টি-২০ বিশ্বকাপ ফাইনাল আজ

প্রথম শিরোপার লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড

ক্রিকেট খেলুড়ে কুলীন দলগুলোর মধ্যে প্রায় সবারই ঘরে গেছে টিÑ২০ বিশ্বকাপের শিরোপা। বাংলাদেশ ছাড়া উপমহাদেশের তিন ক্রিকেট দল ভারত-পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার ঘরে আছে বৈশ্বিক এই ট্রফি। শিরেপা তুলেছে ইংল্যান্ড এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজও। এর মধ্যে প্রথম দুটো ওডিআই বিশ্বকাপের শিরোপাজয়ী ক্যারিবিয়ানদের ঘরে ছোট ফরম্যাটের শিরোপাও উঠেছে দুইবার। বাকি রয়েছে নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া আর দক্ষিণ আফ্রিকা। আফগানিস্তান একেবারেই নবীন টেস্ট খেলুড়ে দেশ আর জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট এখন তলানিতে। টিÑ২০ বিশ্বকাপের সপ্তম আসর নতুন একটা দেশ জিতবে আইসিসি’র এই ট্রফি। কেননা, আগে শিরোপার জয় করা দলগুলোর একটাও উঠতে পারেনি ফাইনালে। এবারের ফাইনালটা হতে যাচ্ছে ট্রান্স তাসমানিয়ান দুই দেশ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যে। আজ বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে, অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ফাইনাল।

দুই দলের মধ্যে এটাই কিন্তু ‘প্রথম ফাইনাল’ নয়। ২০১৫ সালের ওডিআই বিশ্বকাপের ফাইনালটাও হয়েছিলো দুই দলের মধ্যে। ওই ফাইনালে পঞ্চমবারের মত ওডিআই বিশ্বকাপের শিরোপা উঠেছিল অজিদের ঘরে। কিন্তু এবারের নিউজিল্যান্ড দলটা কিন্তু ২০১৫ সালের দলটার মত নয়। প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনালে লর্ডসে ভারতকে পরাজিত করা নিউজিল্যান্ড সাম্প্রতিক সময়ে তিন ফরম্যাটেই ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলে যাচ্ছে। ২০১৫ সালের ওডিআই বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজিত হবার পর ২০১৯ সালের বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে পরাজিত হয়েছিল কিউইরা। ‘গোলমেলে’ ফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে সেই পরাজয়ের প্রতিশোধটা এবারের টিÑ২০ বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে কড়ায় গন্ডায় পরিশোধ করেছে ব্ল্যাক ক্যাপসরা। অথচ টিÑ২০ বিশ্বকাপের শিরোপাজয়ের হট ফেভারিট ছিলো ইংলিশরা। কিউইদের সামনে এবার সুযোগ ২০১৫ বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজয়ের প্রতিশোধ নেয়ার।

আবার অজিরাও ছেড়ে কথা বলবে না। এবারের আসরের শুরু থেকেই অস্ট্রেলিয়াকে বলা হচ্ছিলো ‘বুড়োদের দল’। দাপটের সাথে সেমিফাইনালে ওঠার পর অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ খোঁচা মেরে বলেছিলেন ‘কি, আমরা নাকি বুড়োদের দল?’ ফিঞ্চের কথায় উজ্জীবিত অজিরা সেমিফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেছে দুর্দান্ত ক্রিকেট। চলতি আসরের সেমিফাইনালের আগ পর্যন্ত অপরাজিত থাকা পাকিস্তানের তারুণ্য নির্ভর দলটাকে শেষ মুহুর্তে কাঁদিয়ে মাঠ ছেড়েছেন ম্যাথু-ওয়েড-মার্কাস স্টয়নিস জুটি।

