শেয়ারবাজারে লেনদেন ছাড়ালো ২৩শ’ কোটি টাকা

আগের কার্যদিবসের মতো গতকালও উত্থানে হয়েছে শেয়ারবাজারে। এদিন শেয়ারবাজারের সব সূচক বেড়েছে। এদিন উভয় শেয়ারবাজারে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছ আর দুই শেয়ারবাজার মিলে ২৩ শত কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৫.৬৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ১৯.০০ পয়েন্টে। ডিএসইর অন্য সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ০.৪৪ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১.৬৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১ হাজার ২৮৪.৫১ পয়েন্টে এবং ২ হাজার ১৯৫.৩৩ পয়েন্টে। গতকাল ডিএসইতে ২ হাজার ২৮৭ কোটি ৩২ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিন থেকে ৩৮৪ কোটি ১০ লাখ টাকা বেশি। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৯০৩ কোটি ৫২ লাখ টাকার।

ডিএসইতে গতকাল ৩৬৭টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে ১৬৪টির বা ৪৪.৬৯ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। শেয়ার দর কমেছে ১৪৬টির বা ৩৯.৭৮ শতাংশের এবং বাকি ৫৭টির বা ১৫.৫৩ শতাংশের দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অন্য শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৭৩.২৪ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৪৪৯.২০ পয়েন্টে। সিএসইতে গতকাল ৩০০টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৪২টির দর বেড়েছে, কমেছে ১১৯টির আর ৩৯টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে। সিএসইতে ৬৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসই’র ব্লক মার্কেটে গতকাল ৫৭টি কোম্পানির ১২২ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর ৪ কোটি ১৬ লাখ ৪০ হাজার ৮৬৬টি শেয়ার ১২২ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ১২২ কোটি ৪৪ লাখ ৯৩ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ২৬ কোটি ৭৫ লাখ ৯০ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৩ কোটি টাকার প্রিমিয়ার ব্যাংকের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ১০ কোটি ৭৯ লাখ ১৮ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে প্রাইম ব্যাংকের।

এছাড়া আমান কটনের ৩৮ লাখ টাকার, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সের ৬০ লাখ টাকার, আমান ফিডের ৫ লাখ ৭ হাজার টাকার, এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের ২ কোটি ৩২ লাখ ৮৬ হাজার টাকার, বিবিএস কেবলসের ৫ লাখ ৩০ হাজার টাকার, বিডি ফাইন্যান্সের ৫৮ লাখ ৪৬ হাজার টাকার, বিকন ফার্মার ২ কোটি ৩৫ লাখ ৮৫ হাজার টাকার, বেক্সিমকোর ৮ কোটি ১৪ লাখ ৯১ হাজার টাকার, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ৫ কোটি ৫৪ লাখ ৬১ হাজার টাকার, ব্র্যাক ব্যাংকের ২৫ লাখ টাকার, ঢাকা ডাইংয়ের ৭৮ লাখ ৯৭ হাজার টাকার, ডিবিএইচের ২২ লাখ ৩৬ হাজার টাকার, ঢাকা ব্যাংকের ৮ কোটি ৯৪ লাখ টাকার, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকার, ফারইস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৬ লাখ ২৮ হাজার টাকার, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের ৭ লাখ টাকার, ফরচুন সুজের ২০ লাখ ৬৩ হাজার টাকার, জিবিবি পাওয়ারের ১১ লাখ ২৯ হাজার টাকার, জেনেক্সের ২৩ লাখ ৮০ হাজার টাকার, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ২০ হাজার টাকার, হাক্কানি পাল্পের ৫ লাখ টাকার, ইসলামী ব্যাংকের ৭ কোটি ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকার, ইসলামিক ফাইন্যান্সের ৬ লাখ ১৫ হাজার টাকার, যমুনা ব্যাংকের ১৯ লাখ ৬৬ হাজার টাকার, কর্ণফুলি ইন্স্যুরেন্সের ১২ লাখ ৬৩ হাজার টাকার, কাট্টালি টেক্সটাইলের ২৯ লাখ ২৬ হাজার টাকার, লাফার্জ হোলসিমের ১৭ লাখ ৮২ হাজার টাকার, লুব-রেফের ১ কোটি ২৮ লাখ ৯৪ হাজার টাকার, মাকেন্টাইল ব্যাংকের ১ কোটি ৫০ লাখ টাকার, মুন্নু সিরামিকের ৫ লাখ ৪ হাজার টাকার, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ৩ কোটি ৭ লাখ ৮০ হাজার টাকার, এনসিসি ব্যাংকের ২ কোটি ১১ লাখ ২০ হাজার টাকার, নিউ লাইন ক্লোথিংসের ৪৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকার, নর্দার্ন ইসলামী ইন্স্যুরেন্সের ৭১ লাখ ৩৪ হাজার টাকার, ন্যাশনাল পলিমারের ৯৫ লাখ ৮১ হাজার টাকার, এনআরবিসি ব্যাংকের ৩ কোটি ৩০ লাখ ৩২ হাজার টাকার, ওয়াইম্যাক্সের ১ কোটি ৮৩ লাখ ২০ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের ১৬ লাখ ৯৬ হাজার টাকার, পিএফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ১১ লাখ ৪৫ হাজার টাকার, প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৫২ লাখ ৫০ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১১ লাখ ২৬ হাজার টাকার, পূবালী ব্যাংকের ৭ কোটি ২৫ লাখ টাকার, কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজের ১৪ লাখ ৫৮ হাজার টাকার, কুইন সাউথ টেক্সটাইলের ১২ লাখ ৭০ হাজার টাকার, রহিমা ফুডের ৫ লাখ ৭১ হাজার টাকার, আরডি ফুডের ৬৯ লাখ ৬০ হাজার টাকার, রেনেটার ১ কোটি ৫২ লাখ ১৬ হাজার টাকার, সালভো কেমিক্যালের ৮৩ লাখ ৩১ হাজার টাকার, সাউথইস্ট ব্যাংকের ৯৭ লাখ ৮০ হাজার টাকার, স্কয়ার ফার্মার ১ কোটি ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকার, এসএস স্টিলের ৬৯ লাখ ৮০ হাজার টাকার, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের ৩ কোটি ৭০ হাজার টাকার, তাওফিকা ফুডের ১০ লাখ ৬৫ হাজার টাকার এবং ওয়াটা কেমিক্যালের ১০ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ১৪৬টির বা ৩৯.৭৮ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। এদিন শেয়ার দর সবচেয়ে বেশি কমেছে স্যোসাল ইসলামী ব্যাংকের। গত মঙ্গলবার সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৪.৬০ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়ায় ১৩.৫০ টাকায়। অর্থাৎ গতকাল কোম্পানিটির শেয়ার দর ১.১০ টাকা বা ৭.৫৩ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক ডিএসইর টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে।

