টানা পাঁচ কার্যদিবস শেয়ারবাজারে উত্থান

গতকাল উত্থানের মাধ্যমে শেয়ারবাজারে টানা পাঁচ কার্যদিবস উর্ধ্বগতির ধারা অব্যাহত রয়েছে। এদিন শেয়ারবাজারের প্রধান প্রধান সূচক বেড়েছে। একইসঙ্গে বেড়েছে টাকার পরিমাণে লেনদেন। তবে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

গতকাল প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৪.২৪ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৩৫৮.২৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১.৮১ পয়েন্ট, ডিএসই-৩০ সূচক ১২.৩১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১২৩৩.৪৬ পয়েন্ট এবং ১৯৩৬.৫৭ পয়েন্টে। অপর সূচক সিডিএসইসি ১.৭০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১১১২.১১ পয়েন্টে। এদিন ডিএসইতে ১ হাজার ৩৮২ কোটি ৪৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবস থেকে ৩৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা বেশি। আগের কার্যদিবস লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৩৪৬ কোটি ৯৮ লাখ টাকার শেয়ার।

এছাড়া ডিএসইতে গতকাল ৩৬৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৩০টির বা ৩৫.৮১ শতাংশ শেয়ার ও ইউনিটের দর বেড়েছে। দর কমেছে ১৬৮টির বা ৪৬.২৯ শতাংশের এবং ৬৫টি বা ১৮.৯০ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৬৭.৮৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৪৭৫ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৮৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১০৬টির, কমেছে ১১৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৬২টির দর। এছাড়া গতকাল সিএসইতে ৪২ কোটি ৭০ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

এদিকে ঢাকা স্টক এক্সেচেঞ্জের (ডিএসই) ব্লক মার্কেটে ৩২টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব কোম্পানির ১১৩ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর ৩ কোটি ২৯ লাখ ৮৪ হাজার ৬৪৯টি শেয়ার ৮০ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ১১৩ কোটি ৫৭ লাখ ৮৬ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ৫০ কোটি ৫২ লাখ ৩৯ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকোর। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৬ কোটি ৯০ লাখ ৫০ হাজার টাকার আইএফআইসির এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৪ কোটি ৭৬ লাখ ৪১ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে বিডি ফাইন্যান্সের।

এছাড়া আমান কটনের ২১ লাখ ১২ হাজার টাকার, অ্যাডভেন্ট ফার্মার ১০ লাখ ৬০ হাজার টাকার, আনোয়ার গ্যালভানাইজিংয়ের ৩৬ লাখ ৬০ হাজার টাকার, ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকোর ২ কোটি ২৩ লাখ ৯০ হাজার টাকার, বিকন ফার্মার ৫ লাখ ৬১ হাজার টাকার, ব্র্যাক ব্যাংকের ৪৫ লাখ টাকার, বেক্সিমকো ফার্মার ১৩ কোটি ৮৬ লাখ ৩৮ হাজার টাকার, কনফিডেন্স সিমেন্টের ৮৫ লাখ ৪০ হাজার টাকার, কপারটেকের ১০ লাখ ৬৫ হাজার টাকার, ডিবিএইচের ৯৫ লাখ ৬৮ হাজার টাকার, ইস্টার্ন কেবলসের ২ কোটি ২০ লাখ ৫০ হাজার টাকার, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের ৮২ লাখ ৮০ হাজার টাকার, গ্রীনডেল্টা মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৭৫ লাখ ৩ হাজার টাকার, ম্যাকসন্স স্পিনিংয়ের ২৫ লাখ ৫০ হাজার টাকার, মালেক স্পিনিংয়ের ৭ লাখ ৯৫ হাজার টাকার, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সের ৫০ লাখ ৪০ হাজার টাকার, ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্সের ১৩ লাখ ২১ হাজার টাকার, ফার্মা এইডসের ১৩ লাখ ১০ হাজার টাকার, প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৯০ লাখ ৯০ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১ কোটি ৩৮ লাখ টাকার, রবির ২ কোটি ৯ লাখ ২৮ হাজার টাকার, সায়হাম কটনের ৫ লাখ ১৭ হাজার টাকার, সামিট এলায়েন্স পোর্টের ৬ লাখ ৬৪ হাজার টাকার, এসইএমএল লেকচার ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ডের ১২ লাখ ৮১ হাজার টাকার, এসকে ট্রিমসের ৪২ লাখ ৬৪ হাজার টাকার, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকার, স্কয়ার ফার্মার ১ কোটি ৯৮ লাখ ২৩ হাজার টাকার, এসএস স্টিলের ৭ লাখ ২৮ হাজার টাকার এবং ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ১২ লাখ ৮০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

বুধবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২০ , ১৫ পৌষ ১৪২৭, ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪২

