বাসে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়া বন্ধ হয়নি

রাজধানীর বিভিন্ন বাস-মিনিবাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় এখনও বন্ধ হয়নি। গতকাল ঢাকার বিভিন্ন বাসে সিটিং সার্ভিসের নামের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়েছে। গুলিস্তান থেকে যাত্রাবাড়ীর ৩ কিলোমিটার দূরত্বে ১০ টাকার ভাড়া ২৫-৩০ টাকা নিচ্ছে রজনীগন্ধ্যা, রাণিমহল ও আসিয়ান পরিবহনসহ বিভিন্ন বাস-মিনিবাস।

এই রুটে সিএনজি চালিত বাসেও সর্বনিম্ন ভাড়া নেয়া হয় ২৫ টাকা। এ নিয়ে প্রতিদিনেই যাত্রী ও বাস স্টাফদের মধ্যে কর্তবিতর্ক হয়। এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশে অভিযোগ করেও কোন উপকার পাওয়া যায় না বলে যাত্রীরা জানান।

এছাড়া হাফ ভাড়া নিয়ে প্রতিদিনই বিভিন্ন বাস-মিনিবাসে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে বাস স্টাফরা। তাই শিক্ষার্র্থীদের হাফ ভাড়ার দাবিতে গতকালও মিরপুর-নিউমার্কেটে সড়ক অবরোধ করে ঢাকা কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরা। তাদের দাবি আগামী শনিবারের মধ্যে অর্ধেক ভাড়া চালু না হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার দায়ে গতকাল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ৬৯টি বাস-মিনিবাসকে ২ লাখ ৮৩ হাজার টাকা জরিমানা করেছে বিআরটিএ’র ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ১ চালককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ঘুরে দেখা গেছে, গণপরিবহন থেকে সিটিং সার্ভিসের স্টিকার উঠানো হলেও ভাড়া কমানো হয়নি। বেশিরভাগ বাস-মিনিবাসে দাঁড়িয়ে যাত্রী পরিবহন করা হলেও ভাড়া নেয়া হচ্ছে সিটিংয়ের। রাজধানীর গুলিস্তান থেকে যাত্রাবাড়ী-শনিরআখড়া হয়ে সাইনবোর্ড দিয়ে কাঁচপুর সেতু ও নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত রজনীগন্ধ্যা, মনজিল, ঠিকানা, মৌমিতা, নীলাচল, মেঘলা, শ্রাবণ, হিমালয়, উৎসব ও বন্ধনসহ একাধিক পরিবহন চলাচল করে। এ সব পরিবহন সিটিং সার্ভিস নামে দুই-তিনগুণ ভাড়া আদায় করে বাস স্টাফরা।

একই অবস্থা গুলিস্তান থেকে রাণীমহল ও ডেমরা রুটে। এই রুটের সিএনজি চালিত বাসে সর্বনিম্ন ভাড়া নেয়া হয় ২৫ টাকা। ডিজেল চালিত বাসে সর্বনিম্ন ভাড়া ৩০ টাকা নেয়া হয় বলে যাত্রীরা জানান। খন্দকার জাফর নামের সাইনবোর্ডের এক যাত্রী বলেন, ‘প্রতিটি গাড়িতেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়। এই রুটে রজনীগন্ধ্যা ও মনজিল পরিবহন ওয়েবিলের নামের ১০ টাকা ভাড়া নেয়া হয় ২৫ টাকা। একই অবস্থা ঠিকানা ও মৌমিতা পরিবহনে। ভাড়ার চার্ট ছাড়াই এ সব বাসের চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। প্রতিবাদ করলেই যাত্রীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে বাস স্টাফরা।’

রাজধানীর জুরাইন এলাকায় মামুন নামের এক যাত্রী বলেন, ‘যাত্রীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে বাস চালকরা। গুলিস্তান থেকে জুরাইন-পোস্তগোলা হয়ে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা পর্যন্ত চলাচল করে বোরাক পরিবহন। এই বাসে ১০ টাকার সর্বনিম্ন ভাড়া নেয়া হয় ৩০ টাকা।’ বাস মালিকরা ও বিআরটিএ’র কর্মকর্তারা যোগসাজস করে এই বেশি ভাড়া নেয়া হচ্ছে।’ এজন্যই গুলিস্তান এলাকায় বিআরটিএ’র কোন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে না বলে জানান তিনি।

হাফ ভাড়ার দাবিতে সড়ক অবরোধ শিক্ষার্থীদের

শিক্ষার্থীদের জন্য বাস ভাড়া অর্ধেক করার দাবিতে গতকাল দেড় ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে ঢাকা কলেজের ছাত্ররা। গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর মিরপুর সড়কে অবস্থান নিলে যান চলাচল বন্ধ করে দেয় তারা। এতে শাহবাগ, নিউমার্কেট ও সাইন্সল্যাবসহ আশপাশ এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয় বলে যাত্রীরা জানান।

