সারাদেশে বজ্রাঘাতে মৃত্যু ১৭

গত কয়েক দিনে ঝড় ও বৃষ্টি সময় বজ্রাঘাতে সারা দেশে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আমাদের জেলা বার্তা পরিবেশক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

সিরাজগঞ্জে ৫

জেলা বার্তা পরিবেশ, সিরাজগঞ্জ

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর,উল্লাপাড়া ও বেলকুচি উপজেলায় গত রোববার বিকেলে পৃথক বজ্রপাতে পাঁচ জন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন: শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের চর আঙ্গার গ্রামের আমানত মোল্লার ছেলে আব্দুল্লাহ ওরফে জুয়েল রানা(২৬), নরিনা ইউনিয়নের বাতিয়া গ্রামের প্রয়াত জালাল উদ্দিন ভোলার ছেলে আলী বাবুর্চি(৬০), উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের আগদিঘল গ্রামের শাহেদ আলীর ছেলে নবম শ্রেণির ছাত্র ফরিদুল ইসলাম (১৬), সলঙ্গা ইউনিয়নের আঙ্গার“ গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম (৪৫) ও বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর সমেশপুর গ্রামের লাইলি বেগম (৪৫)। এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের মেম্বার আবুল কালাম জানান, এ দিন বিকেলে বাড়ির পাশের জমিতে ধান কাটার সময় জুয়েল রানা বজ্রপাতে নিহত হয়। এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলার নরিনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক জানান, তার স্ত্রীকে সাথে নিয়ে বাড়ির পাশের মাঠে ধান শুকানোর কাজ করছিলেন। এ সময় ঝড়-বৃষ্টি শুর“ হলে তারা দৌঁড়ে বাড়ির কাছে আসলে হঠাৎ বজ্রপাতে আলী বাবুর্চি ঘটনাস্থলই মারা যান। এ বিষয়ে উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল প্রামানিক জানান, আগদিঘল গ্রামের মাঠে ধান কাটার সময় নবম শ্রেণির ছাত্র ফরিদুল ইসলাম বজ্রপাতে নিহত হয়। এ বিষয়ে সলঙ্গা থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী জানান, উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের ধরইল বিলে হাঁস পালনের সময় রফিকুল ইসলাম নামে এক রাখাল বজ্রপাতে নিহত হয়। এ বিষয়ে বেলকুচি থানার ওসি গোলাম মোস্তফা জানান, বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর সমেশপুর গ্রামের লাইলি বেগম মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাতে নিহত হন। এ সব ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

চট্টগ্রামে ৫

চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামে বজ্রপাতে এক দিনে প্রাণ হারিয়েছেন চারজন। এদের মধ্যে ফটিকছড়িতে দুই নারী, মীরসরাইয়ে স্কুল ছাত্র ও বোয়ালখালীতে এক দিনমজুর রয়েছেন। এছাড়া ফটিকছড়িতে বজ্রাঘাতে আরও দুই নারী আহত হয়েছেন। গত রোববার সকাল ১০টার দিকে তিন ইউনিয়নে বজ্রপাতে এ চারজন প্রাণ হারান। পৃথক তথ্যে জানাগেছে, সীতাকু-ে বজ্রপাতে একজন নিহত হয়েছেন। গত রোববার বিকেলে মুরাদপুর ইউনিয়নের হাসনাবাদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত এসকান্দর হাসনাবাদ এলাকার প্রয়াত হাবিব উল্লাহর ছেলে।

মির্জাগঞ্জে ১

প্রতিনিধি, মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী)

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে বজ্রপাতে আব্দুল জলিল (৪৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। গত রোববার বিকেলে উপজেলার মজিদবাড়িয়া ইউনিয়নের পশ্চিম তাড়াবুনিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তিনি ওই গ্রামের প্রয়াত সেরজন আলী হাওলাদারের ছেলে। ঘটনার দিন বিকালে আ. জলিল তার বাড়ির পূর্ব পাশে নিজ জমিতে আউসের বীজ তুলছিল। এ সময় হঠাৎ বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

