শ্রীলঙ্কার ‘জুজু’ সাকিব-মোস্তাফিজ

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে শ্রীলঙ্কা এসেছে সুপার টুয়েলভে। বাংলাদেশ একই মঞ্চে উঠলেও প্রথম পর্বে ধাক্কা হজম করতে হয়েছিল স্কটল্যান্ডের কাছে হেরে। সেই হারের ধাক্কা সামলে ওমান ও পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে রানার্সআপ হয়ে বাংলাদেশও সুপার টুয়েলভে। ঐতিহাসিক শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রোববার এশিয়ার দুই দল মুখোমুখি হচ্ছে সুপার টুয়েলভে নিজেদের প্রথম ম্যাচে। বর্তমান পারফরম্যান্স এবং বৈশ্বিক ক্রিকেটের মঞ্চে পরিসংখ্যান বিবেচনায় শ্রীলঙ্কাকেই এগিয়ে রাখতে হবে। তবে দ্বীপরাষ্ট্রের ভয় শারজার মন্থর উইকেট এবং সাকিব আল হাসান জুজু। শুধু সাকিবই নন, মোস্তাফিজকেও বেশ সমীহ করছে শ্রীলঙ্কা।

শারজার উইকেট এখন অনেকটাই স্পিনবান্ধব। উইকেটে পুরোনো ধার নেই। বল ব্যাটে আসে থেমে থেমে। হাই স্কোরিং ম্যাচ দেখা যায় হরহামেশা। পরিসংখ্যান বলছে এখানে গড় রান ১৫০-১৬০ রানের মধ্যেই ঘোরাফেরা করে। এমন উইকেট বাংলাদেশের স্পিনারদের জন্য বেশ মানানসই। বিশেষ করে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা সাকিবের জন্য। কিছুদিন আগেই এ মাঠে নিয়মিত আইপিএল খেলেছেন তিনি। বল হাতে সাফল্য পেয়েছেন। রান আটকে রেখেছেন। নতুন বলে তার বোলিং দ্যুতি ছিল দেখার মতো। আরেক বোলার মোস্তাফিজও কয়েকটি ম্যাচ খেলেছে। তাদের ওপর শ্রীলঙ্কা আলাদা করে নজর রেখেছে বলেই মনে হলো।

ম্যাচপূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে দাসুন শানাকা বলেছেন, ‘তাদের (বাংলাদেশ) ভালো কয়েকজন বোলার আছে। আইপিএলে উইকেট ব্যবহার হওয়ায় একটু মন্থর আছে শারজাতে। বিশেষ করে সাকিব ও ফিজ (মোস্তাফিজ) আছে। তাদের অনেক ভালো স্পিনার আছে। উইকেট নিয়ে বেশি ভাবছি না। আমরা আমাদের শক্তির জায়গা দিয়ে খেলব। তারা ভালো দল। সাকিব, মোস্তাফিজ, মাহমুদুল্লাহরা আছে।’

তবে মন্থর উইকেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দিয়ে রাখলেন লঙ্কান অধিনায়ক, ‘আমরা কাল খুব ভালো ম্যাচ আশা করছি। কোয়ালিফায়ার থেকে তারা ভালোভাবেই উঠেছে। কিন্তু টি-২০তে নিজেদের দিনে আমরা কী করতে পারি সবাই জানে। আমার মনে হয় একটা হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে যাচ্ছে।’ দুই দল ১১টি টি-২০ খেলেছে। শ্রীলঙ্কার ৭ জয়ের বিপরীতে বাংলাদেশের জয় ৪টি। তবে আশার খবর হলো, শেষ দুই মুখোমুখিতে দুটিতেই লঙ্কানদের তাদের মাটিতে হারিয়েছে বাংলাদেশ। ফলে মনস্তাত্ত্বিক লড়াইয়ে মাহমুদুল্লাহরা কিছুটাও এগিয়ে থাকবেন।

প্রথম পর্বে শ্রীলঙ্কার মেন্টর হিসেবে ড্রেসিংরুমে ছিলেন মাহেলা জয়াবর্ধনে। পারিবারিক কারণে জয়াবর্ধনেকে সুপার টুয়েলভে পাচ্ছে না শ্রীলঙ্কা। প্রথম পর্বে তার উপস্থিতি দলকে চাঙ্গা করেছিল বলে মন্তব্য করলেন শানাকা, ‘এটা দলের ভেতর দারুণ প্রভাব ফেলেছে (মাহেলার মেন্টর হওয়া)। বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে সাড়া পড়েছে, তার অভিজ্ঞতা আমরা পাচ্ছি। ড্রেসিংরুমের পরিবেশই অন্যরকম হয়ে গেছে। আমরা অনেক চাঙ্গা তাকে পেয়ে।’

রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১ , ০৮ কার্তিক ১৪২৮ ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