টানা পাঁচ কার্যদিবস শেয়ারবাজারে উত্থান

image

গতকাল উত্থানের মাধ্যমে শেয়ারবাজারে টানা পাঁচ কার্যদিবস উর্ধ্বগতির ধারা অব্যাহত রয়েছে। এদিন শেয়ারবাজারের প্রধান প্রধান সূচক বেড়েছে। একইসঙ্গে বেড়েছে টাকার পরিমাণে লেনদেন। তবে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

গতকাল প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১৪.২৪ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ৩৫৮.২৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১.৮১ পয়েন্ট, ডিএসই-৩০ সূচক ১২.৩১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১২৩৩.৪৬ পয়েন্ট এবং ১৯৩৬.৫৭ পয়েন্টে। অপর সূচক সিডিএসইসি ১.৭০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১১১২.১১ পয়েন্টে। এদিন ডিএসইতে ১ হাজার ৩৮২ কোটি ৪৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবস থেকে ৩৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা বেশি। আগের কার্যদিবস লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৩৪৬ কোটি ৯৮ লাখ টাকার শেয়ার।

এছাড়া ডিএসইতে গতকাল ৩৬৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৩০টির বা ৩৫.৮১ শতাংশ শেয়ার ও ইউনিটের দর বেড়েছে। দর কমেছে ১৬৮টির বা ৪৬.২৯ শতাংশের এবং ৬৫টি বা ১৮.৯০ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৬৭.৮৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৪৭৫ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৮৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১০৬টির, কমেছে ১১৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৬২টির দর। এছাড়া গতকাল সিএসইতে ৪২ কোটি ৭০ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

এদিকে ঢাকা স্টক এক্সেচেঞ্জের (ডিএসই) ব্লক মার্কেটে ৩২টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব কোম্পানির ১১৩ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর ৩ কোটি ২৯ লাখ ৮৪ হাজার ৬৪৯টি শেয়ার ৮০ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ১১৩ কোটি ৫৭ লাখ ৮৬ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ৫০ কোটি ৫২ লাখ ৩৯ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকোর। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৬ কোটি ৯০ লাখ ৫০ হাজার টাকার আইএফআইসির এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৪ কোটি ৭৬ লাখ ৪১ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে বিডি ফাইন্যান্সের।

এছাড়া আমান কটনের ২১ লাখ ১২ হাজার টাকার, অ্যাডভেন্ট ফার্মার ১০ লাখ ৬০ হাজার টাকার, আনোয়ার গ্যালভানাইজিংয়ের ৩৬ লাখ ৬০ হাজার টাকার, ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকোর ২ কোটি ২৩ লাখ ৯০ হাজার টাকার, বিকন ফার্মার ৫ লাখ ৬১ হাজার টাকার, ব্র্যাক ব্যাংকের ৪৫ লাখ টাকার, বেক্সিমকো ফার্মার ১৩ কোটি ৮৬ লাখ ৩৮ হাজার টাকার, কনফিডেন্স সিমেন্টের ৮৫ লাখ ৪০ হাজার টাকার, কপারটেকের ১০ লাখ ৬৫ হাজার টাকার, ডিবিএইচের ৯৫ লাখ ৬৮ হাজার টাকার, ইস্টার্ন কেবলসের ২ কোটি ২০ লাখ ৫০ হাজার টাকার, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের ৮২ লাখ ৮০ হাজার টাকার, গ্রীনডেল্টা মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৭৫ লাখ ৩ হাজার টাকার, ম্যাকসন্স স্পিনিংয়ের ২৫ লাখ ৫০ হাজার টাকার, মালেক স্পিনিংয়ের ৭ লাখ ৯৫ হাজার টাকার, মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সের ৫০ লাখ ৪০ হাজার টাকার, ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্সের ১৩ লাখ ২১ হাজার টাকার, ফার্মা এইডসের ১৩ লাখ ১০ হাজার টাকার, প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৯০ লাখ ৯০ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১ কোটি ৩৮ লাখ টাকার, রবির ২ কোটি ৯ লাখ ২৮ হাজার টাকার, সায়হাম কটনের ৫ লাখ ১৭ হাজার টাকার, সামিট এলায়েন্স পোর্টের ৬ লাখ ৬৪ হাজার টাকার, এসইএমএল লেকচার ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট ফান্ডের ১২ লাখ ৮১ হাজার টাকার, এসকে ট্রিমসের ৪২ লাখ ৬৪ হাজার টাকার, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকার, স্কয়ার ফার্মার ১ কোটি ৯৮ লাখ ২৩ হাজার টাকার, এসএস স্টিলের ৭ লাখ ২৮ হাজার টাকার এবং ট্রাস্ট ব্যাংক ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ১২ লাখ ৮০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।