মানিকগঞ্জে ৪

প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জ

মানিকগঞ্জে গত রোববার সন্ধ্যায় ঝড়ের সময় বজ্রঘাতে ৪ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ১ জন। নিহতদের মধ্যে দৌলতপুরে ১ এবং ঘিওর ৩ জন। আহত ১ ব্যক্তিকে ঘিওর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। জানা গেছে, জেলার দৌলতপুর উপজেলার বাচামারা ইউনিয়নের চরভাঙ্গাগ্রামের মহিষের গাড়ি চালক গোলাম মোস্তফা (৪০) বাদাম বোঝাই করে গাড়ি নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। হঠাৎ ঝড়ের সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হয়। তিনি চরভারাঙ্গা গ্রামের আব্দুল বাতেনের ছেলে। এদিকে ঘিওর উপজেলার চরবৈলট গ্রামের মুক্তার মিয়ার ছেলে শাহীন মিয়া (১৮) ধান কাটতে গেলে বজ্রপাতে মারা যায়। সে মহাদেবপুর ডিগ্রী কলেজের আইনের ১ম বর্ষের ছাত্র। উপজেলার ঠাকুরকান্দি গ্রামের আর্শেদ মিয়ার ছেলে জুলহাস মিয়া জুলু (২৮) এবং কুস্তা গ্রামের মো. লতিফ মিয়ার ছেলে মো. ইবাদুল (৩০) তার বাঙ্গী ক্ষেতে কাজ শেষে তারা গোসল করতে যায়। এক পর্যায়ে বাড়িতে ফেরার সময় বজ্রপাতে তারা ২ জন মারা যান। রাতে অনেক খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে আটটার সময় তাদের ২ জনের লাশ পাওয়া যায়। এবং তার বাড়িতে কাজ করতে আসা ওয়াসিম (৩০) মারাত্মক আহত হয়। তার বাড়ি চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার খারবাথারা গ্রামে। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঘিওর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। ঘিওর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ বিপ্লব জানান, মানবিক কারনে লাশগুলো তাদের বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

নোয়াখালীতে ১

প্রতিনিধি, নোয়াখালী

নোয়াখালী দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় বজ্রপাতে আবদুল মান্নান খোকন (৫৫) নামে এক কৃষক মারা গেছেন। গত রোববার বিকেলে উপজেলার ৮নং সোনাদিয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব মাইজচড়া গ্রামে তার মৃত্যু হয়। স্থানীয়রা জানায়, বিকেলের দিকে কৃষক খোকন তার বাড়ির উত্তর পাশের একটি মাঠে গরু আনতে যায়। ওই সময় বৃষ্টি শুরু হলে হঠাৎ বজ্রপাতের শিকার হয়ে ঘটনাস্থলেই খোকনের মৃত্যু হয়। হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

শিবচরে ১

প্রতিনিধি, শিবচর (মাদারীপুর)

শিবচরে বজ্রঘাতে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। গত রোববার বিকেলে উপজেলার চরজানাজাত ইউনিয়নের সামাদ খার কান্দি গ্রামের বালুরটেক এলাকার আয়শা বেগম (৪৮) তার নিজ বাড়ি থেকে পার্শ¦বর্তী অন্য বাড়িতে যাচ্ছিল। এসময় সে বজ্রপাতেঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চরজানাজাত ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী আ. জলিল মিয়া। নিহত গৃহবধু চরজানাজাত ইউনিয়নের সামাদ খা’র কান্দি গ্রামের বালুরটেক এলাকার ছোরফান হাওলাদারের স্ত্রী।

মঙ্গলবার, ০৮ জুন ২০২১ , ২৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ ২৬ শাওয়াল ১৪৪২

