‘প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগে আগ্রহ জাগাবে’

লন্ডন প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান সায়েদের কাছে প্রথম প্রশ্ন ছিল, অনেকেই সেখানে ব্যবসা-বাণিজ্যে ভালো অবস্থানে আছেন। দীর্ঘদিন লন্ডনের আলোবাতাসে বসবাস করলেও তাদের মন পড়ে থাকে বাংলাদেশে। কিন্তু তারা নিজের দেশে বিনিয়োগ করতে আগ্রহবোধ করেন না। এর কারণ কি?

লুৎফর রহমান সায়েদ অনেকটা অভিযোগের সুরে এ প্রশ্নের উত্তর দিলেন। তিনি বললেন, লন্ডনে অনেক প্রবাসী আছেন যারা দেশে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে পারে। কিন্তু তাদের দেশে গিয়ে বিনিয়োগ করার জন্য উদ্বুদ্ধ করতে বাংলাদেশ সরকার কি কোন উদ্যোগ নিয়েছে? বিনিয়োগ আকর্ষণ করার জন্য একটি সাধারণ বিষয় হচ্ছে-বিনিয়োগের সুযোগ সুবিধা এবং কি কি ক্ষেত্রে বিনিয়োগের সম্ভাবনা আছে তা তুলে ধরে বিভিন্ন দেশে ব্যবসায়ী-বিনিয়োগকারীদের মধ্যে প্রচারনা চালাতে হয়। আমি মনে করি, লন্ডনে প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যে এ ধরনের প্রচারণার অভাব ছিল।

লুৎফর রহমান সায়েদ সোনার বাংলা ট্র্রাভেলস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও যুক্তরাজ্যের ট্রাভেলস এজেন্টস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক। তার সঙ্গে কথা হচ্ছিল লন্ডনে তাজ হোটেলে বসে। গত ৪ নভেম্বর লন্ডনে প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হলো বাংলাদেশ বিনিয়োগ সম্মেলন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে সম্মেলনে বক্তৃতা দিয়ে প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার আহবান জানিয়ে বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সুযোগসুবিধা নিশ্চিত করার আশ্বাস দিয়েছেন। বিনিয়োগ সম্মেলনে দেখা হয় লুৎফর রহমান সায়েদের সঙ্গে। তিনি লন্ডনে বিনিয়োগ সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন। তার মতো অনেক প্রবাসী বাংলাদেশী বিনিয়োগ সম্মেলনে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া বিনিয়োগ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বক্তৃতা-পরামর্শ মনযোগ দিয়ে শুনেছেন। পরে সংবাদের পক্ষ থেকে লুৎফর রহমানের একটি সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকার নিই। সাক্ষাৎকারে তিনি নিজ দেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগ ভাবনা তুলে ধরেছেন।

সংবাদ : এবার লন্ডনে বিনিয়োগ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রবাসী এবং বৃটিশ ব্যবসায়ীদের প্রতি বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করার আহবান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর এ আশ্বাস এবং আহ্বান কতটা প্রভাব ফেলতে পারে বলে আনার মনে হয়?

লুৎফর রহমান সায়েদ : এবারের সম্মেলন প্রবাসীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বিনিয়োগ সম্মেলনে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কথা বলেছেন এবং অনেক সমস্যা সমাধানের ইঙ্গিত দিয়েছেন। এটা এখানকার প্রবাসী এবং বৃটিশ ব্যবসায়ীদের মধ্যে অত্যন্ত আস্থা জাগাবে। সম্মেলন শেষে আমি একাধিক ব্যবসায়ীর সঙ্গে আলাপ করেছি। তারা সবাই প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা ইতিবাচকভাবে দেখছেন। বিশেষ করে, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে গিয়ে যদি কোন সমস্যা দেখা দেয় তার সমাধানের জন্য তিনি বিশেষ উদ্যোগ নেবেন। আমরা এমনটাই চেয়েছিলাম।

সংবাদ : প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতার আর কোন বিষয়টি আপনি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন?

লুৎফর রহমান সায়েদ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লন্ডনে বিনিয়োগ সম্মেলনে অনেক কথা বলেছেন যা তার মুখ থেকে বলার পর প্রবাসীদের মধ্যে বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহ জাগাবে। যেমন তিনি বলেছেন, বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্যে সবজী রপ্তানীর জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন- কার্গো বিমান চালু, নিয়মিত ফ্লাইটে সবজীর জন্য বিশেষ ধরনের চেম্বার তৈরি করা ইত্যাদি- আমাদের মনে আশা জগিয়েছে। এছাড়া বিনিয়োগ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ীদের দেশে বিনিয়োগ করলে বিশেষ সুবিধা প্রদানের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রীর এসব কথা অত্যন্ত বাস্তবসম্মত।

সংবাদ : এবার লন্ডনে যে বিনিয়োগ সম্মেলন হল তা প্রবাসীদের মধ্যে সাড়া জাগিয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশে প্রবাসী বাংলাদেশী এবং বৃটিশ ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগ বাড়বে বলে আপনি মনে করেন?