পাঁচবার ওডিআই বিশ্বকাপের শিরোপা জেতা অস্ট্রেলিয়ার ঘরে এখনো ওঠেনি ছোটো ফরম্যাটের ট্রফি। দলটা এবারের আসরে যেভাবে লড়াই চালাচ্ছে, তাতে নিউজিল্যান্ডের জন্য আজকের দিনটা খুব সুখকর নাও হতে পারে। সেমিফাইনালে পাকিস্তানের শাহীন শাহ আফ্রিদির ইনসুইংগারে পরাস্ত হওয়া অ্যারন ফিঞ্চ চাইবেন রানে ফিরতে। টিÑ২০ ফরম্যাটে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অজি ব্যাটারের সর্বোচ্চ ২৫১ রান ফিঞ্চেরই। শেষ দুটো ইনিংসে ডেভিড ওয়ার্নার প্রমান করেছেন যে, বিশ্বকাপের আগে রানের খরাটা তার ছিলো সাময়িক। নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে চাইবেন তিনি। তবে অস্ট্রেলিয়ার টিম ম্যানেজমেন্টের দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে আছেন স্টিভেন স্মিথ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে মিডল অর্ডারে মার্কাস -স্টয়নিস ও ম্যাথু ওয়েডের ঝড় তো এখন রূপকথার অংশ। চলতি টুর্নামেন্টে ১০.৯১ গড়ে ১২টি উইকেটের পতন ঘটানো লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পার কাছ থেকে ফাইনালে সেরা নৈপুন্য আশা করবে টিম ম্যানেজমেন্ট। ঘূর্নিবলে তাকে একপ্রান্ত থেকে সহায়তার জন্য আছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। তিন পেসার মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স ও জস হেইজেলউড প্রথমবারের মত খেলতে নামবেন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। পাকিস্তানের সঙ্গে সেমিফাইনালে বেধড়ক পিটুনি খাওয়া হেইজেলউড রাগটা ঝাড়তে চাইবেন কিউই ব্যাটারদের ওপর।

আবার কিউইরা আইসিসি’র ইভেন্টে ধারাবাহিকভাবেই ভালো খেলে থাকে। এবারের আসরে কেইন উইলয়ামসনের নেতৃত্বাধীন দলটাকে অনেক বেশী আত্মবিশ্বাসী মনে হচ্ছে। চলতি আসরের গ্রুপ পর্বে কিউইদের বোলিং ডিপার্টমেন্টকেই সেরা বলে মনে হয়েছে। সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দেখা গেছে তাদের ব্যাটিং নৈপুন্য। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কিউই ব্যাটার মার্টিন গাপটিলের রেকর্ড বেশ ভালো। ড্যারিল মিচেল সেমিফাইনালে বিধ্বংসী ইনিংস খেলার সুখস্মৃতি নিয়ে খেলবেন ফাইনালে। অধিনায়ক কেইন উইলয়ামসনের ব্যাট থেকে এখনো বড় ইনিংস আসেনি। শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচে তার ব্যাট হাসলে অজি বোলারদের সময়টা খুব ভালো কাটবেনা। মাঝের ওভারগুলো চার-ছক্কার ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চলেছে জিমি নিশাম। তবে ডেভন কনওয়ের সেবা পাচ্ছেনা নিউজিল্যান্ড। সেমিফাইনালে আউট হবার পর মাটিতে সজোরে ব্যাট দিয়ে আঘাত করে হাতই ভেঙে ফেলেছেন তিনি। তার জায়গায় খেলবেন টিম সেইফার্ট। পাওয়ার প্লেতে দুই অজি ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ ও ডেভিড ওয়ার্নারকে আটকে রাখতে প্রস্তুত আছে অভিজ্ঞ দুই পেসার টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্ট। তৃতীয় পেসার হিসাবে অ্যাডাম মিলনে এবং মাঝের ওভারগুলোতে লেগ স্পিনার ইশ সোধি দায়িত্বটা বেশ ভালোই সামাল দিচ্ছেন । প্রথমবারের মত টিÑ২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছে ব্ল্যাক ক্যাপসরা। তারা চাইবে জয় দিয়ে শেষ করতে।

সব মিলিয়ে জমজমাট দুটো সেমিফাইনালের পর ফাইনালটাও ক্রিকেটভক্তদের আনন্দ দেবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে মরুভূমির বুকে আরো একটা চার-ছক্কার ঝড়েরই সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। যদিও বৃষ্টির চোখ রাঙানি আছে এই ম্যাচে। তেমনটা হলে ধূলো উড়ার সম্ভাবনা আর থাকছেনা।

রবিবার, ১৪ নভেম্বর ২০২১ , ২৯ কার্তিক ১৪২৮ ৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

