পানি নিষ্কাশনের অভাবে বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধ বাংলাবাজার

ভোলার বাংলাবাজার এলাকায় পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় টানা বৃষ্টি হলেই ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে ঘরবাড়িসহ সমগ্র এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়। এতে চরম দুর্ভোগে পড়ে ওই এলাকার মানুষ।

গতকাল স্থানীয়রা বৃহস্পতিবার জানান, এ সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসছেন না জনপ্রতিনিধিরা। এতে ক্ষেতের ফসল বিনষ্ট হচ্ছে। ভেসে যাচ্ছে পুকুরের মাছ। জলাবদ্ধতা দীর্ঘস্থায়ী হলে দুর্ভোগ ভয়াবহ হবে বলেও জানান তারা। দক্ষিণ দিঘলদী ইউপি চেয়ারম্যান ইফতারুল হাসান স্বপন জানান, অপরিকল্পিতভাবে ঘরবাড়ি নির্মাণ করায় পানি নিষ্কাশন ব্যাহত হচ্ছে। ড্রেনও নির্মাণ করা যাচ্ছে না। বিষয়টি তিনি দেখছেন বলেও জানান।

অপরদিকে টানা বৃষ্টিতে বাংলাবাজার নির্মাণাধীন ব্রিজের অ্যাপ্রোচ সড়কের গাইড ওয়াল দেবে গেছে।

ঠিকাদার আখতার হোসেন জানান, দ্রুত ওই কাজ সংস্কার করা হয়। অপরদিকে শিবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন জানান, তার এলাকার এক নং ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন এলাকায় খালে বাধ থাকায় পানি নিস্কাশন হচ্ছে না। স্থানীয়রা মাছ চাষ করার জন্য ওই খালে বাঁধ দেয়। বাঁধ কেটে দেয়ার জন্য তিনি স্থানীয় প্রশাসনের কাছে দাবি জানান। অপরদিকে টানা বৃষ্টি ও ঝড়োবাতাস থাকায় মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে পানির চাপ বাড়ায় জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়।

শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১ , ৪ আষাড় ১৪২৮ ৬ জিলকদ ১৪৪২

পানি নিষ্কাশনের অভাবে বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধ বাংলাবাজার

image

ভোলা : টানা বৃষ্টিতে জলাবদ্ধ বাংলাবাজার -সংবাদ

ভোলার বাংলাবাজার এলাকায় পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় টানা বৃষ্টি হলেই ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে ঘরবাড়িসহ সমগ্র এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়। এতে চরম দুর্ভোগে পড়ে ওই এলাকার মানুষ।

গতকাল স্থানীয়রা বৃহস্পতিবার জানান, এ সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসছেন না জনপ্রতিনিধিরা। এতে ক্ষেতের ফসল বিনষ্ট হচ্ছে। ভেসে যাচ্ছে পুকুরের মাছ। জলাবদ্ধতা দীর্ঘস্থায়ী হলে দুর্ভোগ ভয়াবহ হবে বলেও জানান তারা। দক্ষিণ দিঘলদী ইউপি চেয়ারম্যান ইফতারুল হাসান স্বপন জানান, অপরিকল্পিতভাবে ঘরবাড়ি নির্মাণ করায় পানি নিষ্কাশন ব্যাহত হচ্ছে। ড্রেনও নির্মাণ করা যাচ্ছে না। বিষয়টি তিনি দেখছেন বলেও জানান।

অপরদিকে টানা বৃষ্টিতে বাংলাবাজার নির্মাণাধীন ব্রিজের অ্যাপ্রোচ সড়কের গাইড ওয়াল দেবে গেছে।

ঠিকাদার আখতার হোসেন জানান, দ্রুত ওই কাজ সংস্কার করা হয়। অপরদিকে শিবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন জানান, তার এলাকার এক নং ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন এলাকায় খালে বাধ থাকায় পানি নিস্কাশন হচ্ছে না। স্থানীয়রা মাছ চাষ করার জন্য ওই খালে বাঁধ দেয়। বাঁধ কেটে দেয়ার জন্য তিনি স্থানীয় প্রশাসনের কাছে দাবি জানান। অপরদিকে টানা বৃষ্টি ও ঝড়োবাতাস থাকায় মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে পানির চাপ বাড়ায় জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়।