লুৎফর রহমান সায়েদ : আমি আগেই বলেছি, লন্ডনে ব্যবসায়ী সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেসব কথা বলেছেন, সমস্যা সমাধানের যে আশ্বাস দিয়েছেন তা ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। প্রবাসীরা এখন দেশে বিনিয়োগে আরো বেশী আগ্রহী হবেন- এতে সন্দেহ নেই। তবে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস যাতে যথাযথ বাস্তবায়ন হয় সেদিকে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নজর রাখতে হবে। পুরো বিষয়টি মনিটর করতে হবে- কোন প্রবাসী দেশে বিনিয়োগ করতে গিয়ে কোন সমস্যায় পড়লে তা সমাধানের জন্য তড়িৎ গতিতে কাজ করতে হবে। যদি সমস্যার যথোপযুক্ত সমাধান দেয়া যায় তবে অবশ্যই বাংলাদেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগ বাড়বে।

সংবাদ : বাংলাদেশে বিনিয়োগের কোন সমস্যার কথা উল্লেখ করতে পারেন ?

লুৎফর রহমান সায়েদ : প্রথমত প্রধানমন্ত্রী সমস্যার সমাধাণ করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন, ফলে এখন প্রেক্ষাপট বদলে যাবে।

তবে আমার মতো অনেকেই মনে করেন বাংলাদেশে বিনিয়োগের একটি বড় সমস্যা হচ্ছে, বিভিন্ন বিষয়ে প্রয়োজনীয় অনুমতি-অনুমোদন পেতে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় পড়তে হয়ে বিনিয়োগকারীদের। এছাড়াও বিনিয়োগ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে বিনিয়োগকারীরা অপ্রয়োজনীয় হয়রানীর শিক্ষার হন। তবে আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের পর এসব সমস্যা হয়তো আর থাকবে না।

সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১ , ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

লন্ডন প্রবাসী ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান সায়েদের সাক্ষাৎকার

‘প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস প্রবাসীদের দেশে বিনিয়োগে আগ্রহ জাগাবে’

লন্ডন প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান সায়েদের কাছে প্রথম প্রশ্ন ছিল, অনেকেই সেখানে ব্যবসা-বাণিজ্যে ভালো অবস্থানে আছেন। দীর্ঘদিন লন্ডনের আলোবাতাসে বসবাস করলেও তাদের মন পড়ে থাকে বাংলাদেশে। কিন্তু তারা নিজের দেশে বিনিয়োগ করতে আগ্রহবোধ করেন না। এর কারণ কি?

লুৎফর রহমান সায়েদ অনেকটা অভিযোগের সুরে এ প্রশ্নের উত্তর দিলেন। তিনি বললেন, লন্ডনে অনেক প্রবাসী আছেন যারা দেশে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করতে পারে। কিন্তু তাদের দেশে গিয়ে বিনিয়োগ করার জন্য উদ্বুদ্ধ করতে বাংলাদেশ সরকার কি কোন উদ্যোগ নিয়েছে? বিনিয়োগ আকর্ষণ করার জন্য একটি সাধারণ বিষয় হচ্ছে-বিনিয়োগের সুযোগ সুবিধা এবং কি কি ক্ষেত্রে বিনিয়োগের সম্ভাবনা আছে তা তুলে ধরে বিভিন্ন দেশে ব্যবসায়ী-বিনিয়োগকারীদের মধ্যে প্রচারনা চালাতে হয়। আমি মনে করি, লন্ডনে প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যে এ ধরনের প্রচারণার অভাব ছিল।

লুৎফর রহমান সায়েদ সোনার বাংলা ট্র্রাভেলস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও যুক্তরাজ্যের ট্রাভেলস এজেন্টস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক। তার সঙ্গে কথা হচ্ছিল লন্ডনে তাজ হোটেলে বসে। গত ৪ নভেম্বর লন্ডনে প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হলো বাংলাদেশ বিনিয়োগ সম্মেলন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে সম্মেলনে বক্তৃতা দিয়ে প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার আহবান জানিয়ে বিনিয়োগকারীদের সব ধরনের সুযোগসুবিধা নিশ্চিত করার আশ্বাস দিয়েছেন। বিনিয়োগ সম্মেলনে দেখা হয় লুৎফর রহমান সায়েদের সঙ্গে। তিনি লন্ডনে বিনিয়োগ সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন। তার মতো অনেক প্রবাসী বাংলাদেশী বিনিয়োগ সম্মেলনে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া বিনিয়োগ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বক্তৃতা-পরামর্শ মনযোগ দিয়ে শুনেছেন। পরে সংবাদের পক্ষ থেকে লুৎফর রহমানের একটি সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকার নিই। সাক্ষাৎকারে তিনি নিজ দেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগ ভাবনা তুলে ধরেছেন।

