সব পুরভোট একসঙ্গে করতে হবে রাজ্যপালের পরামর্শ, কলকাতা-হাওড়ার ভোট অনিশ্চিত

হাওড়া পুর-বিল আটকে দেয়ার পর এবার রাজ্যের পুরভোট নিয়ে সুর চড়ালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। মঙ্গলবার রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন রাজ্য নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাস। সেখানে রাজ্যের সব পুরসভার ভোট একসঙ্গে করানোর কথা বলেন তিনি। পাশাপাশি, কমিশনকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পরামর্শ দেন তিনি। কমিশনকে চিঠি দিয়ে সতর্কও করলেন রাজ্য।

নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে প্রায় এক ঘণ্টার বৈঠক হয় রাজ্যপালের। রাজ্যপাল তাকে নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতার কথা স্মরণ করিয়ে রাজ্যপাল ধনখড় নির্বাচন কনমিশনারকে জানিয়েছেন, রাজ্য নির্বাচন কমিশন রাজ্য সরকারের কোন সংস্থা নয়। এটি একটি স্বাধীন সংস্থা। তাই তাকে স্বাধীনভাবে, পক্ষপাত মুক্ত হয়ে কাজ করতে হবে। জাতীয় নির্বাচন কমিশনের মতোই রাজ্য নির্বাচন কমিশনেও স্বাধীন ক্ষমতা রয়েছে। এ নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে একটি চিঠিও দিয়েছেন রাজ্যপাল।

কমিশনকে দেয়া চিঠিতে রাজ্যপাল জানিয়েছেন, নির্বাচন কমিশনার তার সাংবিধানিক ক্ষমতার বাইরে গিয়ে কোন অবস্থাতেই যেন রাজ্য সরকারের হয়ে কাজ না করেন। অর্থাৎ তাকে নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন করাতে হবে। রাজ্য সরকারের শাখা সংগঠন হিসেবে নয় বিরোধীরা বরাবরই বলে আসছে রাজ্যের সব পুরসভার ভোট একসঙ্গে হোক। সূত্রের খবর, রাজ্যপালও একই কথা বলেছেন। কমিশনের যুক্তি ছিল সব পুরসভার ভোট একসঙ্গে হয়ে যতগুলো ইভিএমের প্রয়োজন হবে তা কমিশনের হাতে নেই। পাশাপাশি এতে টিকাকরণেও বাধার সৃষ্টি হবে।

এদিকে, কলকাতা হাইকোর্টে হওয়া এক জনস্বার্থ মামলায় রাজ্য সরকার আদালতে জানিয়েছে ১৯ ডিসেম্বর হাওড়া ও কলকাতা পুরসভায় ভোট করাতে চায় রাজ্য সরকার।

কিন্তু সমস্যা দেখা দিয়েছে হাওড়া পুরসভাকে নিয়ে। হাওড়া পুরসভার কয়েকটি ওয়ার্ডকে বালি পুরসভায় জুড়ে দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে একটি বিলও রাজ্য বিধানসভায় পাস করিয়েছে রাজ্য সরকার। কিন্তু সেই বিলে এখনও সাক্ষর করেননি রাজ্যপাল। ফলে হাওড়া পুরসভার ভোট কবে হবে তা নির্ভর করছে রাজ্যপালের উপরেই। রাজ্যপাল ওই বিলটির ব্যাপারের বিস্তারিত ব্যাখ্যা চেয়েছে। এমতাবস্থায় হাওড়ায় পুরভোট না করা গেলে বসে না থেকে শুধু কলকাতা পুরসভার ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করার চিন্তাভাবনা করছে সরকার। কিন্তু রাজ্যপালের পরামর্শ সবগুলো পুরভোট একসঙ্গে করার, যদি তাই হয় তা হলে কলকাতা পুরভোটও অনিশ্চিত হয়ে যেতে পারে বলে অভিজ্ঞমহল মনে করছেন।

বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১ , ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

