থীদের মধ্যে আছেন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অতনু বর্মন, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজল দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক জয়জিৎ দত্ত, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সত্যজিৎ দেবনাথ।

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ হলে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে আছেন শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম, উপ-ত্রাণ ও দুর্যোগ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক রাহাতুল আশেকিন রিজবী, শরীফ আহমেদ মুনিম।

ফজলুল হক মুসলিম হল ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে আছেন শাখা ছাত্রলীগের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সারোয়ার হোসাইন, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক আনোয়ার হোসেন নাঈম, দপ্তর সম্পাদক এনায়েত হোসেন, আবু হাসিব মুক্ত।

অমর একুশে হল ছাত্রলীগের প্রার্থীরা হচ্ছেন সহ-সভাপতি আহসান হাবীব, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন দিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিফন, সাংগঠনিক সম্পাদক আলি রিয়ান, শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক ইমদাদুল হাসান সোহাগ, ত্রাণ ও দুর্যোগ সম্পাদক রাতুল হাসান নাঈম, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈনুল হোসাইন তানভীর।

রবিবার, ২১ নভেম্বর ২০২১ , ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

ঢাবি হল শাখা ছাত্রলীগের হল সম্মেলন

বিতর্কিতরা যেন পদে না আসে প্রত্যাশা কর্মী ও শিক্ষার্থীদের

দীর্ঘদিন পর অনুষ্ঠিত হবে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল শাখার সম্মেলন। এর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮ হলের ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্ব নির্ধারণ হবে। তবে নেতৃত্বে কোন ধরনের বিতর্কিতদের নেতা হিসেবে দেখতে চায় না ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মীরা। অন্যদিকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে যোগ্যরাই নেতা হবে যারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর নির্যাতন বা হয়রানি করবে না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হল ছাত্রলীগের পদ-প্রত্যাশী মিলন হোসেন নিরব বলেন, ত্যাগী কর্মী যারা দলের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, দেশরতœ শেখ হাসিনার হাতকে যারা শক্তিশালী করতে পারবে তাদেরকেই যেন নেতৃত্বে নিয়ে আসা হয়। সুদক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোকে মডেল ইউনিটে পরিণত করতে পারে তাদেরই যেন অগ্রাধিকার দেয়া হয়। যেহেতু এটি ছাত্র রাজনীতি তাই সাধারণ ছাত্রদের মধ্যে যাদের গ্রহণযোগ্যতা আছে এরকম নিয়মিত শিক্ষার্থীই নেতৃত্বে আসবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

অপরদিকে ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশী থাকা অবস্থায় বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে হলে সাধারণ ছাত্রদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগ ওঠেছিল। যার কারণে সাধারণ শিক্ষার্থীরা এ ধরনের কাউকে নেতৃত্বে দেখতে চায় না। বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী নোমান খন্দকার সংবাদকে বলেন, আমি মনে করি যারা সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর নির্যাতন করে তাদের ছাত্র রাজনীতি করার অধিকার নেই। কারণ আমাদের কল্যাণেই তো ছাত্ররাজনীতি। ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের কাছে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে তারা যেন যোগ্যদের পদ দেন।

স্যার এ এফ রহমান হলে সভাপতি-সম্পাদক এই দুই পদে প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহমুদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান রনি, সাংগঠনিক সম্পাদক সালেহ উদ্দিন আহমেদ সাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক রাহিম সরকার, সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুনিম শাহরিয়ার মুন।

শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কামাল উদ্দিন রানা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুবেল হোসেন, হল সংসদের সাবেক ভিপি সাইফুল্লাহ আব্বাসী অনন্ত, সাবেক সাহিত্য বিষয়ক উপ-সম্পাদক আহমেদ মুনীর তাঈফ।

সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে শীর্ষ দুই পদে যারা যেতে চান তারা হলেন, হল শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মিলন হোসেন নিরব, সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর শিকদার, ছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক হাকিমুল ইসলাম তারেক, গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মিশাত সরকার।

জগন্নাথ হলের পদপ্রার্থীদের মধ্যে আছেন শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অতনু বর্মন, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজল দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক জয়জিৎ দত্ত, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সত্যজিৎ দেবনাথ।

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ হলে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে আছেন শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম, উপ-ত্রাণ ও দুর্যোগ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক রাহাতুল আশেকিন রিজবী, শরীফ আহমেদ মুনিম।

ফজলুল হক মুসলিম হল ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে আছেন শাখা ছাত্রলীগের পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সারোয়ার হোসাইন, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক আনোয়ার হোসেন নাঈম, দপ্তর সম্পাদক এনায়েত হোসেন, আবু হাসিব মুক্ত।

অমর একুশে হল ছাত্রলীগের প্রার্থীরা হচ্ছেন সহ-সভাপতি আহসান হাবীব, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন দিপু, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিফন, সাংগঠনিক সম্পাদক আলি রিয়ান, শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক ইমদাদুল হাসান সোহাগ, ত্রাণ ও দুর্যোগ সম্পাদক রাতুল হাসান নাঈম, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈনুল হোসাইন তানভীর।