করোনা : বছরের শেষ দিনে শনাক্ত ৫শ’র ওপরে

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের দাপটের মধ্যে বাংলাদেশে একদিনে নতুন রোগীর সংখ্যা পাঁচশর ওপরেই রয়েছে। এ সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৫১২ জন। শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৮৫ হাজার ৫৩৯ জনে।

এর আগে সর্বশেষ ১৩ অক্টোবর এর চেয়ে বেশি ৫১১ জন রোগীর সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। এরপর থেকে দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা পাঁচশর নিচেই ছিল। গত একদিনে যারা আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের মধ্যে ৪২৯ জনই ঢাকা বিভাগের, যা মোট আক্রান্তের ৮৩ শতাংশের বেশি। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে ২৮ হাজার ৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৫০৯ জনের এবং মৃত্যু হয়েছিল সাতজনের।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, একদিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৯০ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৪৯ হাজার ১০১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ হাজার ৫২২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৮ হাজার ৬৭৩টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার দুই দশমিক ৭৪ শতাংশ। দেশে এখন পর্যন্ত করোনাতে রোগী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮০ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৭০ শতাংশ আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া দুইজনের মধ্যে এক জন পুরুষ ও এক জন নারী। তাদের মধ্যে একজনের বয়স ছিল ষাটের বেশি। একজনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ছিল। তারা দুজনই সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া দুইজনের মধ্যে এক জন ঢাকা বিভাগের, অপর ব্যক্তি খুলনা বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। বাকি ছয় বিভাগে একদিনে করোনাভাইরাসে কেউ মারা যায়নি।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। গত বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়।

শনিবার, ০১ জানুয়ারী ২০২২ , ১৭ পৌষ ১৪২৮ ২৭ জমাদিউল আউয়াল

করোনা : বছরের শেষ দিনে শনাক্ত ৫শ’র ওপরে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের দাপটের মধ্যে বাংলাদেশে একদিনে নতুন রোগীর সংখ্যা পাঁচশর ওপরেই রয়েছে। এ সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৫১২ জন। শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৮৫ হাজার ৫৩৯ জনে।

এর আগে সর্বশেষ ১৩ অক্টোবর এর চেয়ে বেশি ৫১১ জন রোগীর সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। এরপর থেকে দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা পাঁচশর নিচেই ছিল। গত একদিনে যারা আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের মধ্যে ৪২৯ জনই ঢাকা বিভাগের, যা মোট আক্রান্তের ৮৩ শতাংশের বেশি। দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে ২৮ হাজার ৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গতকাল সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৫০৯ জনের এবং মৃত্যু হয়েছিল সাতজনের।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, একদিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২৯০ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৪৯ হাজার ১০১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ হাজার ৫২২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৮ হাজার ৬৭৩টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার দুই দশমিক ৭৪ শতাংশ। দেশে এখন পর্যন্ত করোনাতে রোগী শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮০ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৭০ শতাংশ আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৭৭ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া দুইজনের মধ্যে এক জন পুরুষ ও এক জন নারী। তাদের মধ্যে একজনের বয়স ছিল ষাটের বেশি। একজনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ছিল। তারা দুজনই সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া দুইজনের মধ্যে এক জন ঢাকা বিভাগের, অপর ব্যক্তি খুলনা বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। বাকি ছয় বিভাগে একদিনে করোনাভাইরাসে কেউ মারা যায়নি।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। গত বছরের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বোচ্চ ২৬৪ জনের মৃত্যু হয়।