টি-২০ বিশ্বকাপ ফাইনাল আজ

প্রথম শিরোপার লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড

বিশেষ প্রতিনিধি

image

ফাইনাল ম্যাচের দুই অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ও কেন উইলিয়ামসন

ক্রিকেট খেলুড়ে কুলীন দলগুলোর মধ্যে প্রায় সবারই ঘরে গেছে টিÑ২০ বিশ্বকাপের শিরোপা। বাংলাদেশ ছাড়া উপমহাদেশের তিন ক্রিকেট দল ভারত-পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার ঘরে আছে বৈশ্বিক এই ট্রফি। শিরেপা তুলেছে ইংল্যান্ড এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজও। এর মধ্যে প্রথম দুটো ওডিআই বিশ্বকাপের শিরোপাজয়ী ক্যারিবিয়ানদের ঘরে ছোট ফরম্যাটের শিরোপাও উঠেছে দুইবার। বাকি রয়েছে নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া আর দক্ষিণ আফ্রিকা। আফগানিস্তান একেবারেই নবীন টেস্ট খেলুড়ে দেশ আর জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট এখন তলানিতে। টিÑ২০ বিশ্বকাপের সপ্তম আসর নতুন একটা দেশ জিতবে আইসিসি’র এই ট্রফি। কেননা, আগে শিরোপার জয় করা দলগুলোর একটাও উঠতে পারেনি ফাইনালে। এবারের ফাইনালটা হতে যাচ্ছে ট্রান্স তাসমানিয়ান দুই দেশ অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যে। আজ বাংলাদেশ সময় রাত আটটায় দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে, অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ফাইনাল।

দুই দলের মধ্যে এটাই কিন্তু ‘প্রথম ফাইনাল’ নয়। ২০১৫ সালের ওডিআই বিশ্বকাপের ফাইনালটাও হয়েছিলো দুই দলের মধ্যে। ওই ফাইনালে পঞ্চমবারের মত ওডিআই বিশ্বকাপের শিরোপা উঠেছিল অজিদের ঘরে। কিন্তু এবারের নিউজিল্যান্ড দলটা কিন্তু ২০১৫ সালের দলটার মত নয়। প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনালে লর্ডসে ভারতকে পরাজিত করা নিউজিল্যান্ড সাম্প্রতিক সময়ে তিন ফরম্যাটেই ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলে যাচ্ছে। ২০১৫ সালের ওডিআই বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজিত হবার পর ২০১৯ সালের বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে পরাজিত হয়েছিল কিউইরা। ‘গোলমেলে’ ফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে সেই পরাজয়ের প্রতিশোধটা এবারের টিÑ২০ বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে কড়ায় গন্ডায় পরিশোধ করেছে ব্ল্যাক ক্যাপসরা। অথচ টিÑ২০ বিশ্বকাপের শিরোপাজয়ের হট ফেভারিট ছিলো ইংলিশরা। কিউইদের সামনে এবার সুযোগ ২০১৫ বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে পরাজয়ের প্রতিশোধ নেয়ার।

আবার অজিরাও ছেড়ে কথা বলবে না। এবারের আসরের শুরু থেকেই অস্ট্রেলিয়াকে বলা হচ্ছিলো ‘বুড়োদের দল’। দাপটের সাথে সেমিফাইনালে ওঠার পর অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ খোঁচা মেরে বলেছিলেন ‘কি, আমরা নাকি বুড়োদের দল?’ ফিঞ্চের কথায় উজ্জীবিত অজিরা সেমিফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেছে দুর্দান্ত ক্রিকেট। চলতি আসরের সেমিফাইনালের আগ পর্যন্ত অপরাজিত থাকা পাকিস্তানের তারুণ্য নির্ভর দলটাকে শেষ মুহুর্তে কাঁদিয়ে মাঠ ছেড়েছেন ম্যাথু-ওয়েড-মার্কাস স্টয়নিস জুটি।

