‘খেলার মাঠে বাণিজ্যিক মার্কেট নির্মাণ চলবে না’

ধূপখোলা আমাদেরই মাঠ, আমরা এখানেই খেলব। খেলার মাঠ দখল করে বাণিজ্যিক মার্কেট নির্মাণ চলবে না। খেলার মাঠ দখলের সিদ্ধান্ত শিক্ষার্থীরা রুখে দিবে। বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনকে অতিদ্রুত এই মাঠ সংস্কার করে শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার উপযোগী করতে হবে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কর্তৃক পুরান ঢাকার ধুপখোলায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে মানববন্ধনে এই দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা।

গতকাল দুপুর ১২টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেদ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধন শেষে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

মানববন্ধনে শাখা ছাত্রলীগের সম্মেলন কমিটির আহ্বায়ক আশরাফুল আলম টিটন বলেন, যে কোন মানুষের সুস্থ থাকতে খেলাধুলা দরকার। আমাদের একটি মাত্র মাঠ, সেটিও দখল হয়ে যাচ্ছে। দখলদাররা এসব দখল করে ব্যবসা করতে যাচ্ছে। তারা পিলার দিয়েছে। আমরা বলতে চাই দ্রুত এসব তুলে নিবেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানে কিভাবে তাদের অধিকার রক্ষা করতে হয়। তাই আমরা কঠোর হওয়ার আগে আপনারা খুঁটি তুলে নিবেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক বলেন, মাঠ রক্ষার্থে যে সব পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন তা আমরা নিবো। কালকে আমাদের মেয়র মহোদয়ের সঙ্গে মাঠের বিষয়ে সরাসরি বৈঠক রয়েছে। সেখানে এ বিষয়ে সমাধান আসবে।

সোমবার, ২১ জুন ২০২১ , ৭ আষাঢ় ১৪২৮ ৯ জিলকদ ১৪৪২

‘খেলার মাঠে বাণিজ্যিক মার্কেট নির্মাণ চলবে না’

ধূপখোলা আমাদেরই মাঠ, আমরা এখানেই খেলব। খেলার মাঠ দখল করে বাণিজ্যিক মার্কেট নির্মাণ চলবে না। খেলার মাঠ দখলের সিদ্ধান্ত শিক্ষার্থীরা রুখে দিবে। বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসনকে অতিদ্রুত এই মাঠ সংস্কার করে শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার উপযোগী করতে হবে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কর্তৃক পুরান ঢাকার ধুপখোলায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ রক্ষার দাবিতে মানববন্ধনে এই দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা।

গতকাল দুপুর ১২টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেদ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধন শেষে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

মানববন্ধনে শাখা ছাত্রলীগের সম্মেলন কমিটির আহ্বায়ক আশরাফুল আলম টিটন বলেন, যে কোন মানুষের সুস্থ থাকতে খেলাধুলা দরকার। আমাদের একটি মাত্র মাঠ, সেটিও দখল হয়ে যাচ্ছে। দখলদাররা এসব দখল করে ব্যবসা করতে যাচ্ছে। তারা পিলার দিয়েছে। আমরা বলতে চাই দ্রুত এসব তুলে নিবেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানে কিভাবে তাদের অধিকার রক্ষা করতে হয়। তাই আমরা কঠোর হওয়ার আগে আপনারা খুঁটি তুলে নিবেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক বলেন, মাঠ রক্ষার্থে যে সব পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন তা আমরা নিবো। কালকে আমাদের মেয়র মহোদয়ের সঙ্গে মাঠের বিষয়ে সরাসরি বৈঠক রয়েছে। সেখানে এ বিষয়ে সমাধান আসবে।