সংবাদ : এবার লন্ডনে বিনিয়োগ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রবাসী এবং বৃটিশ ব্যবসায়ীদের প্রতি বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করার আহবান জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর এ আশ্বাস এবং আহ্বান কতটা প্রভাব ফেলতে পারে বলে আনার মনে হয়?

লুৎফর রহমান সায়েদ : এবারের সম্মেলন প্রবাসীদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বিনিয়োগ সম্মেলনে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কথা বলেছেন এবং অনেক সমস্যা সমাধানের ইঙ্গিত দিয়েছেন। এটা এখানকার প্রবাসী এবং বৃটিশ ব্যবসায়ীদের মধ্যে অত্যন্ত আস্থা জাগাবে। সম্মেলন শেষে আমি একাধিক ব্যবসায়ীর সঙ্গে আলাপ করেছি। তারা সবাই প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা ইতিবাচকভাবে দেখছেন। বিশেষ করে, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে গিয়ে যদি কোন সমস্যা দেখা দেয় তার সমাধানের জন্য তিনি বিশেষ উদ্যোগ নেবেন। আমরা এমনটাই চেয়েছিলাম।

সংবাদ : প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতার আর কোন বিষয়টি আপনি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন?

লুৎফর রহমান সায়েদ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লন্ডনে বিনিয়োগ সম্মেলনে অনেক কথা বলেছেন যা তার মুখ থেকে বলার পর প্রবাসীদের মধ্যে বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহ জাগাবে। যেমন তিনি বলেছেন, বাংলাদেশ থেকে যুক্তরাজ্যে সবজী রপ্তানীর জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন- কার্গো বিমান চালু, নিয়মিত ফ্লাইটে সবজীর জন্য বিশেষ ধরনের চেম্বার তৈরি করা ইত্যাদি- আমাদের মনে আশা জগিয়েছে। এছাড়া বিনিয়োগ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ীদের দেশে বিনিয়োগ করলে বিশেষ সুবিধা প্রদানের ঘোষণা দেন। প্রধানমন্ত্রীর এসব কথা অত্যন্ত বাস্তবসম্মত।

সংবাদ : এবার লন্ডনে যে বিনিয়োগ সম্মেলন হল তা প্রবাসীদের মধ্যে সাড়া জাগিয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশে প্রবাসী বাংলাদেশী এবং বৃটিশ ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগ বাড়বে বলে আপনি মনে করেন?

লুৎফর রহমান সায়েদ : আমি আগেই বলেছি, লন্ডনে ব্যবসায়ী সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেসব কথা বলেছেন, সমস্যা সমাধানের যে আশ্বাস দিয়েছেন তা ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। প্রবাসীরা এখন দেশে বিনিয়োগে আরো বেশী আগ্রহী হবেন- এতে সন্দেহ নেই। তবে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস যাতে যথাযথ বাস্তবায়ন হয় সেদিকে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নজর রাখতে হবে। পুরো বিষয়টি মনিটর করতে হবে- কোন প্রবাসী দেশে বিনিয়োগ করতে গিয়ে কোন সমস্যায় পড়লে তা সমাধানের জন্য তড়িৎ গতিতে কাজ করতে হবে। যদি সমস্যার যথোপযুক্ত সমাধান দেয়া যায় তবে অবশ্যই বাংলাদেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগ বাড়বে।

সংবাদ : বাংলাদেশে বিনিয়োগের কোন সমস্যার কথা উল্লেখ করতে পারেন ?

লুৎফর রহমান সায়েদ : প্রথমত প্রধানমন্ত্রী সমস্যার সমাধাণ করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন, ফলে এখন প্রেক্ষাপট বদলে যাবে।

তবে আমার মতো অনেকেই মনে করেন বাংলাদেশে বিনিয়োগের একটি বড় সমস্যা হচ্ছে, বিভিন্ন বিষয়ে প্রয়োজনীয় অনুমতি-অনুমোদন পেতে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় পড়তে হয়ে বিনিয়োগকারীদের। এছাড়াও বিনিয়োগ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে বিনিয়োগকারীরা অপ্রয়োজনীয় হয়রানীর শিক্ষার হন। তবে আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসের পর এসব সমস্যা হয়তো আর থাকবে না।