সারাদেশে বজ্রাঘাতে মৃত্যু ১৭

গত কয়েক দিনে ঝড় ও বৃষ্টি সময় বজ্রাঘাতে সারা দেশে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আমাদের জেলা বার্তা পরিবেশক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

সিরাজগঞ্জে ৫

জেলা বার্তা পরিবেশ, সিরাজগঞ্জ

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর,উল্লাপাড়া ও বেলকুচি উপজেলায় গত রোববার বিকেলে পৃথক বজ্রপাতে পাঁচ জন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন: শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের চর আঙ্গার গ্রামের আমানত মোল্লার ছেলে আব্দুল্লাহ ওরফে জুয়েল রানা(২৬), নরিনা ইউনিয়নের বাতিয়া গ্রামের প্রয়াত জালাল উদ্দিন ভোলার ছেলে আলী বাবুর্চি(৬০), উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের আগদিঘল গ্রামের শাহেদ আলীর ছেলে নবম শ্রেণির ছাত্র ফরিদুল ইসলাম (১৬), সলঙ্গা ইউনিয়নের আঙ্গার“ গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে রফিকুল ইসলাম (৪৫) ও বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর সমেশপুর গ্রামের লাইলি বেগম (৪৫)। এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের মেম্বার আবুল কালাম জানান, এ দিন বিকেলে বাড়ির পাশের জমিতে ধান কাটার সময় জুয়েল রানা বজ্রপাতে নিহত হয়। এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলার নরিনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক জানান, তার স্ত্রীকে সাথে নিয়ে বাড়ির পাশের মাঠে ধান শুকানোর কাজ করছিলেন। এ সময় ঝড়-বৃষ্টি শুর“ হলে তারা দৌঁড়ে বাড়ির কাছে আসলে হঠাৎ বজ্রপাতে আলী বাবুর্চি ঘটনাস্থলই মারা যান। এ বিষয়ে উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল প্রামানিক জানান, আগদিঘল গ্রামের মাঠে ধান কাটার সময় নবম শ্রেণির ছাত্র ফরিদুল ইসলাম বজ্রপাতে নিহত হয়। এ বিষয়ে সলঙ্গা থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী জানান, উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের ধরইল বিলে হাঁস পালনের সময় রফিকুল ইসলাম নামে এক রাখাল বজ্রপাতে নিহত হয়। এ বিষয়ে বেলকুচি থানার ওসি গোলাম মোস্তফা জানান, বেলকুচি উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের চর সমেশপুর গ্রামের লাইলি বেগম মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাতে নিহত হন। এ সব ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

চট্টগ্রামে ৫

চট্টগ্রাম ব্যুরো

চট্টগ্রামে বজ্রপাতে এক দিনে প্রাণ হারিয়েছেন চারজন। এদের মধ্যে ফটিকছড়িতে দুই নারী, মীরসরাইয়ে স্কুল ছাত্র ও বোয়ালখালীতে এক দিনমজুর রয়েছেন। এছাড়া ফটিকছড়িতে বজ্রাঘাতে আরও দুই নারী আহত হয়েছেন। গত রোববার সকাল ১০টার দিকে তিন ইউনিয়নে বজ্রপাতে এ চারজন প্রাণ হারান। পৃথক তথ্যে জানাগেছে, সীতাকু-ে বজ্রপাতে একজন নিহত হয়েছেন। গত রোববার বিকেলে মুরাদপুর ইউনিয়নের হাসনাবাদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত এসকান্দর হাসনাবাদ এলাকার প্রয়াত হাবিব উল্লাহর ছেলে।

মির্জাগঞ্জে ১

প্রতিনিধি, মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী)

