আওয়ামী লীগ গঠনের উদ্দেশ্য পূরণ হয়েছে : তোফায়েল

সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, যে উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগ গঠিত হয়েছিল, স্বাধীন বাংলাদেশ অর্জনের মাধ্যমে সেই লক্ষ্য পূরণ হয়েছে।

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার পরও দেশে সাম্প্রদায়িক নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার কারণে হাল আমলের নেতাকর্মীরা আদর্শের চাইতে আখের গোছাতে ব্যস্ত বেশি।

গতকাল আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নির্মূল কমিটির কুমিল্লা জেলা শাখার আহ্বায়ক অধ্যাপক দীলিপ মজুমদারের সভাপতিত্বে আয়োজিত এক অনলাইন আলোজনা সভায় তারা এসব কথা বলেন।

‘আওয়ামী লীগের ৭২ বছর এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ : প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তি’। শিরোনামে এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি এবং প্রধান বক্তা ছিলেন নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সভাপতি লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু’, ‘বাংলাদেশ’ ও ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ’ প্রত্যেকটি শব্দ একে অন্যের সমর্থক। পাকিস্তান আমলে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে একটি মামলায় সোহরাওয়ার্দী সাহেব কোর্টে বলেছিলেন, ‘ইফ মুজিব ইজ ডিজঅনেস্ট, দেন দ্যা হোল ওয়ার্ল্ড ইজ ডিজঅনেস্ট’। বঙ্গবন্ধু ৬৬ সালে আওয়ামী লীগের সম্মেলন শুরু করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আমার সোনার বাংলা’ গান দিয়ে, যা বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত।’

আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন বিভিন্ন সময়ে মৌলবাদীদের সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা প্রসঙ্গে শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মতো অসাম্প্রদায়িক দল যেখানে ক্ষমতায়, সেখানে কিছুদিন আগে সুনামগঞ্জের শাল্লায় যে সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে, তা অত্যন্ত দুঃখজনক। আমাদের কিছু ভুলত্রুটি আছে, যা থেকে আমাদের শিক্ষা নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে।’

শাহরিয়ার কবির আরও বলেন, ‘প্রাপ্তি বা অর্জনের কথা যদি বলি, আওয়ামী লীগের মতো সাফল্য বিশ্বের প্রথম দশটি রাজনৈতিক দলের অর্ধেকেরও নেই। তার মতে, আওয়ামী লীগের ইতিহাস ও বাংলাদেশের ইতিহাস একে অন্যের সমার্থক।

তবে তিনি বলেন, ‘এখন যারা আওয়ামী লীগের তরুণ নেতাকর্মী তারা আওয়ামী লীগের ত্যাগ ও সংগ্রামের ইতিহাস জানে না। আওয়ামী লীগের শতকরা এক ভাগ নেতাকর্মী বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ কিংবা বঙ্গবন্ধুর অন্যতম শ্রেষ্ঠ অবদান ’৭২-এর সংবিধান পড়েছেন কিনা সন্দেহ।’

বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর দর্শন ছিল পৃথিবীর নির্যাতিত মানুষের দর্শন। জোসেফ টিটো, ইন্দিরা গান্ধী, ফিদেল ক্যাস্ট্রোর মতো অনেক বিশ্ব নেতা বঙ্গবন্ধুকে পরম শ্রদ্ধার আসনে অধিষ্ঠিত করেছেন।

তিনি আরও বলেন, জঙ্গি মৌলবাদী শক্তিকে সম্পূর্ণভাবে নির্মূল না করা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর দর্শন বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হবে না।

ওয়েবিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নির্মূল কমিটির শহীদ ভাষাসৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের পৌত্রী সমাজকর্মী আরমা দত্ত এমপি, নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সমাজকর্মী কাজী মুকুল, নির্মূল কমিটি কুমিল্লা জেলা শাখার সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান শিকদার, কুমিল্লা কোর্টের সাবেক অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক, কুমিল্লা সদরের ভাইস চেয়ারম্যান তারিকুর রহমান জুয়েল, ময়নামতি মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডা. তৃপ্তিশ ঘোষ, কুমিল্লা জেলার বিএমএ’র সাধারণ সম্পাদক ডা. আতাউর রহমান জসীম, নির্মূল কমিটির হোমনা শাখার সভাপতি মাহাবুব খন্দকারসহ কুমিল্লা জেলার নেতারা।

আরও খবর
আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত
টিকা কিনতে ৯৪ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এডিবি
সিদ্ধান্ত যথার্থ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, তবে আলোচনা চান সিইসি
ভারতের সেরা পাঁচ রপ্তানি দেশের তালিকায় বাংলাদেশ
ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারে আল্টিমেটাম সিপিবির
সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ঢাকা দখল ও দূষণমুক্ত রাখা হবে মেয়র আতিক
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কঠোর হতে অনুরোধ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের
মাদকবিরোধী অভিযানে প্রযুক্তিগত সক্ষমতা বাড়ানোর তাগিদ
বৃষ্টির কারণে এডিস মশার উপদ্রব বাড়ছে
মাকে বাঁচাতে গিয়ে বাবার অস্ত্রের আঘাতে প্রাণ হারালো ছেলে
মামলার রায় ও পর্যবেক্ষণে ‘অসঙ্গতি’, রাষ্ট্রপক্ষের আপিল দাবি

বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১ , ১০ আষাঢ় ১৪২৮ ১২ জিলকদ ১৪৪২

আওয়ামী লীগ গঠনের উদ্দেশ্য পূরণ হয়েছে : তোফায়েল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশ

সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, যে উদ্দেশ্যে আওয়ামী লীগ গঠিত হয়েছিল, স্বাধীন বাংলাদেশ অর্জনের মাধ্যমে সেই লক্ষ্য পূরণ হয়েছে।

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার পরও দেশে সাম্প্রদায়িক নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার কারণে হাল আমলের নেতাকর্মীরা আদর্শের চাইতে আখের গোছাতে ব্যস্ত বেশি।

গতকাল আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নির্মূল কমিটির কুমিল্লা জেলা শাখার আহ্বায়ক অধ্যাপক দীলিপ মজুমদারের সভাপতিত্বে আয়োজিত এক অনলাইন আলোজনা সভায় তারা এসব কথা বলেন।

‘আওয়ামী লীগের ৭২ বছর এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ : প্রাপ্তি ও অপ্রাপ্তি’। শিরোনামে এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমপি এবং প্রধান বক্তা ছিলেন নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সভাপতি লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু’, ‘বাংলাদেশ’ ও ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ’ প্রত্যেকটি শব্দ একে অন্যের সমর্থক। পাকিস্তান আমলে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে একটি মামলায় সোহরাওয়ার্দী সাহেব কোর্টে বলেছিলেন, ‘ইফ মুজিব ইজ ডিজঅনেস্ট, দেন দ্যা হোল ওয়ার্ল্ড ইজ ডিজঅনেস্ট’। বঙ্গবন্ধু ৬৬ সালে আওয়ামী লীগের সম্মেলন শুরু করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আমার সোনার বাংলা’ গান দিয়ে, যা বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত।’

আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন বিভিন্ন সময়ে মৌলবাদীদের সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা প্রসঙ্গে শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মতো অসাম্প্রদায়িক দল যেখানে ক্ষমতায়, সেখানে কিছুদিন আগে সুনামগঞ্জের শাল্লায় যে সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে, তা অত্যন্ত দুঃখজনক। আমাদের কিছু ভুলত্রুটি আছে, যা থেকে আমাদের শিক্ষা নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে।’

শাহরিয়ার কবির আরও বলেন, ‘প্রাপ্তি বা অর্জনের কথা যদি বলি, আওয়ামী লীগের মতো সাফল্য বিশ্বের প্রথম দশটি রাজনৈতিক দলের অর্ধেকেরও নেই। তার মতে, আওয়ামী লীগের ইতিহাস ও বাংলাদেশের ইতিহাস একে অন্যের সমার্থক।

তবে তিনি বলেন, ‘এখন যারা আওয়ামী লীগের তরুণ নেতাকর্মী তারা আওয়ামী লীগের ত্যাগ ও সংগ্রামের ইতিহাস জানে না। আওয়ামী লীগের শতকরা এক ভাগ নেতাকর্মী বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ কিংবা বঙ্গবন্ধুর অন্যতম শ্রেষ্ঠ অবদান ’৭২-এর সংবিধান পড়েছেন কিনা সন্দেহ।’

বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর দর্শন ছিল পৃথিবীর নির্যাতিত মানুষের দর্শন। জোসেফ টিটো, ইন্দিরা গান্ধী, ফিদেল ক্যাস্ট্রোর মতো অনেক বিশ্ব নেতা বঙ্গবন্ধুকে পরম শ্রদ্ধার আসনে অধিষ্ঠিত করেছেন।

তিনি আরও বলেন, জঙ্গি মৌলবাদী শক্তিকে সম্পূর্ণভাবে নির্মূল না করা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর দর্শন বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হবে না।

ওয়েবিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নির্মূল কমিটির শহীদ ভাষাসৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের পৌত্রী সমাজকর্মী আরমা দত্ত এমপি, নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সমাজকর্মী কাজী মুকুল, নির্মূল কমিটি কুমিল্লা জেলা শাখার সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাসুদুর রহমান শিকদার, কুমিল্লা কোর্টের সাবেক অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট গোলাম ফারুক, কুমিল্লা সদরের ভাইস চেয়ারম্যান তারিকুর রহমান জুয়েল, ময়নামতি মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডা. তৃপ্তিশ ঘোষ, কুমিল্লা জেলার বিএমএ’র সাধারণ সম্পাদক ডা. আতাউর রহমান জসীম, নির্মূল কমিটির হোমনা শাখার সভাপতি মাহাবুব খন্দকারসহ কুমিল্লা জেলার নেতারা।