হাসপাতালে গৃহবধূর মরদেহ রেখে পালাল শ্বশুরবাড়ির লোকজন!

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে হাসপাতালে কোহিনুর বেগম (৩২) নামের এক গৃহবধূর লাশ রেখে স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজনকে পালানোর অভিযোগ উঠেছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে গত সোমবার বিকেলে ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। এদিন দুপুরে গৃহবধূ কোহিনুর বেগমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মৃত অবস্থায় আনা হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে। তিনি উপজেলার হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের বলিয়া গ্রামের সর্দার বাড়ির নজরুল ইসলামের (৪২) স্ত্রী ও একই উপজেলার বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের নোয়াদ্দা গ্রামের আলমগীর হোসেনের মেয়ে। স্বামীর পরিবার থেকে আত্মহত্যার কথা বলা হলেও নিহত গৃহবধূর বাবার পরিবার দাবি করেছেন, কোহিনুর বেগমকে হত্যা করে হাসপাতালে লাশ রেখে পালিয়েছে স্বামী ও তার শ্বাশুড়িসহ শশুর বাড়ির অন্যান্য লোকজন। তবে ওই এলাকার লোকজন নিহতের বিষয়টি রহস্যজনক বলে জানান।

বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১ , ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

হাসপাতালে গৃহবধূর মরদেহ রেখে পালাল শ্বশুরবাড়ির লোকজন!

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে হাসপাতালে কোহিনুর বেগম (৩২) নামের এক গৃহবধূর লাশ রেখে স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজনকে পালানোর অভিযোগ উঠেছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে গত সোমবার বিকেলে ময়নাতদন্তের জন্য চাঁদপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। এদিন দুপুরে গৃহবধূ কোহিনুর বেগমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মৃত অবস্থায় আনা হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে। তিনি উপজেলার হাটিলা পূর্ব ইউনিয়নের বলিয়া গ্রামের সর্দার বাড়ির নজরুল ইসলামের (৪২) স্ত্রী ও একই উপজেলার বড়কুল পূর্ব ইউনিয়নের নোয়াদ্দা গ্রামের আলমগীর হোসেনের মেয়ে। স্বামীর পরিবার থেকে আত্মহত্যার কথা বলা হলেও নিহত গৃহবধূর বাবার পরিবার দাবি করেছেন, কোহিনুর বেগমকে হত্যা করে হাসপাতালে লাশ রেখে পালিয়েছে স্বামী ও তার শ্বাশুড়িসহ শশুর বাড়ির অন্যান্য লোকজন। তবে ওই এলাকার লোকজন নিহতের বিষয়টি রহস্যজনক বলে জানান।