শ্রীলঙ্কার ‘জুজু’ সাকিব-মোস্তাফিজ

ক্রীড়া বার্তা পরিবেশক

image

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে শ্রীলঙ্কা এসেছে সুপার টুয়েলভে। বাংলাদেশ একই মঞ্চে উঠলেও প্রথম পর্বে ধাক্কা হজম করতে হয়েছিল স্কটল্যান্ডের কাছে হেরে। সেই হারের ধাক্কা সামলে ওমান ও পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে রানার্সআপ হয়ে বাংলাদেশও সুপার টুয়েলভে। ঐতিহাসিক শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রোববার এশিয়ার দুই দল মুখোমুখি হচ্ছে সুপার টুয়েলভে নিজেদের প্রথম ম্যাচে। বর্তমান পারফরম্যান্স এবং বৈশ্বিক ক্রিকেটের মঞ্চে পরিসংখ্যান বিবেচনায় শ্রীলঙ্কাকেই এগিয়ে রাখতে হবে। তবে দ্বীপরাষ্ট্রের ভয় শারজার মন্থর উইকেট এবং সাকিব আল হাসান জুজু। শুধু সাকিবই নন, মোস্তাফিজকেও বেশ সমীহ করছে শ্রীলঙ্কা।

শারজার উইকেট এখন অনেকটাই স্পিনবান্ধব। উইকেটে পুরোনো ধার নেই। বল ব্যাটে আসে থেমে থেমে। হাই স্কোরিং ম্যাচ দেখা যায় হরহামেশা। পরিসংখ্যান বলছে এখানে গড় রান ১৫০-১৬০ রানের মধ্যেই ঘোরাফেরা করে। এমন উইকেট বাংলাদেশের স্পিনারদের জন্য বেশ মানানসই। বিশেষ করে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা সাকিবের জন্য। কিছুদিন আগেই এ মাঠে নিয়মিত আইপিএল খেলেছেন তিনি। বল হাতে সাফল্য পেয়েছেন। রান আটকে রেখেছেন। নতুন বলে তার বোলিং দ্যুতি ছিল দেখার মতো। আরেক বোলার মোস্তাফিজও কয়েকটি ম্যাচ খেলেছে। তাদের ওপর শ্রীলঙ্কা আলাদা করে নজর রেখেছে বলেই মনে হলো।

ম্যাচপূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে দাসুন শানাকা বলেছেন, ‘তাদের (বাংলাদেশ) ভালো কয়েকজন বোলার আছে। আইপিএলে উইকেট ব্যবহার হওয়ায় একটু মন্থর আছে শারজাতে। বিশেষ করে সাকিব ও ফিজ (মোস্তাফিজ) আছে। তাদের অনেক ভালো স্পিনার আছে। উইকেট নিয়ে বেশি ভাবছি না। আমরা আমাদের শক্তির জায়গা দিয়ে খেলব। তারা ভালো দল। সাকিব, মোস্তাফিজ, মাহমুদুল্লাহরা আছে।’

তবে মন্থর উইকেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দিয়ে রাখলেন লঙ্কান অধিনায়ক, ‘আমরা কাল খুব ভালো ম্যাচ আশা করছি। কোয়ালিফায়ার থেকে তারা ভালোভাবেই উঠেছে। কিন্তু টি-২০তে নিজেদের দিনে আমরা কী করতে পারি সবাই জানে। আমার মনে হয় একটা হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে যাচ্ছে।’ দুই দল ১১টি টি-২০ খেলেছে। শ্রীলঙ্কার ৭ জয়ের বিপরীতে বাংলাদেশের জয় ৪টি। তবে আশার খবর হলো, শেষ দুই মুখোমুখিতে দুটিতেই লঙ্কানদের তাদের মাটিতে হারিয়েছে বাংলাদেশ। ফলে মনস্তাত্ত্বিক লড়াইয়ে মাহমুদুল্লাহরা কিছুটাও এগিয়ে থাকবেন।

প্রথম পর্বে শ্রীলঙ্কার মেন্টর হিসেবে ড্রেসিংরুমে ছিলেন মাহেলা জয়াবর্ধনে। পারিবারিক কারণে জয়াবর্ধনেকে সুপার টুয়েলভে পাচ্ছে না শ্রীলঙ্কা। প্রথম পর্বে তার উপস্থিতি দলকে চাঙ্গা করেছিল বলে মন্তব্য করলেন শানাকা, ‘এটা দলের ভেতর দারুণ প্রভাব ফেলেছে (মাহেলার মেন্টর হওয়া)। বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে সাড়া পড়েছে, তার অভিজ্ঞতা আমরা পাচ্ছি। ড্রেসিংরুমের পরিবেশই অন্যরকম হয়ে গেছে। আমরা অনেক চাঙ্গা তাকে পেয়ে।’