সরকার এখনই লকডাউন দেয়ার কথা ভাবছে না পররাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে আপাতত লকডাউন দেয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। সরকারও এখনই লকডাউন দেয়ার কথা ভাবছে না বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. মোমেন। গতকাল রাজধানীর মহাখালীতে শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ঢাকায় নিযুক্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও তাদের স্বজনদের জন্য করোনার বুস্টার ডোজের উদ্বোধন শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন এসব কথা বলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আবদুল মোমেন বলেন, অনেক মানুষ বেশি সাবধান থাকতে চায়, তাই তারা লকডাউন চাচ্ছেন। তবে ভালো খবর হচ্ছে ওমিক্রনের আক্রান্তদের মৃত্যুহার অনেক কম। ইতোমধ্যে দেশে আমরা সাড়ে ৭ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দিয়েছি। এখন আমি বলতে পারি আমাদের হাতে সাড়ে ৩ কোটি ভ্যাকসিন রয়েছে বা পেতে যাচ্ছি। দেশের সবাইকেই ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে।

তিনি বলেন, আমাদের মানুষদের বিদেশ যাওয়া-আসার বিষয়ে নিরুৎসাহিত করছি। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ভ্রমণে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা জোরদার করা হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, ওমিক্রন এসে গেছে। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি আমাকে বলেছেন ভারতে একদিনেই লাখের ওপর ওমিক্রনে আক্রান্ত হচ্ছে। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে ১০ লাখ লোক আক্রান্তের খবর মিডিয়া প্রচার করেছে। এ সময় মন্ত্রী ওমিক্রন থেকে নিজেদের রক্ষা করতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধিটা মেনে চলতে আহ্বান জানান।

দুবাই এবং কাতারে আমাদের অনেক প্রবাসী বাঙালি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সেখানে যারা গিয়েছিল, তারা খাওয়া-দাওয়া ঠিক মতো করেনি। উল্টা-পাল্টা খাবার খেয়েছে। তারপর অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এখানে অ্যাকশন নেয়ার কিছু নেই।

চলতি বছরে সীমান্তহত্যা জিরো দেখতে চাই বলে মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকার-ভারত সরকার দুই সরকারই বারবার অঙ্গীকার করেছে, সিদ্ধান্ত নিয়েছে একটি লোকও আমাদের সীমান্তে মারা যাক আমরা তা চাই না। কিন্তু মাঝে মাঝে ঘটনা ঘটে, ২০২২ সালে আমরা দেখতে চাই জিরো।

এ সময় বিদেশি কূটনীতিকদের মধ্যে ভারত, ব্রাজিল, ভ্যাটিকান সিটি, মালয়েশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনাররা টিকার বুস্টার ডোজ নেন।

আরও খবর
গবেষণায় সময় দিতে চিকিৎসকদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান
ইসি গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আ’লীগের সংলাপ ১৭ জানুয়ারি
এক নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে ওলট-পালট
জনগণ কখনো গডফাদারকে গ্রহণ করেনি : আইভী
মাউশিতে কর্মচারী নিয়োগে অনিয়ম অভিযান চলছে দুদকের
তীব্র শীতের কারণে শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ লক্ষাধিকের, মৃত্যু ১৬
ধলেশ্বরীতে ট্রলার ডুবি, চার দিন পর ৬ লাশ উদ্ধার
পিপিপি ভিত্তিতে নির্মাণ হবে চার লেনের মহাসড়ক
গারো কিশোরী ধর্ষণ মামলায় ৫ আসামি রিমান্ডে
জামালপুরে মা-মেয়েকে খুন করা হয় ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে
উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের আগুন
প্রতিবন্ধী আরফাতুলের স্বপ্ন পুড়ে ছাই করে দিল সন্ত্রাসীরা
৮ জানুয়ারি, ১৯৭২ : লন্ডনে বঙ্গবন্ধু

সোমবার, ১০ জানুয়ারী ২০২২ , ২৬ পৌষ ১৪২৮ ৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সরকার এখনই লকডাউন দেয়ার কথা ভাবছে না পররাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশের বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে আপাতত লকডাউন দেয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। সরকারও এখনই লকডাউন দেয়ার কথা ভাবছে না বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. মোমেন। গতকাল রাজধানীর মহাখালীতে শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে ঢাকায় নিযুক্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও তাদের স্বজনদের জন্য করোনার বুস্টার ডোজের উদ্বোধন শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন এসব কথা বলেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আবদুল মোমেন বলেন, অনেক মানুষ বেশি সাবধান থাকতে চায়, তাই তারা লকডাউন চাচ্ছেন। তবে ভালো খবর হচ্ছে ওমিক্রনের আক্রান্তদের মৃত্যুহার অনেক কম। ইতোমধ্যে দেশে আমরা সাড়ে ৭ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দিয়েছি। এখন আমি বলতে পারি আমাদের হাতে সাড়ে ৩ কোটি ভ্যাকসিন রয়েছে বা পেতে যাচ্ছি। দেশের সবাইকেই ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে।

তিনি বলেন, আমাদের মানুষদের বিদেশ যাওয়া-আসার বিষয়ে নিরুৎসাহিত করছি। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ভ্রমণে স্বাস্থ্য নিরাপত্তা জোরদার করা হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, ওমিক্রন এসে গেছে। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি আমাকে বলেছেন ভারতে একদিনেই লাখের ওপর ওমিক্রনে আক্রান্ত হচ্ছে। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে ১০ লাখ লোক আক্রান্তের খবর মিডিয়া প্রচার করেছে। এ সময় মন্ত্রী ওমিক্রন থেকে নিজেদের রক্ষা করতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধিটা মেনে চলতে আহ্বান জানান।

দুবাই এবং কাতারে আমাদের অনেক প্রবাসী বাঙালি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সেখানে যারা গিয়েছিল, তারা খাওয়া-দাওয়া ঠিক মতো করেনি। উল্টা-পাল্টা খাবার খেয়েছে। তারপর অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এখানে অ্যাকশন নেয়ার কিছু নেই।

চলতি বছরে সীমান্তহত্যা জিরো দেখতে চাই বলে মন্তব্য করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকার-ভারত সরকার দুই সরকারই বারবার অঙ্গীকার করেছে, সিদ্ধান্ত নিয়েছে একটি লোকও আমাদের সীমান্তে মারা যাক আমরা তা চাই না। কিন্তু মাঝে মাঝে ঘটনা ঘটে, ২০২২ সালে আমরা দেখতে চাই জিরো।

এ সময় বিদেশি কূটনীতিকদের মধ্যে ভারত, ব্রাজিল, ভ্যাটিকান সিটি, মালয়েশিয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনাররা টিকার বুস্টার ডোজ নেন।