পরে পুলিশ এসে শিক্ষার্থী এবং বাস চালকসহ হেলপারদের সঙ্গে কথা বলে ‘আপাতত’ অর্ধেক ভাড়া নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে গতকাল বেলা ১১টার দিকে সড়ক অবরোধ তুলে নেয় শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে নিউমার্কেট থানার ওসি (তদন্ত) ইয়াছিন আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা তাদের বলেছি, বাস মালিক ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে একটা মীমাংসা করা হবে। আপাতত বাস চালক-হেলপারদের বলা হয়েছে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্ধেক ভাড়া নিতে।’

ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী তামিম আহসান বলেন, ‘শিক্ষক এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আমাদের বলেছে, শনিবারের মধ্যে হাফ ভাড়া নিশ্চিত করবে। এ জন্য আমরা রাস্তা ছেড়ে দিয়েছি। শনিবারের মধ্যে অর্ধেক ভাড়া চালু না হলে কঠোর কর্মসূচিতে যাবে শিক্ষার্থীরা।’

এর আগে গত সোমবার হাফ ভাড়ার দাবিতে মালিবাগ-রামপুরা রুটে রাইদা পরিবহনের প্রায় ৫০টি বাস আটকে রাখে ঢাকা ইম্পেরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীরা। পরে শিক্ষার্থী ও বাস মালিকদের মধ্যে এক সমঝোতা বৈঠকের পর বাস চলাচল শুরু হয় বলে জানিয়েছেন রামপুরা থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম।

বিআরটিএ’র সূত্র জানায়, গতকাল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ১১টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ৬৯টি ডিজেল চালিত বাস ও মিনিবাসকে ২ লাখ ৮৩ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় জরিমানা অনাদায়ের অপরাধে ১টি পরিবহনকে ডাম্পিং স্টেশনে পাঠানো হয়। এছাড়া সরকারি কাজে বাধাদানের অপরাধে ১ চালককে কারাদন্ড দেয়া হয়। গতকাল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ২৬৬টি বাস ও মিনিবাসে এই অভিযান চালানো হয় বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান।

এ বিষয়ে বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার সংবাদকে বলেন, ‘অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে। এটা বন্ধ হবে না। পর্যাক্রমে সব জায়গায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান করা হবে। বেশি ভাড়া নেয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর ২০২১ , ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৩ রবিউস সানি ১৪৪৩

বাসে অতিরিক্ত ভাড়া নেয়া বন্ধ হয়নি

image

হাফ বাস ভাড়ার দাবিতে গতকাল শিক্ষার্থীরা ঢাকা কলেজের সামনে সড়ক অবরোধ করে -সংবাদ

রাজধানীর বিভিন্ন বাস-মিনিবাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় এখনও বন্ধ হয়নি। গতকাল ঢাকার বিভিন্ন বাসে সিটিং সার্ভিসের নামের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়েছে। গুলিস্তান থেকে যাত্রাবাড়ীর ৩ কিলোমিটার দূরত্বে ১০ টাকার ভাড়া ২৫-৩০ টাকা নিচ্ছে রজনীগন্ধ্যা, রাণিমহল ও আসিয়ান পরিবহনসহ বিভিন্ন বাস-মিনিবাস।

এই রুটে সিএনজি চালিত বাসেও সর্বনিম্ন ভাড়া নেয়া হয় ২৫ টাকা। এ নিয়ে প্রতিদিনেই যাত্রী ও বাস স্টাফদের মধ্যে কর্তবিতর্ক হয়। এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশে অভিযোগ করেও কোন উপকার পাওয়া যায় না বলে যাত্রীরা জানান।

এছাড়া হাফ ভাড়া নিয়ে প্রতিদিনই বিভিন্ন বাস-মিনিবাসে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে বাস স্টাফরা। তাই শিক্ষার্র্থীদের হাফ ভাড়ার দাবিতে গতকালও মিরপুর-নিউমার্কেটে সড়ক অবরোধ করে ঢাকা কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীরা। তাদের দাবি আগামী শনিবারের মধ্যে অর্ধেক ভাড়া চালু না হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার দায়ে গতকাল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ৬৯টি বাস-মিনিবাসকে ২ লাখ ৮৩ হাজার টাকা জরিমানা করেছে বিআরটিএ’র ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ১ চালককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে ঘুরে দেখা গেছে, গণপরিবহন থেকে সিটিং সার্ভিসের স্টিকার উঠানো হলেও ভাড়া কমানো হয়নি। বেশিরভাগ বাস-মিনিবাসে দাঁড়িয়ে যাত্রী পরিবহন করা হলেও ভাড়া নেয়া হচ্ছে সিটিংয়ের। রাজধানীর গুলিস্তান থেকে যাত্রাবাড়ী-শনিরআখড়া হয়ে সাইনবোর্ড দিয়ে কাঁচপুর সেতু ও নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত রজনীগন্ধ্যা, মনজিল, ঠিকানা, মৌমিতা, নীলাচল, মেঘলা, শ্রাবণ, হিমালয়, উৎসব ও বন্ধনসহ একাধিক পরিবহন চলাচল করে। এ সব পরিবহন সিটিং সার্ভিস নামে দুই-তিনগুণ ভাড়া আদায় করে বাস স্টাফরা।