সব পুরভোট একসঙ্গে করতে হবে রাজ্যপালের পরামর্শ, কলকাতা-হাওড়ার ভোট অনিশ্চিত

হাওড়া পুর-বিল আটকে দেয়ার পর এবার রাজ্যের পুরভোট নিয়ে সুর চড়ালেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। মঙ্গলবার রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন রাজ্য নির্বাচন কমিশনার সৌরভ দাস। সেখানে রাজ্যের সব পুরসভার ভোট একসঙ্গে করানোর কথা বলেন তিনি। পাশাপাশি, কমিশনকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পরামর্শ দেন তিনি। কমিশনকে চিঠি দিয়ে সতর্কও করলেন রাজ্য।

নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে প্রায় এক ঘণ্টার বৈঠক হয় রাজ্যপালের। রাজ্যপাল তাকে নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতার কথা স্মরণ করিয়ে রাজ্যপাল ধনখড় নির্বাচন কনমিশনারকে জানিয়েছেন, রাজ্য নির্বাচন কমিশন রাজ্য সরকারের কোন সংস্থা নয়। এটি একটি স্বাধীন সংস্থা। তাই তাকে স্বাধীনভাবে, পক্ষপাত মুক্ত হয়ে কাজ করতে হবে। জাতীয় নির্বাচন কমিশনের মতোই রাজ্য নির্বাচন কমিশনেও স্বাধীন ক্ষমতা রয়েছে। এ নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে একটি চিঠিও দিয়েছেন রাজ্যপাল।

কমিশনকে দেয়া চিঠিতে রাজ্যপাল জানিয়েছেন, নির্বাচন কমিশনার তার সাংবিধানিক ক্ষমতার বাইরে গিয়ে কোন অবস্থাতেই যেন রাজ্য সরকারের হয়ে কাজ না করেন। অর্থাৎ তাকে নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন করাতে হবে। রাজ্য সরকারের শাখা সংগঠন হিসেবে নয় বিরোধীরা বরাবরই বলে আসছে রাজ্যের সব পুরসভার ভোট একসঙ্গে হোক। সূত্রের খবর, রাজ্যপালও একই কথা বলেছেন। কমিশনের যুক্তি ছিল সব পুরসভার ভোট একসঙ্গে হয়ে যতগুলো ইভিএমের প্রয়োজন হবে তা কমিশনের হাতে নেই। পাশাপাশি এতে টিকাকরণেও বাধার সৃষ্টি হবে।

এদিকে, কলকাতা হাইকোর্টে হওয়া এক জনস্বার্থ মামলায় রাজ্য সরকার আদালতে জানিয়েছে ১৯ ডিসেম্বর হাওড়া ও কলকাতা পুরসভায় ভোট করাতে চায় রাজ্য সরকার।

কিন্তু সমস্যা দেখা দিয়েছে হাওড়া পুরসভাকে নিয়ে। হাওড়া পুরসভার কয়েকটি ওয়ার্ডকে বালি পুরসভায় জুড়ে দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে একটি বিলও রাজ্য বিধানসভায় পাস করিয়েছে রাজ্য সরকার। কিন্তু সেই বিলে এখনও সাক্ষর করেননি রাজ্যপাল। ফলে হাওড়া পুরসভার ভোট কবে হবে তা নির্ভর করছে রাজ্যপালের উপরেই। রাজ্যপাল ওই বিলটির ব্যাপারের বিস্তারিত ব্যাখ্যা চেয়েছে। এমতাবস্থায় হাওড়ায় পুরভোট না করা গেলে বসে না থেকে শুধু কলকাতা পুরসভার ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা করার চিন্তাভাবনা করছে সরকার। কিন্তু রাজ্যপালের পরামর্শ সবগুলো পুরভোট একসঙ্গে করার, যদি তাই হয় তা হলে কলকাতা পুরভোটও অনিশ্চিত হয়ে যেতে পারে বলে অভিজ্ঞমহল মনে করছেন।