চেয়ারম্যান প্রার্থীদের হানাহানিতে উত্তপ্ত গ্রামীণ জনপদ

আগামী ২১ জুন অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দ্বিতীয় দফায় প্রচার প্রচারণার শুরুতেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বরিশালের গ্রামীণ জনপদ। বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রায় প্রতিদিনই প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্র্থীর সমর্থকদের মধ্যে ছোটখাট বিরোধের সংখ্যা বাড়ছে। যা যে কোন সময় ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রূপ নিতে পারে। আগামী ২১ জুন বরিশাল জেলার বিভিন্ন উপজেলার মোট ৫০টি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

হিজলা উপজেলায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রতিপক্ষ স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাওয়ার অভিযোগে এমপি পংকজ দেবনাথের গাড়ি বহরে হামলা হয়েছে। এখানে মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ২৪ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হলে হিজলায় আওয়ামী লীগের দুইপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা আরও বেড়ে গেছে। গ্রেপ্তার হওয়া ৫ নেতাকর্মী আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হওয়ার পর রাতে হিজলায় আওয়ামী লীগের একাংশ মহড়া দিয়ে এমপিবিরোধী সেøাগান দেন।

সদর উপজেলার কাশিপুরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্র্থী মো. নুরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, নৌকার প্রার্থী কামাল হোসেন লিটন মোল্লা তাকে প্রচার-প্রচারণা করতে বাধা দিচ্ছেন এবং কর্মীদের মারধর করছেন।

তবে লিটন মোল্লা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নুরুল ইসলামের নিজে ছাড়া তার কোন কর্মী নেই। তিনি নির্বাচনে কাউকে পাশে না পেয়ে দল বিচ্ছিন্ন নেতায় পরিণত হয়ে মিথ্যাচার করছেন। নৌকা প্রতীকের প্রার্র্থীর বিরুদ্ধে একই অভিযোগ করেছেন সদর উপজেলার টুঙ্গিবাড়িয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্র্থী আওয়ামী লীগ নেতা মো. নাসির উদ্দিন ও জাগুয়া ইউনিয়নের জামাল সরদার। দলের মনোনয়নবঞ্চিত হয়ে স্বতন্ত্র এসব চেয়ারম্যান প্রার্থীদের দাবি সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তারাই বিজয়ী হবেন।

মুলাদী উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নে নির্বাচনী প্রচারের শুরু থেকেই জাতীয় পার্টি (জাপা) ও আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সহিংসতার ঘটনা ঘটছে। উপজেলা জাপা সাধারণ সম্পাদক আরিফ সরদার বলেন, নাজিরপুর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীর গ্রহণযোগ্যতা না থাকায় সেখানকার আওয়ামী লীগের সাধারণ কর্মী-সমর্থকসহ অন্য দল জাপার প্রার্থী এনামুল হক ভূঁইয়াকে সমর্থন দিচ্ছেন। এ কারণে আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান বাদল খান সহিংসতার মাধ্যমে ভোটে জেতার কৌশল নিয়েছেন।

এর আগে জাপার অফিস ভেঙে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। চিলমারী এলাকায় গোলাগুলির ঘটনাও ঘটেছে। এসব ঘটনায় পুলিশ একাধিকবার এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুকুল তালুকদার বলেন, এসব ঘটনার মীমাংসা হয়েছে। এখন নাজিরপুরে নির্বাচনী পরিবেশ শান্ত। জাপার নেতাকর্মীরা প্রোপাগা-া ছড়াচ্ছে। নাজিরপুর ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান আবু হাসানাত জাপান বলেন, জাপা ও আওয়ামী লীগের মধ্যে নির্বাচনী বিরোধে নাজিরপুরে কিছুদিন যাবত উত্তেজনা চলছে। ইতোমধ্যে একদল আরেক দলের অফিসও বন্ধ করে দিয়েছে। ক’দিন আগে গোলাগুলি হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, প্রার্থী সর্বহারা হলে গোলাগুলি তো হতেই পারে। বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী তরিকুল ইসলাম তারেকের বিরুদ্ধে এলাকায় প্রভাব বিস্তার ও নির্বাচনী প্রচারে বাধা দেয়ার অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম খান হিম্্ু। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে তরিকুল ইসলাম তারেক বলেন, কামরুল ইসলাম হিমু উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সর্বহারা নেতা। তার দল নির্বাচনে অংশ নেয়নি। তবে হিমু তার সর্বহারা সন্ত্রাসীদের ওপর নির্ভর করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। নৌকার প্রার্থী তারেক বলেন, হিমু বিভিন্ন এলাকা থেকে সর্বহারা নামধারী সন্ত্রাসীদের এনে এলাকায় প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালাচ্ছেন। এসব বিষয়ে বরিশালের সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. নুরুল আলম বলেন, স্থগিত হওয়া ইউপিতে আগামী ২১ জুন ভোট হবে। তিনি বলেন, নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ন্ত্রনে স্ব স্ব এলাকার নির্বাচন অফিস প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

সোমবার, ১৪ জুন ২০২১ , ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ ২ জিলকদ ১৪৪২

