করোনা : ১১ সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এই সংখ্যা এক মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে গত ২৫ নভেম্বর ৯ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃত্যু বেড়ে ২৮ হাজার ৭০ জনে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে নতুন করে ৫০৯ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। দৈনিক শনাক্ত হিসেবে যা গত ১১ সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ। সবশেষ গত ১৩ অক্টোবর ৫১১ জন আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। এরপর থেকে দৈনিক সংক্রমণ ৫০০ জনের নিচে ছিল। এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৮৫ হাজার ২৭ জনে। তাদের মধ্যে মোট ২৮ হাজার ৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গত একদিনে যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৪৩৮ জনই ঢাকা বিভাগের যা মোট আক্রান্তের শতকর ৮৬ শতাংশের বেশি। দেশের ৩০ জেলায় এক দিনে নতুন কারও আক্রান্ত হওয়ার খবর আসেনি।

গতকাল বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গত বুধবার করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৪৯৫ জনের এবং মৃত্যু হয়েছিল একজনের। সেই হিসাবে নতুন রোগীর সংখ্যা আগের দিনের তুলনায় অনেক বেড়েছে। এতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩৯৫ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হলেন ১৫ লাখ ৪৮ হাজার ৮১১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ২২ হাজার ৬৬৮টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ২২ হাজার ৬৬৭টি নমুনা। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার দুই দশমিক ২৫ শতাংশ, যা আগেরদিন দুই দশমিক ৩৭ শতাংশ ছিল। মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮২ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৭২ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ব্যক্তির মধ্যে চারজন পুরুষ, তিনজন নারী। তাদের মধ্যে চারজনের বয়স ছিল ষাটের বেশি। দুইজনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, একজনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ছিল। তাদের পাঁচজন সরকারি হাসপাতালে এবং দুইজন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ঢাকা বিভাগেরই পাঁচজন। এ ছাড়া চট্টগ্রাম ও রাজশাহী বিভাগে রয়েছেন একজন করে। বাকি বিভাগগুলোতে গত একদিনে আর কেউ মারা যায়নি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। চলতি বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়।

শুক্রবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ , ১৬ পৌষ ১৪২৮ ২৬ জমাদিউল আউয়াল

করোনা : ১১ সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এই সংখ্যা এক মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে গত ২৫ নভেম্বর ৯ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃত্যু বেড়ে ২৮ হাজার ৭০ জনে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে নতুন করে ৫০৯ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। দৈনিক শনাক্ত হিসেবে যা গত ১১ সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ। সবশেষ গত ১৩ অক্টোবর ৫১১ জন আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। এরপর থেকে দৈনিক সংক্রমণ ৫০০ জনের নিচে ছিল। এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৮৫ হাজার ২৭ জনে। তাদের মধ্যে মোট ২৮ হাজার ৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গত একদিনে যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৪৩৮ জনই ঢাকা বিভাগের যা মোট আক্রান্তের শতকর ৮৬ শতাংশের বেশি। দেশের ৩০ জেলায় এক দিনে নতুন কারও আক্রান্ত হওয়ার খবর আসেনি।

গতকাল বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গত বুধবার করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৪৯৫ জনের এবং মৃত্যু হয়েছিল একজনের। সেই হিসাবে নতুন রোগীর সংখ্যা আগের দিনের তুলনায় অনেক বেড়েছে। এতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩৯৫ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হলেন ১৫ লাখ ৪৮ হাজার ৮১১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ২২ হাজার ৬৬৮টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ২২ হাজার ৬৬৭টি নমুনা। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার দুই দশমিক ২৫ শতাংশ, যা আগেরদিন দুই দশমিক ৩৭ শতাংশ ছিল। মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮২ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৭২ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ব্যক্তির মধ্যে চারজন পুরুষ, তিনজন নারী। তাদের মধ্যে চারজনের বয়স ছিল ষাটের বেশি। দুইজনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, একজনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ছিল। তাদের পাঁচজন সরকারি হাসপাতালে এবং দুইজন বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ঢাকা বিভাগেরই পাঁচজন। এ ছাড়া চট্টগ্রাম ও রাজশাহী বিভাগে রয়েছেন একজন করে। বাকি বিভাগগুলোতে গত একদিনে আর কেউ মারা যায়নি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। চলতি বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়।