পাঁচবার ওডিআই বিশ্বকাপের শিরোপা জেতা অস্ট্রেলিয়ার ঘরে এখনো ওঠেনি ছোটো ফরম্যাটের ট্রফি। দলটা এবারের আসরে যেভাবে লড়াই চালাচ্ছে, তাতে নিউজিল্যান্ডের জন্য আজকের দিনটা খুব সুখকর নাও হতে পারে। সেমিফাইনালে পাকিস্তানের শাহীন শাহ আফ্রিদির ইনসুইংগারে পরাস্ত হওয়া অ্যারন ফিঞ্চ চাইবেন রানে ফিরতে। টিÑ২০ ফরম্যাটে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অজি ব্যাটারের সর্বোচ্চ ২৫১ রান ফিঞ্চেরই। শেষ দুটো ইনিংসে ডেভিড ওয়ার্নার প্রমান করেছেন যে, বিশ্বকাপের আগে রানের খরাটা তার ছিলো সাময়িক। নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে চাইবেন তিনি। তবে অস্ট্রেলিয়ার টিম ম্যানেজমেন্টের দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে আছেন স্টিভেন স্মিথ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে মিডল অর্ডারে মার্কাস -স্টয়নিস ও ম্যাথু ওয়েডের ঝড় তো এখন রূপকথার অংশ। চলতি টুর্নামেন্টে ১০.৯১ গড়ে ১২টি উইকেটের পতন ঘটানো লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পার কাছ থেকে ফাইনালে সেরা নৈপুন্য আশা করবে টিম ম্যানেজমেন্ট। ঘূর্নিবলে তাকে একপ্রান্ত থেকে সহায়তার জন্য আছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। তিন পেসার মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স ও জস হেইজেলউড প্রথমবারের মত খেলতে নামবেন নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। পাকিস্তানের সঙ্গে সেমিফাইনালে বেধড়ক পিটুনি খাওয়া হেইজেলউড রাগটা ঝাড়তে চাইবেন কিউই ব্যাটারদের ওপর।

আবার কিউইরা আইসিসি’র ইভেন্টে ধারাবাহিকভাবেই ভালো খেলে থাকে। এবারের আসরে কেইন উইলয়ামসনের নেতৃত্বাধীন দলটাকে অনেক বেশী আত্মবিশ্বাসী মনে হচ্ছে। চলতি আসরের গ্রুপ পর্বে কিউইদের বোলিং ডিপার্টমেন্টকেই সেরা বলে মনে হয়েছে। সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দেখা গেছে তাদের ব্যাটিং নৈপুন্য। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কিউই ব্যাটার মার্টিন গাপটিলের রেকর্ড বেশ ভালো। ড্যারিল মিচেল সেমিফাইনালে বিধ্বংসী ইনিংস খেলার সুখস্মৃতি নিয়ে খেলবেন ফাইনালে। অধিনায়ক কেইন উইলয়ামসনের ব্যাট থেকে এখনো বড় ইনিংস আসেনি। শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচে তার ব্যাট হাসলে অজি বোলারদের সময়টা খুব ভালো কাটবেনা। মাঝের ওভারগুলো চার-ছক্কার ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চলেছে জিমি নিশাম। তবে ডেভন কনওয়ের সেবা পাচ্ছেনা নিউজিল্যান্ড। সেমিফাইনালে আউট হবার পর মাটিতে সজোরে ব্যাট দিয়ে আঘাত করে হাতই ভেঙে ফেলেছেন তিনি। তার জায়গায় খেলবেন টিম সেইফার্ট। পাওয়ার প্লেতে দুই অজি ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ ও ডেভিড ওয়ার্নারকে আটকে রাখতে প্রস্তুত আছে অভিজ্ঞ দুই পেসার টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্ট। তৃতীয় পেসার হিসাবে অ্যাডাম মিলনে এবং মাঝের ওভারগুলোতে লেগ স্পিনার ইশ সোধি দায়িত্বটা বেশ ভালোই সামাল দিচ্ছেন । প্রথমবারের মত টিÑ২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছে ব্ল্যাক ক্যাপসরা। তারা চাইবে জয় দিয়ে শেষ করতে।

সব মিলিয়ে জমজমাট দুটো সেমিফাইনালের পর ফাইনালটাও ক্রিকেটভক্তদের আনন্দ দেবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে মরুভূমির বুকে আরো একটা চার-ছক্কার ঝড়েরই সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। যদিও বৃষ্টির চোখ রাঙানি আছে এই ম্যাচে। তেমনটা হলে ধূলো উড়ার সম্ভাবনা আর থাকছেনা।