আশ্বাসই সার, মেলেনা বিধবা-বয়স্ক ভাতার কার্ড রোকেয়ার

রায়পুরা উপজেলার আমিরগঞ্জ ইউপির বাসিন্দা রোকেয়া বেগম । বয়স ৬৪। ভাগ্যে জোটেনি বয়স্ক বা বিধবা ভাতার একটি কার্ড। স্বামী হারা রোকেয়া বেগম এই বৃদ্ধ বয়সে অর্থের অভাবে নানা সংকটে ভূগছেন। ঠিকমত হাটাচলা করতে পারছেন না। বয়সের ভারে রোগে শোকে তিনি ভারাক্রান্ত । চিকিৎসা তো দুরের কথা তিন বেলা খাবার জোটানোও তার জন্য কষ্টকর। নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার আমীরগঞ্জ ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা রোকেয়া বেগম। এই বৃদ্ধ বয়সে বেঁচে থাকার জন্য তিনি একটি বয়স্ক ভাতা কার্ডের জন্য ঘুরেছেন জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে। শুধু আশ্বাসই পাচ্ছেন। কার্ডের ব্যবস্থা করে দেননি কেউ। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী বয়স্ক ভাতা পাওয়ার ক্ষেত্রে নারীর বয়স সর্বনিম্ন ৬২ বছর। সে অনুযায়ী রোকেয়া বেগম বয়স্ক ভাতা কার্ডের যোগ্য । এলাকাবাসীরা জানান, প্রায় ২০ বছর আগে রোকেয়া বেগমের স্বামী আব্দুল আজিজ মোল্লা মারা যান। স্বামীর সঞ্চয় বলতে তেমন কিছু ছিলনা। তার নিজের কোনো সন্তান নেই। স্বামী মারা যাওয়ার পর করিমগঞ্জ গ্রামে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেন। এখন পযর্ন্ত তিনি সেখানেই বসবাস করতেছেন। সে নিজে কোনো উপর্জান করতে পারেনা। মানুষের সাহায্য সহযোগিতায় কোনো রকম বেঁচে আছেন। বৃদ্ধা রোকেয়া বেগম বলেন, শরীরে শক্তি পাইনা। কোনো কাজও করতে পারিনা। বিভিন্ন রোগে শোকে ভূগছি। এখন আর ঠিকমত হাটাচলা করতে পারিনা। আমি একটি কার্ডের জন্য চেয়ারম্যান মেম্বারদের দ্বারে দ্বারে গিয়েছি কিন্তু কেউ আমাকে একটি কার্ড করে দেয়নি। আমীরগঞ্জ ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কবির হোসেন বলেন, বর্তমানে বয়স্ক ভাতা কার্ডের কোনো বরাদ্দ নেই । বরাদ্দ আসলে দেওয়া হবে। রায়পুরা উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো : খলিলুর রহমান বলেন, বয়স্ক ভাতা কার্ডের নতুন কোনো বরাদ্দ নেই।

রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১ , ০১ কার্তিক ১৪২৮ ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

আশ্বাসই সার, মেলেনা বিধবা-বয়স্ক ভাতার কার্ড রোকেয়ার

প্রতিনিধি, রায়পুরা ( নরসিংদী )

image

রায়পুরা উপজেলার আমিরগঞ্জ ইউপির বাসিন্দা রোকেয়া বেগম । বয়স ৬৪। ভাগ্যে জোটেনি বয়স্ক বা বিধবা ভাতার একটি কার্ড। স্বামী হারা রোকেয়া বেগম এই বৃদ্ধ বয়সে অর্থের অভাবে নানা সংকটে ভূগছেন। ঠিকমত হাটাচলা করতে পারছেন না। বয়সের ভারে রোগে শোকে তিনি ভারাক্রান্ত । চিকিৎসা তো দুরের কথা তিন বেলা খাবার জোটানোও তার জন্য কষ্টকর। নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার আমীরগঞ্জ ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা রোকেয়া বেগম। এই বৃদ্ধ বয়সে বেঁচে থাকার জন্য তিনি একটি বয়স্ক ভাতা কার্ডের জন্য ঘুরেছেন জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে। শুধু আশ্বাসই পাচ্ছেন। কার্ডের ব্যবস্থা করে দেননি কেউ। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী বয়স্ক ভাতা পাওয়ার ক্ষেত্রে নারীর বয়স সর্বনিম্ন ৬২ বছর। সে অনুযায়ী রোকেয়া বেগম বয়স্ক ভাতা কার্ডের যোগ্য । এলাকাবাসীরা জানান, প্রায় ২০ বছর আগে রোকেয়া বেগমের স্বামী আব্দুল আজিজ মোল্লা মারা যান। স্বামীর সঞ্চয় বলতে তেমন কিছু ছিলনা। তার নিজের কোনো সন্তান নেই। স্বামী মারা যাওয়ার পর করিমগঞ্জ গ্রামে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেন। এখন পযর্ন্ত তিনি সেখানেই বসবাস করতেছেন। সে নিজে কোনো উপর্জান করতে পারেনা। মানুষের সাহায্য সহযোগিতায় কোনো রকম বেঁচে আছেন। বৃদ্ধা রোকেয়া বেগম বলেন, শরীরে শক্তি পাইনা। কোনো কাজও করতে পারিনা। বিভিন্ন রোগে শোকে ভূগছি। এখন আর ঠিকমত হাটাচলা করতে পারিনা। আমি একটি কার্ডের জন্য চেয়ারম্যান মেম্বারদের দ্বারে দ্বারে গিয়েছি কিন্তু কেউ আমাকে একটি কার্ড করে দেয়নি। আমীরগঞ্জ ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কবির হোসেন বলেন, বর্তমানে বয়স্ক ভাতা কার্ডের কোনো বরাদ্দ নেই । বরাদ্দ আসলে দেওয়া হবে। রায়পুরা উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো : খলিলুর রহমান বলেন, বয়স্ক ভাতা কার্ডের নতুন কোনো বরাদ্দ নেই।