চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত আবুধাবি

করোনার কারণে ভারত থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাটিতে সরিয়ে নেয়া আইপিএল চতুর্দশ আসর সফলভাবে শেষ হলো শুক্রবার রাতে। এবার টি-২০ বিশ্বকাপ সফলভাবে আয়োজনের লক্ষ্য এমিরেটস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি)। বিশ্বকাপ আয়োজক ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। তবে করোনার কারণে তা ভারতের পরিবর্তে মরুরদেশে আয়োজনের সিদ্বান্ত নেয় বিসিসিআই ও আইসিসি। যদিও সংযুক্ত আরব আমিরাতে হবে টুর্নামেন্টের মূল পর্ব। বাছাইপর্ব অনুষ্ঠিত হবে ওমানে।

এ বছরের ৯ এপ্রিল থেকে ভারতের মাটিতে শুরু হয়েছিল আইপিএলের চর্তুদশ আসর। করোনার কারণে ২৯ ম্যাচ পর স্থগিত হয় আসরটি। আইপিএলের চর্তুদশ আসরকে ঘিরে ধরে অন্ধকার। শেষমেষ আসরের বাকি ৩১ ম্যাচ শেষ করতে মরুরদেশে পা রাখে বিসিসিআই। ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে মরুর দেশে শুরু হয় আইপিএলের বাকি অংশ। শেষ পর্যন্ত সফলভাবে আইপিএলের বাকি অংশ শেষ করলো ইসিবি। শুক্রবার চেন্নাই সুপার কিংস ও কোলকাতা নাইট রাইডার্স ম্যাচ দিয়ে শেষ হলো আইপিএল। আইপিএলের সফল আয়োজন শেষে এবার টি-২০ বিশ্বকাপের মতো বড় আসর আয়োজনের চ্যালেঞ্জ ইসিবির সামনে।

আইপিএলে ভেন্যু আবুধাবির জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেটে ব্যাটার-বোলারদের সাফল্য ছিল চোখে পড়ার মতো। এ মাঠে ব্যাটাররা রান করেছেন ২৪৭৫। বোলাররা নিয়েছেন ৯১ উইকেট। মোট ১৫ হাজার ২শ’ সমর্থক নিরাপদে টুর্নামেন্টের ম্যাচগুলো দেখেছেন। ভেন্যুর ধারণক্ষমতা ছিল ২ হাজার। আট ম্যাচেই ৯৫ শতাংশ সমর্থক গ্যালারিতে উপস্থিত ছিল। টুর্নামেন্টের সঙ্গে জড়িত সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে, প্রতিটি খেলার জন্য ৫০ টিরও বেশি স্বেচ্ছাসেবক এবং মার্শাল ছিল। সেইসঙ্গে আবুধাবি পুলিশের ৫০ জন সদস্য এবং আরও ৪৭ জন আবুধাবি ক্রিকেট স্টাফ সদস্য ছিলেন।

আবুধাবিকে নিজেদের হোম গ্রাউন্ড বানিয়ে ফেলেছিল কোলকাতা নাইট রাইডার্স এবং মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। এই ভেন্যুতে ১৫০ ঘণ্টারও বেশি অনুশীলন সেশন করেছিল কলকাতা ও মুম্বাই।

আবুধাবি ক্রিকেটের প্রধান নির্বাহী ম্যাট বাউচার বলেন, ‘আবুধাবিতে আটটি ভিভো আইপিএল ম্যাচ ছিল অবিশ্বাস্য এবং জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আমাদের ক্রিকেট ভক্তদের ফিরতে দেখাটাও ছিল অসাধারণ। আইসিসি পুরুষ টি-২০ বিশ্বকাপ সফলভাবে আয়োজনের বদ্ধপরিকর আবুধাবি ক্রিকেট।’

বাছাইপর্ব দিয়ে আজ থেকে শুরু হচ্ছে টি-২০ বিশ্বকাপ। দিনের প্রথম ম্যাচে লড়বে স্বাগতিক ওমান ও পাপুয়া নিউগিনি। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও স্কটল্যান্ড।

রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১ , ০১ কার্তিক ১৪২৮ ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত আবুধাবি

