কোন মোবাইল সেট বন্ধ হবে না টেলিযোগাযোগমন্ত্রী

অবৈধ হ্যান্ডসেট বন্ধের প্রক্রিয়া শুরুর কথা চলতি অক্টোবর মাস থেকে থাকলেও ‘মানুষের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে’ নেটওয়ার্কে যুক্ত কোন হ্যান্ডসেটই আপাতত বন্ধ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ গত বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিকে পাঠিয়েছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গতকাল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘প্রক্রিয়াটি চালুর পর অনেক মানুষ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। বাজারে বিক্রি হওয়া বেশিরভাগ হ্যান্ডসেট হলো ফিচার ফোন। বেশিরভাগ সাধারণ গ্রাহক জানেন না. কীভাবে হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর যাচাই করতে হবে।’ জনগণের যাতে ভোগান্তি না হয়, সে জন্য নেটওয়ার্কে যুক্ত থাকা কোন মোবাইল যাতে বন্ধ না হয়, বিটিআরসিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

এর আগে, ৩০ সেপ্টেম্বর এক বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিটিআরসি জানিয়েছিল, ১ জুলাই ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি রেজিস্ট্রার (এনইআইআর)-এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ১ অক্টোবর থেকে নেটওয়ার্কে নতুনভাবে যুক্ত সব অবৈধ হ্যান্ডসেটের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। সেই সঙ্গে কোন আমদানিকারক বা স্থানীয়ভাবে মোবাইল ফোন হ্যান্ডসেট সংযোজন ও উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে অবৈধ হ্যান্ডসেট উৎপাদন বা আমদানি না করতে এবং কোন বিক্রেতাকে অবৈধ হ্যান্ডসেট বিক্রি না করতেও বলা হয়।

কোন বিক্রেতা অবৈধ হ্যান্ডসেট বিক্রি করলে ক্রেতার দাবি অনুযায়ী হ্যান্ডসেটের দাম ফেরত দিতে হবে। পাশাপাশি টেলিযোগাযোগ আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও সতর্ক করে দেয়া হয়।

ক্রেতাদের মোবাইল হ্যান্ডসেট কেনার আগে আসল কি না, তা যাচাই করে নিতে বলা হয়। সেজন্য মেসেজ অপশন থেকে কণউ এবং ১৫ ডিজিটের ওগঊও নম্বর লিখে (যেমন কণউ ১২৩৪৫৬৭৮৯০১২৩৪৫) ১৬০০২ নম্বরে পাঠাতে বলা হয়। এছাড়া বৈধভাবে বিদেশ থেকে ব্যক্তিগতভাবে আনা হ্যান্ডসেট ব্যবহারের আগে www.neir.btrc.gov.bd ওয়েবসাইটের মাধ্যমে নিবন্ধন করিয়ে নিতে বলা হয়।

অবৈধ পথে দেশে আসা হ্যান্ডসেটের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এনইআইআরের মাধ্যমে মোবাইলের ডাটাবেইজ করা হয়েছে। কোন মোবাইল বৈধ পথে আর কোনগুলো অবৈধপথে দেশে আসছে তা দেখবে এনবিআর। আমরা দেখছি নেটওয়ার্কে যুক্ত থাকার পরে মোবাইল বন্ধ করে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরুর পর অনেক মানুষ ভোগান্তিতে পড়ছেন।’

এনইআইআর প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ডেটাবেইজ ব্যবহার করে রাজস্ব ফাঁকি রোধ করতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) চাইলে বৈধ-অবৈধ ফোন সম্পর্কে বিটিআরসি তথ্য দিতে পারবে বলে জানান টেলিযোগাযোগমন্ত্রী।

শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১ , ০৭ কার্তিক ১৪২৮ ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

কোন মোবাইল সেট বন্ধ হবে না টেলিযোগাযোগমন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

অবৈধ হ্যান্ডসেট বন্ধের প্রক্রিয়া শুরুর কথা চলতি অক্টোবর মাস থেকে থাকলেও ‘মানুষের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে’ নেটওয়ার্কে যুক্ত কোন হ্যান্ডসেটই আপাতত বন্ধ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ গত বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিকে পাঠিয়েছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গতকাল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘প্রক্রিয়াটি চালুর পর অনেক মানুষ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। বাজারে বিক্রি হওয়া বেশিরভাগ হ্যান্ডসেট হলো ফিচার ফোন। বেশিরভাগ সাধারণ গ্রাহক জানেন না. কীভাবে হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর যাচাই করতে হবে।’ জনগণের যাতে ভোগান্তি না হয়, সে জন্য নেটওয়ার্কে যুক্ত থাকা কোন মোবাইল যাতে বন্ধ না হয়, বিটিআরসিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

এর আগে, ৩০ সেপ্টেম্বর এক বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিটিআরসি জানিয়েছিল, ১ জুলাই ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি রেজিস্ট্রার (এনইআইআর)-এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ১ অক্টোবর থেকে নেটওয়ার্কে নতুনভাবে যুক্ত সব অবৈধ হ্যান্ডসেটের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। সেই সঙ্গে কোন আমদানিকারক বা স্থানীয়ভাবে মোবাইল ফোন হ্যান্ডসেট সংযোজন ও উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানকে অবৈধ হ্যান্ডসেট উৎপাদন বা আমদানি না করতে এবং কোন বিক্রেতাকে অবৈধ হ্যান্ডসেট বিক্রি না করতেও বলা হয়।

কোন বিক্রেতা অবৈধ হ্যান্ডসেট বিক্রি করলে ক্রেতার দাবি অনুযায়ী হ্যান্ডসেটের দাম ফেরত দিতে হবে। পাশাপাশি টেলিযোগাযোগ আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও সতর্ক করে দেয়া হয়।

ক্রেতাদের মোবাইল হ্যান্ডসেট কেনার আগে আসল কি না, তা যাচাই করে নিতে বলা হয়। সেজন্য মেসেজ অপশন থেকে কণউ এবং ১৫ ডিজিটের ওগঊও নম্বর লিখে (যেমন কণউ ১২৩৪৫৬৭৮৯০১২৩৪৫) ১৬০০২ নম্বরে পাঠাতে বলা হয়। এছাড়া বৈধভাবে বিদেশ থেকে ব্যক্তিগতভাবে আনা হ্যান্ডসেট ব্যবহারের আগে www.neir.btrc.gov.bd ওয়েবসাইটের মাধ্যমে নিবন্ধন করিয়ে নিতে বলা হয়।

অবৈধ পথে দেশে আসা হ্যান্ডসেটের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এনইআইআরের মাধ্যমে মোবাইলের ডাটাবেইজ করা হয়েছে। কোন মোবাইল বৈধ পথে আর কোনগুলো অবৈধপথে দেশে আসছে তা দেখবে এনবিআর। আমরা দেখছি নেটওয়ার্কে যুক্ত থাকার পরে মোবাইল বন্ধ করে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরুর পর অনেক মানুষ ভোগান্তিতে পড়ছেন।’

এনইআইআর প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ডেটাবেইজ ব্যবহার করে রাজস্ব ফাঁকি রোধ করতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) চাইলে বৈধ-অবৈধ ফোন সম্পর্কে বিটিআরসি তথ্য দিতে পারবে বলে জানান টেলিযোগাযোগমন্ত্রী।