সাঘাটায় উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১৩৪ জনের নামে মামলা

নির্বাচনী সহিংসতা

আ’লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীর নির্বাচনী ক্যাম্পে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার সাঘাটা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরহাদ হোসেন ও জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবিরকে আসামি করে ১৩৪ জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী মোশারফ হোসেন সুইটের ভাই জাহিদ হোসেন বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় ওই ইউনিয়নে দু’প্রার্থীর কর্মী সমর্থকসহ এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

জানা গেছে, গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার সাঘাটা ইউনিয়নে আ’লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী মোশারফ হোসেন সুইটের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিদ্রোহী) ফরহাদ হোসেনের (আনারস) কর্মী-সমর্থকরা। এ সময় সড়কে থাকা বেশকিছু মোটরসাইকেলও ভাঙচুর করা হয়। ভাঙচুর করা মোটরসাইকেলের মধ্যে অন্তত ৫টি সাধারণ লোকজনের।

এ ঘটনায় পুলিশ স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক ফিরোজ মিয়া ও কলিম উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে ওইদিনই জেলহাজতে পাঠায়। মামলার ব্যাপারে কথা হলে সাঘাটা থানার ওসি মতিউর রহমান জানান, নৌকার প্রার্থীর অফিস ও মোটরসাইকেল ভাঙচুরের ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ১৩৪ জনকে আসামি করে মামলা রেকর্ড হয়েছে।

বৃহস্পতিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২২ , ২২ পৌষ ১৪২৮ ২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সাঘাটায় উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১৩৪ জনের নামে মামলা

নির্বাচনী সহিংসতা

প্রতিনিধি, গাইবান্ধা

আ’লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থীর নির্বাচনী ক্যাম্পে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার সাঘাটা ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরহাদ হোসেন ও জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর কবিরকে আসামি করে ১৩৪ জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী মোশারফ হোসেন সুইটের ভাই জাহিদ হোসেন বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনায় ওই ইউনিয়নে দু’প্রার্থীর কর্মী সমর্থকসহ এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

জানা গেছে, গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার সাঘাটা ইউনিয়নে আ’লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী মোশারফ হোসেন সুইটের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিদ্রোহী) ফরহাদ হোসেনের (আনারস) কর্মী-সমর্থকরা। এ সময় সড়কে থাকা বেশকিছু মোটরসাইকেলও ভাঙচুর করা হয়। ভাঙচুর করা মোটরসাইকেলের মধ্যে অন্তত ৫টি সাধারণ লোকজনের।

এ ঘটনায় পুলিশ স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক ফিরোজ মিয়া ও কলিম উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে ওইদিনই জেলহাজতে পাঠায়। মামলার ব্যাপারে কথা হলে সাঘাটা থানার ওসি মতিউর রহমান জানান, নৌকার প্রার্থীর অফিস ও মোটরসাইকেল ভাঙচুরের ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ ১৩৪ জনকে আসামি করে মামলা রেকর্ড হয়েছে।