উজিরপুর ইউপি ভোটে দ্বৈরথে দুই নারী প্রার্থী

আজ বরিশালের উজিরপুর উপজেলার জল্লা ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দুই নারী প্রার্থী। এর মধ্যে একজন বর্তমান অন্যজন সাবেক চেয়ারম্যান হিসেবে ওই ইউনিয়নে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী দুই নারী চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকা মার্কার প্রার্থী বেবী রানী হালদারের সমর্থকদের বিরুদ্ধে শুক্রবার সন্ধ্যায় নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর, হামলা ও ভোটারদের হুমকি দেয়ার ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন আনারস মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি উর্মিলা বাড়ৈ। জল্লা ইউনিয়নের নিজ নির্বাচনী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উর্মিলা বাড়ৈ অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে নৌকার প্রার্থী বেবী রানী হালদারের সমর্থকরা তার নির্বাচনী কার্যালয়ের সামনে এসে গণসংযোগের নামে প্রকাশ্যে ভোটারদের হুমকি দিয়েছে। ওইদিনই তার ভাড়াটিয়া বহিরাগত সন্ত্রাসী নিয়ে তার নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। তারা ২১ জুন নির্বাচনের দিন ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য হুমকি দেয়া অব্যাহত রেখেছে। ফলে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে তিনি চরম শঙ্কা প্রকাশ করেন।

উর্মিলা বাড়ৈ ২০০৪ সালে বিএনপির শাসনামলে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত এলাকার সাবেক জনপ্রিয় চেয়ারম্যান অবনী ভূষন বাড়ৈর সহধর্মিনী এবং বেবী রানী হালদার দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত জল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিশ্বজিত হালদার নান্টুর সহধর্মিনী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে বেবী রানী হালদারের একটি ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এতে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকা- না করেই টাকা ভাগাভাগির গোপন তথ্য ফাঁস হয়ে যায়।

আওয়ামী লীগের প্রতীক প্রাপ্ত ও স্বতন্ত্র দু’জন প্রার্থী ছাড়াও ওই ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন মো. নাসির উদ্দিন মল্লিক। এছাড়া সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১১ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ইউনিয়নে সর্বমোট ২০ হাজার ১৯৭ জন ভোটার রয়েছেন।

সোমবার, ২১ জুন ২০২১ , ৭ আষাঢ় ১৪২৮ ৯ জিলকদ ১৪৪২

উজিরপুর ইউপি ভোটে দ্বৈরথে দুই নারী প্রার্থী

image

আজ বরিশালের উজিরপুর উপজেলার জল্লা ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দুই নারী প্রার্থী। এর মধ্যে একজন বর্তমান অন্যজন সাবেক চেয়ারম্যান হিসেবে ওই ইউনিয়নে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী দুই নারী চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকা মার্কার প্রার্থী বেবী রানী হালদারের সমর্থকদের বিরুদ্ধে শুক্রবার সন্ধ্যায় নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর, হামলা ও ভোটারদের হুমকি দেয়ার ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন আনারস মার্কার স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি উর্মিলা বাড়ৈ। জল্লা ইউনিয়নের নিজ নির্বাচনী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উর্মিলা বাড়ৈ অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে নৌকার প্রার্থী বেবী রানী হালদারের সমর্থকরা তার নির্বাচনী কার্যালয়ের সামনে এসে গণসংযোগের নামে প্রকাশ্যে ভোটারদের হুমকি দিয়েছে। ওইদিনই তার ভাড়াটিয়া বহিরাগত সন্ত্রাসী নিয়ে তার নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। তারা ২১ জুন নির্বাচনের দিন ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য হুমকি দেয়া অব্যাহত রেখেছে। ফলে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে তিনি চরম শঙ্কা প্রকাশ করেন।

উর্মিলা বাড়ৈ ২০০৪ সালে বিএনপির শাসনামলে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত এলাকার সাবেক জনপ্রিয় চেয়ারম্যান অবনী ভূষন বাড়ৈর সহধর্মিনী এবং বেবী রানী হালদার দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত জল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিশ্বজিত হালদার নান্টুর সহধর্মিনী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে বেবী রানী হালদারের একটি ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এতে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকা- না করেই টাকা ভাগাভাগির গোপন তথ্য ফাঁস হয়ে যায়।

আওয়ামী লীগের প্রতীক প্রাপ্ত ও স্বতন্ত্র দু’জন প্রার্থী ছাড়াও ওই ইউনিয়নে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন মো. নাসির উদ্দিন মল্লিক। এছাড়া সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১১ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৩৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ইউনিয়নে সর্বমোট ২০ হাজার ১৯৭ জন ভোটার রয়েছেন।