আফগান ইস্যুতে পাঁচ দেশ নিয়ে ভারতের বৈঠক আয়োজন

তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দুশ্চিন্তা কাটছে না ভারতের। এ উদ্বেগের ভিত্তি হলো তালেবানদের হাত ধরে আফগানিস্তানে মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে ভারতবিরোধী শক্তি। ভারতের গোয়েন্দা তথ্যের খবর আফগানিস্তানের পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। এমন বাস্তবতায় আফগানিস্তান ইস্যুতে আলোচনার জন্য পাকিস্তানসহ পাঁচ দেশকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত। আগামী মাসে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস।

আফগানিস্তানে ক্ষমতার পালাবদল একদিকে তালেবানের ওপর পাকিস্তানের প্রভাব, অন্যদিকে আফগানিস্তানে দিল্লির বিপুল অঙ্কের বিনিয়োগ এখন হুমকির মুখে। অর্থাৎ শুধু রাজনৈতিক নয়, বরং অর্থনৈতিকভাবেও উদ্বেগ বেড়েছে দিল্লির। মূলত আফগানিস্তানের প্রতিবেশী দেশগুলোকে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পর্যায়ের এ বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এর মধ্যে পাকিস্তান ছাড়া বাকি দেশগুলো হচ্ছেÑ চীন, রাশিয়া, ইরান ও তাজিকিস্তান। আগামী ১০ থেকে ১১ নভেম্বর এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকেই জাতিসংঘসহ নানা ফোরামে এ নিয়ে কথা বলেছে ভারত। রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনকে ফোন করে ৪৫ মিনিট ধরে কথা বলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ ইস্যুতে অন্য বিশ্বনেতাদের সঙ্গেও কথা বলেছেন তিনি। তবে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর আফগান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য ভারতের উদ্যোগে বৈঠক আহ্বানের ঘটনা এটিই প্রথম। এমনকি নতুন আফগান সরকারের ওপর যেই পাকিস্তানের প্রভাব নিয়ে উদ্বিগ্ন দিল্লি তাদেরও এতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

এ বৈঠকে আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালেবান সরকারকে আমন্ত্রণ জানানোর কোনও পরিকল্পনা ভারতের নেই।

মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১ , ০৩ কার্তিক ১৪২৮ ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

আফগান ইস্যুতে পাঁচ দেশ নিয়ে ভারতের বৈঠক আয়োজন

তালেবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দুশ্চিন্তা কাটছে না ভারতের। এ উদ্বেগের ভিত্তি হলো তালেবানদের হাত ধরে আফগানিস্তানে মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে ভারতবিরোধী শক্তি। ভারতের গোয়েন্দা তথ্যের খবর আফগানিস্তানের পরিস্থিতি উদ্বেগজনক। এমন বাস্তবতায় আফগানিস্তান ইস্যুতে আলোচনার জন্য পাকিস্তানসহ পাঁচ দেশকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত। আগামী মাসে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস।

আফগানিস্তানে ক্ষমতার পালাবদল একদিকে তালেবানের ওপর পাকিস্তানের প্রভাব, অন্যদিকে আফগানিস্তানে দিল্লির বিপুল অঙ্কের বিনিয়োগ এখন হুমকির মুখে। অর্থাৎ শুধু রাজনৈতিক নয়, বরং অর্থনৈতিকভাবেও উদ্বেগ বেড়েছে দিল্লির। মূলত আফগানিস্তানের প্রতিবেশী দেশগুলোকে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পর্যায়ের এ বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এর মধ্যে পাকিস্তান ছাড়া বাকি দেশগুলো হচ্ছেÑ চীন, রাশিয়া, ইরান ও তাজিকিস্তান। আগামী ১০ থেকে ১১ নভেম্বর এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকেই জাতিসংঘসহ নানা ফোরামে এ নিয়ে কথা বলেছে ভারত। রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনকে ফোন করে ৪৫ মিনিট ধরে কথা বলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ ইস্যুতে অন্য বিশ্বনেতাদের সঙ্গেও কথা বলেছেন তিনি। তবে তালেবান ক্ষমতায় আসার পর আফগান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য ভারতের উদ্যোগে বৈঠক আহ্বানের ঘটনা এটিই প্রথম। এমনকি নতুন আফগান সরকারের ওপর যেই পাকিস্তানের প্রভাব নিয়ে উদ্বিগ্ন দিল্লি তাদেরও এতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

এ বৈঠকে আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালেবান সরকারকে আমন্ত্রণ জানানোর কোনও পরিকল্পনা ভারতের নেই।