ডিএসইতে টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের ৭.৩৩ শতাংশ, নর্দার্ন ইসলামী ইন্স্যুরেন্সের ৭.৩২ শতাংশ, এআইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৬.০৬ শতাংশ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ৫.৭৬ শতাংশ, ন্যাশনাল ফিডের ৫.৭১ শতাংশ, জিলবাংলা সুগারের ৪.৮২ শতাংশ, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের ৪.৭৫ শতাংশ, এমবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৪.৩৯ শতাংশ এবং এনআরবিসি ব্যাংকের শেয়ার দর ৪.৩৭ শতাংশ কমেছে।

বৃহস্পতিবার, ০৩ জুন ২০২১ , ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ ২১ শাওয়াল ১৪৪২

শেয়ারবাজারে লেনদেন ছাড়ালো ২৩শ’ কোটি টাকা

আগের কার্যদিবসের মতো গতকালও উত্থানে হয়েছে শেয়ারবাজারে। এদিন শেয়ারবাজারের সব সূচক বেড়েছে। এদিন উভয় শেয়ারবাজারে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছ আর দুই শেয়ারবাজার মিলে ২৩ শত কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৫.৬৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ১৯.০০ পয়েন্টে। ডিএসইর অন্য সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ০.৪৪ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১.৬৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১ হাজার ২৮৪.৫১ পয়েন্টে এবং ২ হাজার ১৯৫.৩৩ পয়েন্টে। গতকাল ডিএসইতে ২ হাজার ২৮৭ কোটি ৩২ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের দিন থেকে ৩৮৪ কোটি ১০ লাখ টাকা বেশি। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৯০৩ কোটি ৫২ লাখ টাকার।

ডিএসইতে গতকাল ৩৬৭টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে ১৬৪টির বা ৪৪.৬৯ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। শেয়ার দর কমেছে ১৪৬টির বা ৩৯.৭৮ শতাংশের এবং বাকি ৫৭টির বা ১৫.৫৩ শতাংশের দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অন্য শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৭৩.২৪ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৪৪৯.২০ পয়েন্টে। সিএসইতে গতকাল ৩০০টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৪২টির দর বেড়েছে, কমেছে ১১৯টির আর ৩৯টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে। সিএসইতে ৬৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসই’র ব্লক মার্কেটে গতকাল ৫৭টি কোম্পানির ১২২ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর ৪ কোটি ১৬ লাখ ৪০ হাজার ৮৬৬টি শেয়ার ১২২ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ১২২ কোটি ৪৪ লাখ ৯৩ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ২৬ কোটি ৭৫ লাখ ৯০ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৩ কোটি টাকার প্রিমিয়ার ব্যাংকের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ১০ কোটি ৭৯ লাখ ১৮ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে প্রাইম ব্যাংকের।

