সিলেটে আটক দুই রিটার্নিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

জকিগঞ্জের একটি ভোটকেন্দ্রের সামনে থেকে সিল দেয়া ব্যালটসহ আটক করা দুই রিটার্নিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার জকিগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক আবদুল হাকিম বাদী হয়ে স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ আইনে এই মামলাটি দায়ের করেন বলে জানান সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) লুৎফুর রহমান। দুপুরে তিনি বলেন, মামলা হলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আরিফুল হক ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাদমান সাকিবকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

গত বুধবার বিকেলে সিল মারা ব্যালটসহ এই দুজনকে আটক করেছিল পুলিশ। গত বুধবার অনুষ্ঠিত জকিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্বে ছিলেন আরিফুল ও সাদমান। আটকের পর পুলিশ জানায়, তারা সিল মারা ব্যালট গাড়িতে করে নিয়ে উপজেলার কাজলসার ইউনিয়নের বিভিন্ন কেন্দ্রে পৌঁছে দিচ্ছিলেন। ভোট শেষ হওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে সিলেটের জেলা প্রশাসক (ডিসি) এম কাজী এমদাদুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার (এসপি) ফরিদ উদ্দিন ওই দুইজনকে আটক করেন। এ ঘটনায় কাজলসার ইউনিয়নের ভোট স্থগিত করা হয়।

জানা গেছে, বুধবার জকিগঞ্জের আরও কয়েকটি ইউনিয়নের সঙ্গে কাজলসার ও বারহাল ইউপিতেও ভোটগ্রহণ হয়। নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা আরিফুল হক ও সাদমান সাকিবের সন্দেহজনক আচরণ এবং কেন্দ্রগুলোতে ব্যালট পেপার কম হওয়ায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বিকেলে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে উপজেলার মরিচা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়। পরে তাদের গাড়িতে তল্লশি করে সিল মারা এক হাজার ২০০টি ব্যালট পেপার ও সিলবিহীন ৪৫৬টি ব্যালট পেপার জব্দ করা হয়। পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, কৃষি কর্মকর্তা আরিফুল হকের গাড়ি তল্লাশি করে এক লাখ সাড়ে ২১ হাজার টাকা, একটি ফেনসিডিল, ইয়াবা সেবনের সরঞ্জামও জব্দ করা হয়েছে।

শনিবার, ০৮ জানুয়ারী ২০২২ , ২৪ পৌষ ১৪২৮ ৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সিলেটে আটক দুই রিটার্নিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

প্রতিনিধি, সিলেট

জকিগঞ্জের একটি ভোটকেন্দ্রের সামনে থেকে সিল দেয়া ব্যালটসহ আটক করা দুই রিটার্নিং কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার জকিগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক আবদুল হাকিম বাদী হয়ে স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ আইনে এই মামলাটি দায়ের করেন বলে জানান সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) লুৎফুর রহমান। দুপুরে তিনি বলেন, মামলা হলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আরিফুল হক ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাদমান সাকিবকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

গত বুধবার বিকেলে সিল মারা ব্যালটসহ এই দুজনকে আটক করেছিল পুলিশ। গত বুধবার অনুষ্ঠিত জকিগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্বে ছিলেন আরিফুল ও সাদমান। আটকের পর পুলিশ জানায়, তারা সিল মারা ব্যালট গাড়িতে করে নিয়ে উপজেলার কাজলসার ইউনিয়নের বিভিন্ন কেন্দ্রে পৌঁছে দিচ্ছিলেন। ভোট শেষ হওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে সিলেটের জেলা প্রশাসক (ডিসি) এম কাজী এমদাদুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার (এসপি) ফরিদ উদ্দিন ওই দুইজনকে আটক করেন। এ ঘটনায় কাজলসার ইউনিয়নের ভোট স্থগিত করা হয়।

জানা গেছে, বুধবার জকিগঞ্জের আরও কয়েকটি ইউনিয়নের সঙ্গে কাজলসার ও বারহাল ইউপিতেও ভোটগ্রহণ হয়। নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা আরিফুল হক ও সাদমান সাকিবের সন্দেহজনক আচরণ এবং কেন্দ্রগুলোতে ব্যালট পেপার কম হওয়ায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে বিকেলে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উপস্থিতিতে উপজেলার মরিচা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে তাদের আটক করা হয়। পরে তাদের গাড়িতে তল্লশি করে সিল মারা এক হাজার ২০০টি ব্যালট পেপার ও সিলবিহীন ৪৫৬টি ব্যালট পেপার জব্দ করা হয়। পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, কৃষি কর্মকর্তা আরিফুল হকের গাড়ি তল্লাশি করে এক লাখ সাড়ে ২১ হাজার টাকা, একটি ফেনসিডিল, ইয়াবা সেবনের সরঞ্জামও জব্দ করা হয়েছে।