সেরা করদাতা হতে সবসময়ই ভালো লাগে : কাউছ মিয়া

টানা ১৩ বারের মতো সেরা করদাতা নির্বাচিত হয়েছেন পুরান ঢাকার হাকিমপুরী জর্দ্দার ব্যবসায়ী মো. কাউছ মিয়া। এর মধ্যে একবার মুজিববর্ষের সেরা করদাতা হিসাবেও বিশেষ সম্মাননা পান তিনি। এছাড়া ১৯৬৭ সালে পাকিস্তান সরকারের সময় শীর্ষ করদাতা হয়েছিলেন। সব মিলিয়ে কাউছ মিয়া ১৪ বার সেরা করদাতা হিসাবে রাষ্ট্রীয় পুরস্কার পান।

গতকাল দুপুরে ঢাকা অফিসার্স ক্লাবে সর্বোচ্চ করদাতা সম্মাননা গ্রহণ করে ৯০ বছর বয়সী কাউছ মিয়া বলেন, বয়স হয়েছে। বেশি কথা বলতে পারি না। সেরা করদাতা হতে সবসময়ই ভালো লাগে। স্বাধীনতার আগে এক বার সেরা করদাতা হয়েছি। আর ২০০৮ সাল থেকে টানা সেরা করদাতা হচ্ছি।

গত ১৭ নভেম্বর সেরা করদাতাদের নাম চূড়ান্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করে এনবিআর। ২০০৮ সাল থেকে কাউছ মিয়া দেশে ব্যবসায়ী শ্রেণীতে সর্বোচ্চ করদাতার একজন। কাউছ মিয়া ৬১ বছর ধরে কর দিয়ে আসছেন। ১৯৫৮ সালে প্রথম কর দেন। চাঁদপুর জেলার রাজরাজেস্বর গ্রামে (ব্রিটিশ আমলের ত্রিপুরা) ১৯৩১ সালের ২৬ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন তিনি। বাবার অনিচ্ছা সত্ত্বেও তিনি মায়ের কাছ থেকে টাকা নিয়ে ১৯৫০ সালে চাঁদপুরের পুরান বাজারে মুদিদোকান খোলেন।

এরপর ধীরে ধীরে ১৮টি ব্র্যান্ডের সিগারেট, বিস্কুট ও সাবানের এজেন্ট ছিলেন। পরের ২০ বছর তিনি চাঁদপুরেই ব্যবসা করেন।

বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১ , ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ ১৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

সেরা করদাতা হতে সবসময়ই ভালো লাগে : কাউছ মিয়া

টানা ১৩ বারের মতো সেরা করদাতা নির্বাচিত হয়েছেন পুরান ঢাকার হাকিমপুরী জর্দ্দার ব্যবসায়ী মো. কাউছ মিয়া। এর মধ্যে একবার মুজিববর্ষের সেরা করদাতা হিসাবেও বিশেষ সম্মাননা পান তিনি। এছাড়া ১৯৬৭ সালে পাকিস্তান সরকারের সময় শীর্ষ করদাতা হয়েছিলেন। সব মিলিয়ে কাউছ মিয়া ১৪ বার সেরা করদাতা হিসাবে রাষ্ট্রীয় পুরস্কার পান।

গতকাল দুপুরে ঢাকা অফিসার্স ক্লাবে সর্বোচ্চ করদাতা সম্মাননা গ্রহণ করে ৯০ বছর বয়সী কাউছ মিয়া বলেন, বয়স হয়েছে। বেশি কথা বলতে পারি না। সেরা করদাতা হতে সবসময়ই ভালো লাগে। স্বাধীনতার আগে এক বার সেরা করদাতা হয়েছি। আর ২০০৮ সাল থেকে টানা সেরা করদাতা হচ্ছি।

গত ১৭ নভেম্বর সেরা করদাতাদের নাম চূড়ান্ত করে প্রজ্ঞাপন জারি করে এনবিআর। ২০০৮ সাল থেকে কাউছ মিয়া দেশে ব্যবসায়ী শ্রেণীতে সর্বোচ্চ করদাতার একজন। কাউছ মিয়া ৬১ বছর ধরে কর দিয়ে আসছেন। ১৯৫৮ সালে প্রথম কর দেন। চাঁদপুর জেলার রাজরাজেস্বর গ্রামে (ব্রিটিশ আমলের ত্রিপুরা) ১৯৩১ সালের ২৬ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন তিনি। বাবার অনিচ্ছা সত্ত্বেও তিনি মায়ের কাছ থেকে টাকা নিয়ে ১৯৫০ সালে চাঁদপুরের পুরান বাজারে মুদিদোকান খোলেন।

এরপর ধীরে ধীরে ১৮টি ব্র্যান্ডের সিগারেট, বিস্কুট ও সাবানের এজেন্ট ছিলেন। পরের ২০ বছর তিনি চাঁদপুরেই ব্যবসা করেন।