একাধিক প্রস্তাব নিয়ে বাংলাদেশ-ভারত নৌ-সচিব বৈঠক আজ

কক্সবাজারকে পোর্ট অব কলভুক্ত করা ও তৃতীয় দেশে পণ্য রপ্তানির সুযোগ তৈরির প্রস্তাবসহ একাধিক বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ-ভারতের নৌ-সচিব পর্যায়ের বৈঠক আজ। তিন দিনব্যাপী এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে ভারতের নয়াদিল্লিতে। বৈঠকে অংশ নিতে নৌ-সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে ২১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ভারত গেছেন।

নৌ-মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এবার বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে নৌ-সচিব পর্যায়ের ২১তম স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠক এবং দ্বিতীয় ইন্টার গভার্নমেন্টাল

কমিটির বৈঠক নয়াদিল্লীতে অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার থেকে শুরু শুক্রবার চলবে এই বৈঠক। নৌ-সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী দুই দেশের সচিব পর্যায়ের বৈঠক এবং ইন্টার গভার্নমেন্টাল কমিটির বৈঠকে নেতৃত্ব দেবেন।

প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট অ্যান্ড ট্রেড (পিআইডব্লিউটিটি)-এর আওতাধীন ২১তম স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকে নেতৃত্ব দেবেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সংস্থা-১) এ কে এম শামিমুল হক ছিদ্দিকী।

নৌ-মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বৈঠকে উপকূলীয় জাহাজ চলাচল চুক্তির (সিএসএ) আওতায় কক্সবাজার ও নারায়ণগঞ্জের বেসরকারি কনটেইনার টার্মিনাল সামিট অ্যালায়েন্স বন্দরকে (এসআইপিএল) ‘পোর্ট অব কল’ভুক্ত করার প্রস্তাব করেছে দেশটি।

বৈঠকে অংশ নেয়ার আগে সচিবালয় নৌ-সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘সচিব পর্যায়ের বৈঠকে দুই দেশের এজেন্ডায় কক্সবাজারকে পোর্ট অব কলভুক্ত করার প্রস্তাব রয়েছে। আমরা কক্সবাজারের অবকাঠামোগত বিষয় তুলে ধরা হবে। এটি কতটুকু কাজে লাগবে, কী ধরনের সুবিধা পাওয়া যাবে- সেটা বিবেচনায় রেখে এ বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসতে হবে। এছাড়া তৃতীয় দেশে পণ্য রপ্তানির সুযোগ তৈরিতে চুক্তি সংশোধনের বিষয়ে ভারতের প্রস্তাব বৈঠকে কীভাবে উপস্থাপন করে এবং কী সুবিধা পাওয়া যাবে- তা বিবেচনায় রেখে আলোচনা করা হবে।’

এছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশ পক্ষ থেকে নৌপথের যাত্রী, পর্যটক ও নাবিকদের ভারতে প্রবেশে অন অ্যারাইভাল ভিসা দেয়ার প্রস্তাব করা হবে। দুই দেশের নাবিকদের পারস্পরিক প্রশিক্ষণ, বাংলাদেশি জাহাজ ভারতের অভ্যন্তরে চলাচল প্রক্রিয়া সহজ করাসহ ১১টি বিষয় আলোচনা করা হবে বলে নৌ-মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়।

বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১ , ০৪ কার্তিক ১৪২৮ ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

একাধিক প্রস্তাব নিয়ে বাংলাদেশ-ভারত নৌ-সচিব বৈঠক আজ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

কক্সবাজারকে পোর্ট অব কলভুক্ত করা ও তৃতীয় দেশে পণ্য রপ্তানির সুযোগ তৈরির প্রস্তাবসহ একাধিক বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ-ভারতের নৌ-সচিব পর্যায়ের বৈঠক আজ। তিন দিনব্যাপী এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে ভারতের নয়াদিল্লিতে। বৈঠকে অংশ নিতে নৌ-সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে ২১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ভারত গেছেন।

নৌ-মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এবার বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে নৌ-সচিব পর্যায়ের ২১তম স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠক এবং দ্বিতীয় ইন্টার গভার্নমেন্টাল

কমিটির বৈঠক নয়াদিল্লীতে অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার থেকে শুরু শুক্রবার চলবে এই বৈঠক। নৌ-সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী দুই দেশের সচিব পর্যায়ের বৈঠক এবং ইন্টার গভার্নমেন্টাল কমিটির বৈঠকে নেতৃত্ব দেবেন।

প্রটোকল অন ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রানজিট অ্যান্ড ট্রেড (পিআইডব্লিউটিটি)-এর আওতাধীন ২১তম স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকে নেতৃত্ব দেবেন নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সংস্থা-১) এ কে এম শামিমুল হক ছিদ্দিকী।

নৌ-মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বৈঠকে উপকূলীয় জাহাজ চলাচল চুক্তির (সিএসএ) আওতায় কক্সবাজার ও নারায়ণগঞ্জের বেসরকারি কনটেইনার টার্মিনাল সামিট অ্যালায়েন্স বন্দরকে (এসআইপিএল) ‘পোর্ট অব কল’ভুক্ত করার প্রস্তাব করেছে দেশটি।

বৈঠকে অংশ নেয়ার আগে সচিবালয় নৌ-সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘সচিব পর্যায়ের বৈঠকে দুই দেশের এজেন্ডায় কক্সবাজারকে পোর্ট অব কলভুক্ত করার প্রস্তাব রয়েছে। আমরা কক্সবাজারের অবকাঠামোগত বিষয় তুলে ধরা হবে। এটি কতটুকু কাজে লাগবে, কী ধরনের সুবিধা পাওয়া যাবে- সেটা বিবেচনায় রেখে এ বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসতে হবে। এছাড়া তৃতীয় দেশে পণ্য রপ্তানির সুযোগ তৈরিতে চুক্তি সংশোধনের বিষয়ে ভারতের প্রস্তাব বৈঠকে কীভাবে উপস্থাপন করে এবং কী সুবিধা পাওয়া যাবে- তা বিবেচনায় রেখে আলোচনা করা হবে।’

এছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশ পক্ষ থেকে নৌপথের যাত্রী, পর্যটক ও নাবিকদের ভারতে প্রবেশে অন অ্যারাইভাল ভিসা দেয়ার প্রস্তাব করা হবে। দুই দেশের নাবিকদের পারস্পরিক প্রশিক্ষণ, বাংলাদেশি জাহাজ ভারতের অভ্যন্তরে চলাচল প্রক্রিয়া সহজ করাসহ ১১টি বিষয় আলোচনা করা হবে বলে নৌ-মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়।