ক্রীড়া বার্তা পরিবেশক

করোনার কারণে ভারত থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতের মাটিতে সরিয়ে নেয়া আইপিএল চতুর্দশ আসর সফলভাবে শেষ হলো শুক্রবার রাতে। এবার টি-২০ বিশ্বকাপ সফলভাবে আয়োজনের লক্ষ্য এমিরেটস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি)। বিশ্বকাপ আয়োজক ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। তবে করোনার কারণে তা ভারতের পরিবর্তে মরুরদেশে আয়োজনের সিদ্বান্ত নেয় বিসিসিআই ও আইসিসি। যদিও সংযুক্ত আরব আমিরাতে হবে টুর্নামেন্টের মূল পর্ব। বাছাইপর্ব অনুষ্ঠিত হবে ওমানে।

এ বছরের ৯ এপ্রিল থেকে ভারতের মাটিতে শুরু হয়েছিল আইপিএলের চর্তুদশ আসর। করোনার কারণে ২৯ ম্যাচ পর স্থগিত হয় আসরটি। আইপিএলের চর্তুদশ আসরকে ঘিরে ধরে অন্ধকার। শেষমেষ আসরের বাকি ৩১ ম্যাচ শেষ করতে মরুরদেশে পা রাখে বিসিসিআই। ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে মরুর দেশে শুরু হয় আইপিএলের বাকি অংশ। শেষ পর্যন্ত সফলভাবে আইপিএলের বাকি অংশ শেষ করলো ইসিবি। শুক্রবার চেন্নাই সুপার কিংস ও কোলকাতা নাইট রাইডার্স ম্যাচ দিয়ে শেষ হলো আইপিএল। আইপিএলের সফল আয়োজন শেষে এবার টি-২০ বিশ্বকাপের মতো বড় আসর আয়োজনের চ্যালেঞ্জ ইসিবির সামনে।

আইপিএলে ভেন্যু আবুধাবির জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেটে ব্যাটার-বোলারদের সাফল্য ছিল চোখে পড়ার মতো। এ মাঠে ব্যাটাররা রান করেছেন ২৪৭৫। বোলাররা নিয়েছেন ৯১ উইকেট। মোট ১৫ হাজার ২শ’ সমর্থক নিরাপদে টুর্নামেন্টের ম্যাচগুলো দেখেছেন। ভেন্যুর ধারণক্ষমতা ছিল ২ হাজার। আট ম্যাচেই ৯৫ শতাংশ সমর্থক গ্যালারিতে উপস্থিত ছিল। টুর্নামেন্টের সঙ্গে জড়িত সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে, প্রতিটি খেলার জন্য ৫০ টিরও বেশি স্বেচ্ছাসেবক এবং মার্শাল ছিল। সেইসঙ্গে আবুধাবি পুলিশের ৫০ জন সদস্য এবং আরও ৪৭ জন আবুধাবি ক্রিকেট স্টাফ সদস্য ছিলেন।

আবুধাবিকে নিজেদের হোম গ্রাউন্ড বানিয়ে ফেলেছিল কোলকাতা নাইট রাইডার্স এবং মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। এই ভেন্যুতে ১৫০ ঘণ্টারও বেশি অনুশীলন সেশন করেছিল কলকাতা ও মুম্বাই।

আবুধাবি ক্রিকেটের প্রধান নির্বাহী ম্যাট বাউচার বলেন, ‘আবুধাবিতে আটটি ভিভো আইপিএল ম্যাচ ছিল অবিশ্বাস্য এবং জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আমাদের ক্রিকেট ভক্তদের ফিরতে দেখাটাও ছিল অসাধারণ। আইসিসি পুরুষ টি-২০ বিশ্বকাপ সফলভাবে আয়োজনের বদ্ধপরিকর আবুধাবি ক্রিকেট।’

বাছাইপর্ব দিয়ে আজ থেকে শুরু হচ্ছে টি-২০ বিশ্বকাপ। দিনের প্রথম ম্যাচে লড়বে স্বাগতিক ওমান ও পাপুয়া নিউগিনি। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও স্কটল্যান্ড।