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে বজ্রপাতে আব্দুল জলিল (৪৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। গত রোববার বিকেলে উপজেলার মজিদবাড়িয়া ইউনিয়নের পশ্চিম তাড়াবুনিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তিনি ওই গ্রামের প্রয়াত সেরজন আলী হাওলাদারের ছেলে। ঘটনার দিন বিকালে আ. জলিল তার বাড়ির পূর্ব পাশে নিজ জমিতে আউসের বীজ তুলছিল। এ সময় হঠাৎ বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

মানিকগঞ্জে ৪

প্রতিনিধি, মানিকগঞ্জ

মানিকগঞ্জে গত রোববার সন্ধ্যায় ঝড়ের সময় বজ্রঘাতে ৪ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ১ জন। নিহতদের মধ্যে দৌলতপুরে ১ এবং ঘিওর ৩ জন। আহত ১ ব্যক্তিকে ঘিওর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। জানা গেছে, জেলার দৌলতপুর উপজেলার বাচামারা ইউনিয়নের চরভাঙ্গাগ্রামের মহিষের গাড়ি চালক গোলাম মোস্তফা (৪০) বাদাম বোঝাই করে গাড়ি নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। হঠাৎ ঝড়ের সময় বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হয়। তিনি চরভারাঙ্গা গ্রামের আব্দুল বাতেনের ছেলে। এদিকে ঘিওর উপজেলার চরবৈলট গ্রামের মুক্তার মিয়ার ছেলে শাহীন মিয়া (১৮) ধান কাটতে গেলে বজ্রপাতে মারা যায়। সে মহাদেবপুর ডিগ্রী কলেজের আইনের ১ম বর্ষের ছাত্র। উপজেলার ঠাকুরকান্দি গ্রামের আর্শেদ মিয়ার ছেলে জুলহাস মিয়া জুলু (২৮) এবং কুস্তা গ্রামের মো. লতিফ মিয়ার ছেলে মো. ইবাদুল (৩০) তার বাঙ্গী ক্ষেতে কাজ শেষে তারা গোসল করতে যায়। এক পর্যায়ে বাড়িতে ফেরার সময় বজ্রপাতে তারা ২ জন মারা যান। রাতে অনেক খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে আটটার সময় তাদের ২ জনের লাশ পাওয়া যায়। এবং তার বাড়িতে কাজ করতে আসা ওয়াসিম (৩০) মারাত্মক আহত হয়। তার বাড়ি চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার খারবাথারা গ্রামে। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে ঘিওর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। ঘিওর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. রিয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ বিপ্লব জানান, মানবিক কারনে লাশগুলো তাদের বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

নোয়াখালীতে ১

প্রতিনিধি, নোয়াখালী

নোয়াখালী দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় বজ্রপাতে আবদুল মান্নান খোকন (৫৫) নামে এক কৃষক মারা গেছেন। গত রোববার বিকেলে উপজেলার ৮নং সোনাদিয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব মাইজচড়া গ্রামে তার মৃত্যু হয়। স্থানীয়রা জানায়, বিকেলের দিকে কৃষক খোকন তার বাড়ির উত্তর পাশের একটি মাঠে গরু আনতে যায়। ওই সময় বৃষ্টি শুরু হলে হঠাৎ বজ্রপাতের শিকার হয়ে ঘটনাস্থলেই খোকনের মৃত্যু হয়। হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

শিবচরে ১

প্রতিনিধি, শিবচর (মাদারীপুর)

শিবচরে বজ্রঘাতে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। গত রোববার বিকেলে উপজেলার চরজানাজাত ইউনিয়নের সামাদ খার কান্দি গ্রামের বালুরটেক এলাকার আয়শা বেগম (৪৮) তার নিজ বাড়ি থেকে পার্শ¦বর্তী অন্য বাড়িতে যাচ্ছিল। এসময় সে বজ্রপাতেঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চরজানাজাত ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী আ. জলিল মিয়া। নিহত গৃহবধু চরজানাজাত ইউনিয়নের সামাদ খা’র কান্দি গ্রামের বালুরটেক এলাকার ছোরফান হাওলাদারের স্ত্রী।