প্রকৃতি-পরিবেশ-প্রতিবেশ রক্ষায় নদী সংলাপ

‘চলো নদীর কথা শুনি, প্রকৃতি-পরিবেশ-প্রতিবেশ রক্ষা করি’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে নীলফামারীর ডোমারে নদী সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) ও রিভারাইন পিপল।

গত বৃহষ্পতিবার সকাল ১১টায় নীলফামারী-ডোমার সড়কের কলমন্দার বুড়িখোড়া নদীর তীরে পারঘাট আলোর বাজারে অনুষ্ঠিত নদী সংলাপ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বেলার নির্বাহী পরিচালক সৈয়দা রেজওয়ানা হাসান। নদী বিষয়ে বক্তব্য রাখেন রিভারাইন পিপল ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন ড. তুহিন ওয়াদুদ, রংপুর ও নীলফামারী অঞ্চলের বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক হারুন অর-রশিদ, ডোমার উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহিনা শবনম, রিভারাইন পিপল ও নীলফামারী নদী সুরক্ষা কমিটির সমন্বয়ক আব্দুল ওয়াদুদ।

সৈয়দা রেজওয়ানা হাসান বলেন, আমার কাছে যদি কোটি কোটি টাকা থাকে, আর যদি নদী না থাকে তাহলে আমরা বাঁচবো না। নদী আমাদের জাতীয় সম্পদ। নদী রক্ষা করা আমাদের সকলের দায়িত্ব। অনেক জায়গায় নদী দখল হয়ে আছে। আবার কোথায় আবর্জনা দিয়ে নদী দূষিত করা হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সরকারের মাধ্যমে যে নদী খনন প্রকল্প চলছে তা নদীর পানি প্রবাহ ঠিক ফিরিয়ে আনতে পারছে না। তিনি আরো বলেন, দখল-দূষন ও কোথাও অবৈধ ভাবে নদীর বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে আইনি সহায়তা প্রয়োজন হলে আমরা সর্বাত্মক সংযোগিতা করে যাবো।

বেলা’র রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের সমন্বয়ক তন্ময় রায়ের সঞ্চালনায় নীলফামারী অঞ্চলের ৬টি নদী সুরক্ষা কমিটির সদস্যরাসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা সংলাপে অংশ নেন।

শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১ , ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

প্রকৃতি-পরিবেশ-প্রতিবেশ রক্ষায় নদী সংলাপ

image

‘চলো নদীর কথা শুনি, প্রকৃতি-পরিবেশ-প্রতিবেশ রক্ষা করি’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে নীলফামারীর ডোমারে নদী সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) ও রিভারাইন পিপল।

গত বৃহষ্পতিবার সকাল ১১টায় নীলফামারী-ডোমার সড়কের কলমন্দার বুড়িখোড়া নদীর তীরে পারঘাট আলোর বাজারে অনুষ্ঠিত নদী সংলাপ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বেলার নির্বাহী পরিচালক সৈয়দা রেজওয়ানা হাসান। নদী বিষয়ে বক্তব্য রাখেন রিভারাইন পিপল ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন ড. তুহিন ওয়াদুদ, রংপুর ও নীলফামারী অঞ্চলের বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক হারুন অর-রশিদ, ডোমার উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহিনা শবনম, রিভারাইন পিপল ও নীলফামারী নদী সুরক্ষা কমিটির সমন্বয়ক আব্দুল ওয়াদুদ।

সৈয়দা রেজওয়ানা হাসান বলেন, আমার কাছে যদি কোটি কোটি টাকা থাকে, আর যদি নদী না থাকে তাহলে আমরা বাঁচবো না। নদী আমাদের জাতীয় সম্পদ। নদী রক্ষা করা আমাদের সকলের দায়িত্ব। অনেক জায়গায় নদী দখল হয়ে আছে। আবার কোথায় আবর্জনা দিয়ে নদী দূষিত করা হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সরকারের মাধ্যমে যে নদী খনন প্রকল্প চলছে তা নদীর পানি প্রবাহ ঠিক ফিরিয়ে আনতে পারছে না। তিনি আরো বলেন, দখল-দূষন ও কোথাও অবৈধ ভাবে নদীর বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে আইনি সহায়তা প্রয়োজন হলে আমরা সর্বাত্মক সংযোগিতা করে যাবো।

বেলা’র রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের সমন্বয়ক তন্ময় রায়ের সঞ্চালনায় নীলফামারী অঞ্চলের ৬টি নদী সুরক্ষা কমিটির সদস্যরাসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা সংলাপে অংশ নেন।