রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি প্রসঙ্গে

ঢাকা ও এর চার পাশে বায়ুদুষণ রোধে বেশ কিছু সুপারিশ হাইকোর্ট বেঞ্চে তুলে ধরেন পরিবেশ বন ও জলবায়ূ পরিবর্তন মন্ত্রণালয় কর্তৃক গঠিত উচ্চপর্যায়ের কমিটি। কমিটির সুপারিশগুলো হলো উন্নয়ন কার্যক্রমে রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সব সংস্থার বাৎসরিক কর্মপরিকল্পনা থাকতে হবে।সিটি কর্পোরেশন উক্ত পরিকল্পনা অনুযায়ী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। বিভিন্ন সংস্থা দপ্তর সম্বনয়ের মাধ্যমে কাজ করবে। নির্দিষ্ট সময় কাজ শেষ করতে না পারলে সিটি করপোরেশন জরিমানা আরোপ করতে পারবে। এক্ষেত্রে ঠিকাদারকে কালো তালিকাভুক্ত করতে হবে।

হাইকোর্ট বলেছেন ঢাকার সড়কের একই স্থানে বিভিন্ন সেবা সংস্থা বার বার খোঁড়াখুঁড়ি করে থাকে। এটা কেন? এতে জনগণের ভোগান্তি বাড়ে।এর সঙ্গে কি কোন অর্থনৈতিক স্বার্থ আছে। হাইকোর্টের এ মন্তব্য শতভাগ সঠিক এর সঙ্গে আমরা একমত। ধরে নিলাম পাঁচটি সংস্থা যদি পাঁচটি কাজের জন্য আলাদা আলাদাভাবে পাঁচবার খোঁড়াখুঁড়ি করে তা হলে পাঁচবার খোঁড়াখুঁড়ির জন্য পাঁচবার বিল করে খোঁড়াখুঁড়ির টাকা পাবে। এতে কাজের সঙ্গে জড়িত সকলেই পাঁচবার লাভবান হবে আর্থিকভাবে। রাষ্ট্র ও জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আর যদি পাঁচটি সংস্থা সমন্বয় করে একই সঙ্গে একবার খোঁড়াখুঁড়ি করে তা হলে একবার বিল পাবে, এতে তাদের আয় কমে পাঁচভাগের একভাগ হবে। আমরা সরকারকে অনুরোধ জানাবো যত দ্রুত সম্ভব বিষয়টি বাস্তবায়ন করার জন্য।

আব্বাস উদ্দিন আহমদ

বুধবার, ২২ জানুয়ারী ২০২০ , ৮ মাঘ ১৪২৬, ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি প্রসঙ্গে

ঢাকা ও এর চার পাশে বায়ুদুষণ রোধে বেশ কিছু সুপারিশ হাইকোর্ট বেঞ্চে তুলে ধরেন পরিবেশ বন ও জলবায়ূ পরিবর্তন মন্ত্রণালয় কর্তৃক গঠিত উচ্চপর্যায়ের কমিটি। কমিটির সুপারিশগুলো হলো উন্নয়ন কার্যক্রমে রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সব সংস্থার বাৎসরিক কর্মপরিকল্পনা থাকতে হবে।সিটি কর্পোরেশন উক্ত পরিকল্পনা অনুযায়ী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। বিভিন্ন সংস্থা দপ্তর সম্বনয়ের মাধ্যমে কাজ করবে। নির্দিষ্ট সময় কাজ শেষ করতে না পারলে সিটি করপোরেশন জরিমানা আরোপ করতে পারবে। এক্ষেত্রে ঠিকাদারকে কালো তালিকাভুক্ত করতে হবে।

হাইকোর্ট বলেছেন ঢাকার সড়কের একই স্থানে বিভিন্ন সেবা সংস্থা বার বার খোঁড়াখুঁড়ি করে থাকে। এটা কেন? এতে জনগণের ভোগান্তি বাড়ে।এর সঙ্গে কি কোন অর্থনৈতিক স্বার্থ আছে। হাইকোর্টের এ মন্তব্য শতভাগ সঠিক এর সঙ্গে আমরা একমত। ধরে নিলাম পাঁচটি সংস্থা যদি পাঁচটি কাজের জন্য আলাদা আলাদাভাবে পাঁচবার খোঁড়াখুঁড়ি করে তা হলে পাঁচবার খোঁড়াখুঁড়ির জন্য পাঁচবার বিল করে খোঁড়াখুঁড়ির টাকা পাবে। এতে কাজের সঙ্গে জড়িত সকলেই পাঁচবার লাভবান হবে আর্থিকভাবে। রাষ্ট্র ও জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আর যদি পাঁচটি সংস্থা সমন্বয় করে একই সঙ্গে একবার খোঁড়াখুঁড়ি করে তা হলে একবার বিল পাবে, এতে তাদের আয় কমে পাঁচভাগের একভাগ হবে। আমরা সরকারকে অনুরোধ জানাবো যত দ্রুত সম্ভব বিষয়টি বাস্তবায়ন করার জন্য।

আব্বাস উদ্দিন আহমদ