বরিশালে ইউপি নির্বাচন

চেয়ারম্যান প্রার্থীদের হানাহানিতে উত্তপ্ত গ্রামীণ জনপদ

আগামী ২১ জুন অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দ্বিতীয় দফায় প্রচার প্রচারণার শুরুতেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বরিশালের গ্রামীণ জনপদ। বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রায় প্রতিদিনই প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্র্থীর সমর্থকদের মধ্যে ছোটখাট বিরোধের সংখ্যা বাড়ছে। যা যে কোন সময় ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে রূপ নিতে পারে। আগামী ২১ জুন বরিশাল জেলার বিভিন্ন উপজেলার মোট ৫০টি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

হিজলা উপজেলায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রতিপক্ষ স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাওয়ার অভিযোগে এমপি পংকজ দেবনাথের গাড়ি বহরে হামলা হয়েছে। এখানে মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ২৪ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হলে হিজলায় আওয়ামী লীগের দুইপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা আরও বেড়ে গেছে। গ্রেপ্তার হওয়া ৫ নেতাকর্মী আদালত থেকে জামিনে মুক্ত হওয়ার পর রাতে হিজলায় আওয়ামী লীগের একাংশ মহড়া দিয়ে এমপিবিরোধী সেøাগান দেন।

সদর উপজেলার কাশিপুরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্র্থী মো. নুরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, নৌকার প্রার্থী কামাল হোসেন লিটন মোল্লা তাকে প্রচার-প্রচারণা করতে বাধা দিচ্ছেন এবং কর্মীদের মারধর করছেন।

তবে লিটন মোল্লা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নুরুল ইসলামের নিজে ছাড়া তার কোন কর্মী নেই। তিনি নির্বাচনে কাউকে পাশে না পেয়ে দল বিচ্ছিন্ন নেতায় পরিণত হয়ে মিথ্যাচার করছেন। নৌকা প্রতীকের প্রার্র্থীর বিরুদ্ধে একই অভিযোগ করেছেন সদর উপজেলার টুঙ্গিবাড়িয়া ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্র্থী আওয়ামী লীগ নেতা মো. নাসির উদ্দিন ও জাগুয়া ইউনিয়নের জামাল সরদার। দলের মনোনয়নবঞ্চিত হয়ে স্বতন্ত্র এসব চেয়ারম্যান প্রার্থীদের দাবি সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তারাই বিজয়ী হবেন।

মুলাদী উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নে নির্বাচনী প্রচারের শুরু থেকেই জাতীয় পার্টি (জাপা) ও আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সহিংসতার ঘটনা ঘটছে। উপজেলা জাপা সাধারণ সম্পাদক আরিফ সরদার বলেন, নাজিরপুর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীর গ্রহণযোগ্যতা না থাকায় সেখানকার আওয়ামী লীগের সাধারণ কর্মী-সমর্থকসহ অন্য দল জাপার প্রার্থী এনামুল হক ভূঁইয়াকে সমর্থন দিচ্ছেন। এ কারণে আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান বাদল খান সহিংসতার মাধ্যমে ভোটে জেতার কৌশল নিয়েছেন।

এর আগে জাপার অফিস ভেঙে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। চিলমারী এলাকায় গোলাগুলির ঘটনাও ঘটেছে। এসব ঘটনায় পুলিশ একাধিকবার এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুকুল তালুকদার বলেন, এসব ঘটনার মীমাংসা হয়েছে। এখন নাজিরপুরে নির্বাচনী পরিবেশ শান্ত। জাপার নেতাকর্মীরা প্রোপাগা-া ছড়াচ্ছে। নাজিরপুর ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান আবু হাসানাত জাপান বলেন, জাপা ও আওয়ামী লীগের মধ্যে নির্বাচনী বিরোধে নাজিরপুরে কিছুদিন যাবত উত্তেজনা চলছে। ইতোমধ্যে একদল আরেক দলের অফিসও বন্ধ করে দিয়েছে। ক’দিন আগে গোলাগুলি হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, প্রার্থী সর্বহারা হলে গোলাগুলি তো হতেই পারে। বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী তরিকুল ইসলাম তারেকের বিরুদ্ধে এলাকায় প্রভাব বিস্তার ও নির্বাচনী প্রচারে বাধা দেয়ার অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম খান হিম্্ু। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে তরিকুল ইসলাম তারেক বলেন, কামরুল ইসলাম হিমু উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ও সর্বহারা নেতা। তার দল নির্বাচনে অংশ নেয়নি। তবে হিমু তার সর্বহারা সন্ত্রাসীদের ওপর নির্ভর করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। নৌকার প্রার্থী তারেক বলেন, হিমু বিভিন্ন এলাকা থেকে সর্বহারা নামধারী সন্ত্রাসীদের এনে এলাকায় প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালাচ্ছেন। এসব বিষয়ে বরিশালের সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. নুরুল আলম বলেন, স্থগিত হওয়া ইউপিতে আগামী ২১ জুন ভোট হবে। তিনি বলেন, নির্বাচনী পরিবেশ নিয়ন্ত্রনে স্ব স্ব এলাকার নির্বাচন অফিস প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।