পিতৃহারা মেয়ের বিয়ে দিলেন আ’লীগ নেতা

লালমনিরহাট পৌরসভার নিউ কলোনি এলাকার মাহফুজা খাতুন কবিতা নামে এক পিতাহারা মেয়েকে নিজ খরচে বিয়ে দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা ও ব্যবসায়ী সুমন খান। শুক্রবার রাতে শহরের কালিবাড়ী এলাকায় সুমন খানের বাড়িতেই সম্পন্ন হয় বিয়ের সব আনুষ্ঠাকিতা।

স্বজনরা জানান, মাহফুজা খাতুন পৌরসভার নিউ কলোনি এলাকার মৃত কবিদুল মিয়ার মেয়ে। রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার হাজিপাড়া গ্রামের আজিজার রহমানের ছেলের সঙ্গে বিয়ে হয়েছে তার।

এদিকে ৮ বছর আগে মারা যান দিন মজুর কবিদুল মিয়া। অনেক কষ্টে স্ত্রী নুর নাহার তাদের একমাত্র মেয়ে মাহফুজাকে বড় করেন। এরপর তার বিয়ের দায়িত্ব নেন লালমনিরহাট চেম্বার অব কমার্সের সহ-সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতা সুমন খান। তিনি নিজ বাড়িতে নিজ খরচে সব আনুষ্ঠানিকতা মেনেই বিয়ের আয়োজন করেন। বর বিয়েতে কোন যৌতুক না চাইলেও তিনি স্বেচ্ছায় বরকে লক্ষাধিক টাকার একটি মোটরসাইকেল উপহার দেন। কন্যাকেও সাজিয়ে দেন লক্ষাধিক টাকার সোনার গহনা দিয়ে। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা সুমন খান বলেন, টাকা পয়সা বড় কথা নয়। একটি অসহায় মেয়েকে নিজের মেয়ে মনে করে বিয়ে দিতে পেরেছি, আমার কাছে এটাই বড় পাওয়া। অসহায়দের পাশে দাঁড়ালে আল্লাহও খুশি হন। বিয়ের অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আতিকুর রহমান কুদ্দুস, যুবলীগ নেতা নুর আলমসহ অন্যান্য আওয়ামী লীগ নেতা ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

সোমবার, ২১ জুন ২০২১ , ৭ আষাঢ় ১৪২৮ ৯ জিলকদ ১৪৪২

পিতৃহারা মেয়ের বিয়ে দিলেন আ’লীগ নেতা

লালমনিরহাট পৌরসভার নিউ কলোনি এলাকার মাহফুজা খাতুন কবিতা নামে এক পিতাহারা মেয়েকে নিজ খরচে বিয়ে দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা ও ব্যবসায়ী সুমন খান। শুক্রবার রাতে শহরের কালিবাড়ী এলাকায় সুমন খানের বাড়িতেই সম্পন্ন হয় বিয়ের সব আনুষ্ঠাকিতা।

স্বজনরা জানান, মাহফুজা খাতুন পৌরসভার নিউ কলোনি এলাকার মৃত কবিদুল মিয়ার মেয়ে। রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার হাজিপাড়া গ্রামের আজিজার রহমানের ছেলের সঙ্গে বিয়ে হয়েছে তার।

এদিকে ৮ বছর আগে মারা যান দিন মজুর কবিদুল মিয়া। অনেক কষ্টে স্ত্রী নুর নাহার তাদের একমাত্র মেয়ে মাহফুজাকে বড় করেন। এরপর তার বিয়ের দায়িত্ব নেন লালমনিরহাট চেম্বার অব কমার্সের সহ-সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতা সুমন খান। তিনি নিজ বাড়িতে নিজ খরচে সব আনুষ্ঠানিকতা মেনেই বিয়ের আয়োজন করেন। বর বিয়েতে কোন যৌতুক না চাইলেও তিনি স্বেচ্ছায় বরকে লক্ষাধিক টাকার একটি মোটরসাইকেল উপহার দেন। কন্যাকেও সাজিয়ে দেন লক্ষাধিক টাকার সোনার গহনা দিয়ে। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা সুমন খান বলেন, টাকা পয়সা বড় কথা নয়। একটি অসহায় মেয়েকে নিজের মেয়ে মনে করে বিয়ে দিতে পেরেছি, আমার কাছে এটাই বড় পাওয়া। অসহায়দের পাশে দাঁড়ালে আল্লাহও খুশি হন। বিয়ের অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আতিকুর রহমান কুদ্দুস, যুবলীগ নেতা নুর আলমসহ অন্যান্য আওয়ামী লীগ নেতা ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।