বিশ্ববিদ্যালয়ে পুঁজিবাজার বিষয়ে কোর্স চালুর প্রস্তাব

পুঁজিবাজারে দক্ষ জনবল তৈরিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ (ঢাবি) বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘পুঁজিবাজার’ কোর্স চালু করতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) মতামত চেয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

গত ২২ মার্চ আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ (বিএসইসি ও বিআইসিএম) থেকে এ বিষয়ে মতামত চেয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যানকে চিঠি দেয়া হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়, পুঁজিবাজার বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম খাত। পুঁজিবাজারের মাধ্যমে অর্থনীতিতে দীর্ঘমেয়াদি অর্থপ্রবাহ সৃষ্টি হয়ে থাকে। উন্নত বিশ্বে পুঁজিবাজার ব্যবস্থাপনা ও পুঁজিবাজারের বিভিন্ন প্রকার উপাদানসমূহ যথা- বন্ড, মিউচুয়াল ফান্ড, শেয়ার, ডিবেঞ্চার ইত্যাদি বিষয়ে জটিল গবেষণা এবং তাত্ত্বিক ও প্রায়োগিক জ্ঞানের ওপর ভিত্তি করে পরিচালিত হয়ে থাকে। বাংলাদেশের পুঁজিবাজার বর্তমান সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় একটি উদীয়মান পুঁজিবাজার হিসেবে বিস্তৃতি লাভ করেছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশের পর্যায়ে উন্নীত করার লক্ষ্যে পুঁজিবাজারের প্রসার গুরুত্বপূর্ণ এবং একইসঙ্গে পুঁজিবাজারের ওপর সম্যক জ্ঞানার্জন সমভাবে গুরুত্ব বহন করে। এতে আরও বলা হয়, পুঁজিবাজারের ওপর জ্ঞানার্জনের জন্য দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় বিশেষ করে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পুঁজিবাজার ফোকাসড তথা ক্যাপিটাল মার্কেটবিষয়ক মাস্টার্স কিংবা অনার্স কোর্স প্রবর্তন করার প্রয়োজনীয়তা আছে বলে প্রতীয়মান হয়।

এই কোর্স ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে পুঁজিবাজারের বিভিন্ন উপাদানসমূহ সম্পর্কে ভালোভাবে জ্ঞানার্জনে যেমন সাহায্য করবে তেমনি পুঁজিবাজার পরিচালনায় একটি দক্ষ জনগোষ্ঠী তৈরিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

এমতাবস্থায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পুঁজিবাজার বিষয়ক মাস্টার্স কোর্স কিংবা স্নাতক কোর্স প্রবর্তনের বিষয়ে মতামত পাঠানোর জন্য চিঠিতে অনুরোধ করা হয়।

সম্প্রতি ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম জানিয়েছিলেন, পুঁজিবাজারে দক্ষ জনবল তৈরিতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে এ সংক্রান্ত কোর্স চালুর পরিকল্পনা রয়েছে। কিছু বিশ্ববিদ্যালয়কে এ সংক্রান্ত কোর্স চালুর বিষয়েও প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে।

সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১ , ২৯ চৈত্র ১৪২৭ ২৮ শাবান ১৪৪২

বিশ্ববিদ্যালয়ে পুঁজিবাজার বিষয়ে কোর্স চালুর প্রস্তাব

অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

পুঁজিবাজারে দক্ষ জনবল তৈরিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ (ঢাবি) বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘পুঁজিবাজার’ কোর্স চালু করতে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) মতামত চেয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

গত ২২ মার্চ আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ (বিএসইসি ও বিআইসিএম) থেকে এ বিষয়ে মতামত চেয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যানকে চিঠি দেয়া হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়, পুঁজিবাজার বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম খাত। পুঁজিবাজারের মাধ্যমে অর্থনীতিতে দীর্ঘমেয়াদি অর্থপ্রবাহ সৃষ্টি হয়ে থাকে। উন্নত বিশ্বে পুঁজিবাজার ব্যবস্থাপনা ও পুঁজিবাজারের বিভিন্ন প্রকার উপাদানসমূহ যথা- বন্ড, মিউচুয়াল ফান্ড, শেয়ার, ডিবেঞ্চার ইত্যাদি বিষয়ে জটিল গবেষণা এবং তাত্ত্বিক ও প্রায়োগিক জ্ঞানের ওপর ভিত্তি করে পরিচালিত হয়ে থাকে। বাংলাদেশের পুঁজিবাজার বর্তমান সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় একটি উদীয়মান পুঁজিবাজার হিসেবে বিস্তৃতি লাভ করেছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশের পর্যায়ে উন্নীত করার লক্ষ্যে পুঁজিবাজারের প্রসার গুরুত্বপূর্ণ এবং একইসঙ্গে পুঁজিবাজারের ওপর সম্যক জ্ঞানার্জন সমভাবে গুরুত্ব বহন করে। এতে আরও বলা হয়, পুঁজিবাজারের ওপর জ্ঞানার্জনের জন্য দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় বিশেষ করে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পুঁজিবাজার ফোকাসড তথা ক্যাপিটাল মার্কেটবিষয়ক মাস্টার্স কিংবা অনার্স কোর্স প্রবর্তন করার প্রয়োজনীয়তা আছে বলে প্রতীয়মান হয়।

এই কোর্স ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে পুঁজিবাজারের বিভিন্ন উপাদানসমূহ সম্পর্কে ভালোভাবে জ্ঞানার্জনে যেমন সাহায্য করবে তেমনি পুঁজিবাজার পরিচালনায় একটি দক্ষ জনগোষ্ঠী তৈরিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

এমতাবস্থায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পুঁজিবাজার বিষয়ক মাস্টার্স কোর্স কিংবা স্নাতক কোর্স প্রবর্তনের বিষয়ে মতামত পাঠানোর জন্য চিঠিতে অনুরোধ করা হয়।

সম্প্রতি ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরামের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম জানিয়েছিলেন, পুঁজিবাজারে দক্ষ জনবল তৈরিতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে এ সংক্রান্ত কোর্স চালুর পরিকল্পনা রয়েছে। কিছু বিশ্ববিদ্যালয়কে এ সংক্রান্ত কোর্স চালুর বিষয়েও প্রস্তাবনা দেয়া হয়েছে।