একই অবস্থা গুলিস্তান থেকে রাণীমহল ও ডেমরা রুটে। এই রুটের সিএনজি চালিত বাসে সর্বনিম্ন ভাড়া নেয়া হয় ২৫ টাকা। ডিজেল চালিত বাসে সর্বনিম্ন ভাড়া ৩০ টাকা নেয়া হয় বলে যাত্রীরা জানান। খন্দকার জাফর নামের সাইনবোর্ডের এক যাত্রী বলেন, ‘প্রতিটি গাড়িতেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়। এই রুটে রজনীগন্ধ্যা ও মনজিল পরিবহন ওয়েবিলের নামের ১০ টাকা ভাড়া নেয়া হয় ২৫ টাকা। একই অবস্থা ঠিকানা ও মৌমিতা পরিবহনে। ভাড়ার চার্ট ছাড়াই এ সব বাসের চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। প্রতিবাদ করলেই যাত্রীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে বাস স্টাফরা।’

রাজধানীর জুরাইন এলাকায় মামুন নামের এক যাত্রী বলেন, ‘যাত্রীদের জিম্মি করে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে বাস চালকরা। গুলিস্তান থেকে জুরাইন-পোস্তগোলা হয়ে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা পর্যন্ত চলাচল করে বোরাক পরিবহন। এই বাসে ১০ টাকার সর্বনিম্ন ভাড়া নেয়া হয় ৩০ টাকা।’ বাস মালিকরা ও বিআরটিএ’র কর্মকর্তারা যোগসাজস করে এই বেশি ভাড়া নেয়া হচ্ছে।’ এজন্যই গুলিস্তান এলাকায় বিআরটিএ’র কোন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে না বলে জানান তিনি।

হাফ ভাড়ার দাবিতে সড়ক অবরোধ শিক্ষার্থীদের

শিক্ষার্থীদের জন্য বাস ভাড়া অর্ধেক করার দাবিতে গতকাল দেড় ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে ঢাকা কলেজের ছাত্ররা। গতকাল সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর মিরপুর সড়কে অবস্থান নিলে যান চলাচল বন্ধ করে দেয় তারা। এতে শাহবাগ, নিউমার্কেট ও সাইন্সল্যাবসহ আশপাশ এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয় বলে যাত্রীরা জানান।

পরে পুলিশ এসে শিক্ষার্থী এবং বাস চালকসহ হেলপারদের সঙ্গে কথা বলে ‘আপাতত’ অর্ধেক ভাড়া নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে গতকাল বেলা ১১টার দিকে সড়ক অবরোধ তুলে নেয় শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে নিউমার্কেট থানার ওসি (তদন্ত) ইয়াছিন আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা তাদের বলেছি, বাস মালিক ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে একটা মীমাংসা করা হবে। আপাতত বাস চালক-হেলপারদের বলা হয়েছে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্ধেক ভাড়া নিতে।’

ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী তামিম আহসান বলেন, ‘শিক্ষক এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আমাদের বলেছে, শনিবারের মধ্যে হাফ ভাড়া নিশ্চিত করবে। এ জন্য আমরা রাস্তা ছেড়ে দিয়েছি। শনিবারের মধ্যে অর্ধেক ভাড়া চালু না হলে কঠোর কর্মসূচিতে যাবে শিক্ষার্থীরা।’

এর আগে গত সোমবার হাফ ভাড়ার দাবিতে মালিবাগ-রামপুরা রুটে রাইদা পরিবহনের প্রায় ৫০টি বাস আটকে রাখে ঢাকা ইম্পেরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থীরা। পরে শিক্ষার্থী ও বাস মালিকদের মধ্যে এক সমঝোতা বৈঠকের পর বাস চলাচল শুরু হয় বলে জানিয়েছেন রামপুরা থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম।

বিআরটিএ’র সূত্র জানায়, গতকাল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ১১টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় অতিরিক্ত ভাড়া নেয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ৬৯টি ডিজেল চালিত বাস ও মিনিবাসকে ২ লাখ ৮৩ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় জরিমানা অনাদায়ের অপরাধে ১টি পরিবহনকে ডাম্পিং স্টেশনে পাঠানো হয়। এছাড়া সরকারি কাজে বাধাদানের অপরাধে ১ চালককে কারাদন্ড দেয়া হয়। গতকাল ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে ২৬৬টি বাস ও মিনিবাসে এই অভিযান চালানো হয় বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান।

এ বিষয়ে বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার সংবাদকে বলেন, ‘অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে। এটা বন্ধ হবে না। পর্যাক্রমে সব জায়গায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান করা হবে। বেশি ভাড়া নেয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’