ঢাকা-মালে ইউএস বাংলার সরাসরি ফ্লাইট চালু

মালদ্বীপের রাজধানী মালের উদ্দেশে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জানানো হয়, কোভিড-১৯ কালীন সময়ে সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের দু’দেশের রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা থেকে মালে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে। ১৬৪ আসনের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে উদ্বোধনী ফ্লাইট পরিচালনা করা হয়।

গতকাল সকালে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনাল ভবনে ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিকভাবে ফ্লাইটটির কার্যক্রম উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। এ সময় অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন মালদ্বীপের হাই কমিশনার শীরুজিমাথ সামির, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক), সদস্য পরিচালনা ও পরিকল্পনা এয়ার কমোডর সাদিকুর রহমান চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য দেন ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন, বেবিচকের প্রধান প্রকৌশলী মো. আবদুল মালেক, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

দশম আন্তর্জাতিক রুট হিসেবে ইউএস-বাংলার বিমান বহরে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম গন্তব্য মালে অন্তর্ভুক্ত হলো বলেও জানানো হয়। এদিন সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে যাত্রী নিয়ে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মালদ্বীপের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় ইউএস বাংলার প্রথম ফ্লাইট। প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেন, ‘দ্রুত এগিয়ে চলছে দেশের এভিয়েশন শিল্প। উড়োজাহাজ চলাচলে প্রসারিত হচ্ছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক রুট, এভিয়েশন খাতে বিনিয়োগ বাড়ছে, বাড়ছে যাত্রী সেবার মান।’

মোহাম্মাদ আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘ভ্রমণপিপাসু বাংলাদেশি পর্যটক ও মালদ্বীপে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের বহুদিনের প্রত্যাশা পূরণ করেছে। দেশের বৃহৎ বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস বাংলা। বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র হিসেবে মালদ্বীপে বাংলাদেশি এয়ারলাইন্স হিসেবে ইউএস বাংলার ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত দুই দেশের বন্ধনকে আরও বেশি সুদৃঢ় করবে।’

তিনি আরও বলেন, মালদ্বীপে বসবাসকারী বাংলাদেশিদের মধ্যে ৯০ শতাংশই শ্রমিক। এত দিন মালদ্বীপ থেকে দেশে ফিরতে তাদের খরচ হতো কমপক্ষে ৬৫ হাজার টাকা, কিন্তু এখন আমরা শ্রমিক ভাইদের মাত্র ২৫ হাজার টাকায় দেশে আনতে পারব।

আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘আজ ঢাকা-মালদ্বীপ ফ্লাইট চালুর মধ্য দিয়ে প্রতি মাসে ১ মিলিয়ন ইউএস ডলার বাংলাদেশে ফরেন রেমিট্যান্স আসবে। আমরা শুধু যাত্রী পরিবহন করছি না, ফরেন রেমিট্যান্সও আনছি।’

প্রাথমিকভাবে ঢাকা-মালে রুটে সব প্রকার ট্যাক্স ও সারচার্জসহ ওয়ানওয়ের ন্যূনতম ভাড়া ২৯ হাজার ৫০৮ টাকা এবং ফিরতি ভাড়া ৪৫ হাজার ৫৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া মালদ্বীপ ভ্রমণে ইউএস-বাংলা হলিডে প্যাকেজও ঘোষণা করেছে।

শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১ , ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

ঢাকা-মালে ইউএস বাংলার সরাসরি ফ্লাইট চালু

মালদ্বীপের রাজধানী মালের উদ্দেশে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জানানো হয়, কোভিড-১৯ কালীন সময়ে সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের দু’দেশের রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা থেকে মালে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে। ১৬৪ আসনের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে উদ্বোধনী ফ্লাইট পরিচালনা করা হয়।

গতকাল সকালে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনাল ভবনে ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিকভাবে ফ্লাইটটির কার্যক্রম উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। এ সময় অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন মালদ্বীপের হাই কমিশনার শীরুজিমাথ সামির, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক), সদস্য পরিচালনা ও পরিকল্পনা এয়ার কমোডর সাদিকুর রহমান চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য দেন ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন, বেবিচকের প্রধান প্রকৌশলী মো. আবদুল মালেক, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

দশম আন্তর্জাতিক রুট হিসেবে ইউএস-বাংলার বিমান বহরে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম গন্তব্য মালে অন্তর্ভুক্ত হলো বলেও জানানো হয়। এদিন সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে যাত্রী নিয়ে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মালদ্বীপের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় ইউএস বাংলার প্রথম ফ্লাইট। প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেন, ‘দ্রুত এগিয়ে চলছে দেশের এভিয়েশন শিল্প। উড়োজাহাজ চলাচলে প্রসারিত হচ্ছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক রুট, এভিয়েশন খাতে বিনিয়োগ বাড়ছে, বাড়ছে যাত্রী সেবার মান।’

মোহাম্মাদ আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘ভ্রমণপিপাসু বাংলাদেশি পর্যটক ও মালদ্বীপে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের বহুদিনের প্রত্যাশা পূরণ করেছে। দেশের বৃহৎ বেসরকারি এয়ারলাইন্স ইউএস বাংলা। বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র হিসেবে মালদ্বীপে বাংলাদেশি এয়ারলাইন্স হিসেবে ইউএস বাংলার ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত দুই দেশের বন্ধনকে আরও বেশি সুদৃঢ় করবে।’

তিনি আরও বলেন, মালদ্বীপে বসবাসকারী বাংলাদেশিদের মধ্যে ৯০ শতাংশই শ্রমিক। এত দিন মালদ্বীপ থেকে দেশে ফিরতে তাদের খরচ হতো কমপক্ষে ৬৫ হাজার টাকা, কিন্তু এখন আমরা শ্রমিক ভাইদের মাত্র ২৫ হাজার টাকায় দেশে আনতে পারব।

আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘আজ ঢাকা-মালদ্বীপ ফ্লাইট চালুর মধ্য দিয়ে প্রতি মাসে ১ মিলিয়ন ইউএস ডলার বাংলাদেশে ফরেন রেমিট্যান্স আসবে। আমরা শুধু যাত্রী পরিবহন করছি না, ফরেন রেমিট্যান্সও আনছি।’

প্রাথমিকভাবে ঢাকা-মালে রুটে সব প্রকার ট্যাক্স ও সারচার্জসহ ওয়ানওয়ের ন্যূনতম ভাড়া ২৯ হাজার ৫০৮ টাকা এবং ফিরতি ভাড়া ৪৫ হাজার ৫৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া মালদ্বীপ ভ্রমণে ইউএস-বাংলা হলিডে প্যাকেজও ঘোষণা করেছে।