এছাড়া আমান কটনের ৩৮ লাখ টাকার, অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সের ৬০ লাখ টাকার, আমান ফিডের ৫ লাখ ৭ হাজার টাকার, এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের ২ কোটি ৩২ লাখ ৮৬ হাজার টাকার, বিবিএস কেবলসের ৫ লাখ ৩০ হাজার টাকার, বিডি ফাইন্যান্সের ৫৮ লাখ ৪৬ হাজার টাকার, বিকন ফার্মার ২ কোটি ৩৫ লাখ ৮৫ হাজার টাকার, বেক্সিমকোর ৮ কোটি ১৪ লাখ ৯১ হাজার টাকার, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ৫ কোটি ৫৪ লাখ ৬১ হাজার টাকার, ব্র্যাক ব্যাংকের ২৫ লাখ টাকার, ঢাকা ডাইংয়ের ৭৮ লাখ ৯৭ হাজার টাকার, ডিবিএইচের ২২ লাখ ৩৬ হাজার টাকার, ঢাকা ব্যাংকের ৮ কোটি ৯৪ লাখ টাকার, ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকার, ফারইস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৬ লাখ ২৮ হাজার টাকার, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের ৭ লাখ টাকার, ফরচুন সুজের ২০ লাখ ৬৩ হাজার টাকার, জিবিবি পাওয়ারের ১১ লাখ ২৯ হাজার টাকার, জেনেক্সের ২৩ লাখ ৮০ হাজার টাকার, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ২০ হাজার টাকার, হাক্কানি পাল্পের ৫ লাখ টাকার, ইসলামী ব্যাংকের ৭ কোটি ১২ লাখ ৫০ হাজার টাকার, ইসলামিক ফাইন্যান্সের ৬ লাখ ১৫ হাজার টাকার, যমুনা ব্যাংকের ১৯ লাখ ৬৬ হাজার টাকার, কর্ণফুলি ইন্স্যুরেন্সের ১২ লাখ ৬৩ হাজার টাকার, কাট্টালি টেক্সটাইলের ২৯ লাখ ২৬ হাজার টাকার, লাফার্জ হোলসিমের ১৭ লাখ ৮২ হাজার টাকার, লুব-রেফের ১ কোটি ২৮ লাখ ৯৪ হাজার টাকার, মাকেন্টাইল ব্যাংকের ১ কোটি ৫০ লাখ টাকার, মুন্নু সিরামিকের ৫ লাখ ৪ হাজার টাকার, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ৩ কোটি ৭ লাখ ৮০ হাজার টাকার, এনসিসি ব্যাংকের ২ কোটি ১১ লাখ ২০ হাজার টাকার, নিউ লাইন ক্লোথিংসের ৪৫ লাখ ৫৫ হাজার টাকার, নর্দার্ন ইসলামী ইন্স্যুরেন্সের ৭১ লাখ ৩৪ হাজার টাকার, ন্যাশনাল পলিমারের ৯৫ লাখ ৮১ হাজার টাকার, এনআরবিসি ব্যাংকের ৩ কোটি ৩০ লাখ ৩২ হাজার টাকার, ওয়াইম্যাক্সের ১ কোটি ৮৩ লাখ ২০ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের ১৬ লাখ ৯৬ হাজার টাকার, পিএফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ১১ লাখ ৪৫ হাজার টাকার, প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৫২ লাখ ৫০ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১১ লাখ ২৬ হাজার টাকার, পূবালী ব্যাংকের ৭ কোটি ২৫ লাখ টাকার, কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজের ১৪ লাখ ৫৮ হাজার টাকার, কুইন সাউথ টেক্সটাইলের ১২ লাখ ৭০ হাজার টাকার, রহিমা ফুডের ৫ লাখ ৭১ হাজার টাকার, আরডি ফুডের ৬৯ লাখ ৬০ হাজার টাকার, রেনেটার ১ কোটি ৫২ লাখ ১৬ হাজার টাকার, সালভো কেমিক্যালের ৮৩ লাখ ৩১ হাজার টাকার, সাউথইস্ট ব্যাংকের ৯৭ লাখ ৮০ হাজার টাকার, স্কয়ার ফার্মার ১ কোটি ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকার, এসএস স্টিলের ৬৯ লাখ ৮০ হাজার টাকার, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের ৩ কোটি ৭০ হাজার টাকার, তাওফিকা ফুডের ১০ লাখ ৬৫ হাজার টাকার এবং ওয়াটা কেমিক্যালের ১০ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ১৪৬টির বা ৩৯.৭৮ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। এদিন শেয়ার দর সবচেয়ে বেশি কমেছে স্যোসাল ইসলামী ব্যাংকের। গত মঙ্গলবার সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৪.৬০ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়ায় ১৩.৫০ টাকায়। অর্থাৎ গতকাল কোম্পানিটির শেয়ার দর ১.১০ টাকা বা ৭.৫৩ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক ডিএসইর টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে।

ডিএসইতে টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের ৭.৩৩ শতাংশ, নর্দার্ন ইসলামী ইন্স্যুরেন্সের ৭.৩২ শতাংশ, এআইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৬.০৬ শতাংশ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ৫.৭৬ শতাংশ, ন্যাশনাল ফিডের ৫.৭১ শতাংশ, জিলবাংলা সুগারের ৪.৮২ শতাংশ, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের ৪.৭৫ শতাংশ, এমবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৪.৩৯ শতাংশ এবং এনআরবিসি ব্যাংকের শেয়ার দর ৪.৩৭ শতাংশ কমেছে।