সূচক ফের সাত হাজার পয়েন্টে, লেনদেন তিন মাসে সর্বোচ্চ

আগের কার্যদিবসের মতো সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস গতকাল বড় উত্থান হয়েছে শেয়ারবাজারে। এদিন শেয়ারবাজারের সব সূচক বেড়েছে। সূচকের সাথে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর এবং টাকার পরিমাণে লেনদেও বেড়েছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন তিন মাসের মধ্যে সবচেয়ে বেশি হয়েছে আর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এক মাস পর সাত হাজার পয়েন্স ছাড়াল।

গতকাল প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৫৪.৯৯ পয়েন্ট বা ০.৭৮ শতাংশ বেড়ে সাত হাজার ৪৯.১৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। ডিএসইর এই সূচকটি এক মাস চার দিন বা ২৩ কার্যদিবস পর আবার সাত হাজার পয়েন্ট অতিক্রম করেছে। এর আগে আগের বছরের ৭ ডিসেম্বর সূচকটি সাত হাজার ৪ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। গতকাল ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১৫.১৮ পয়েন্ট বা ১.০২ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২০.১১ পয়েন্ট বা ০.৭৭ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৪৯৫.৮৭ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ৬২৬.৬৬ পয়েন্টে।

ডিএসইতে গতকাল এক হাজার ৯৭৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ডিএসইর গতকালকের লেনদেন তিন মাস চার দিন বা ৬৫ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বোচ্চ। আগের বছরের ৭ অক্টোবর গতকালকের চেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছিল। ওই দিন লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ৪৯৭ কোটি টাকার। ডিএসইতে গতকাল ৩৭৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৮৯টির বা ৫০ শতাংশ শেয়ার ও ইউনিটের দর বেড়েছে। দর কমেছে ১৪৬টির বা ৩৮.৬২ শতাংশের এবং ৪৩টি বা ১১.৩৮ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১৮৯.৫৬ পয়েন্ট বা ০.৯২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার ৬৬৭.৩৫ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ৩১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১৬৫টির, কমেছে ১১৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩১টির দর। গতকাল সিএসইতে ৬২ কোটি ৭০ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ১৪৬টির বা ৩৮.৬২ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের অনাগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের কার্যদিবস খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১১.৬০ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়িয়েছে ১০.৮০ টাকায়। অর্থাৎ কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.৮০ টাকা বা ৬.৮৯ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং ডিএসইর টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে।

এদিন ডিএসইতে টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৫.১৯ শতাংশ, খান ব্রাদার্সের ৫.১৪ শতাংশ, এমারেল্ড অয়েলের ৫.০২ শতাংশ, রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স ওয়ান মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৪.৯১ শতাংশ, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৬৮ শতাংশ, পদ্মা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৫৫ শতাংশ, মেঘনা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৪৭ শতাংশ, সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৪৪ শতাংশ এবং অলটেক্সের শেয়ার দর ৪.৪৪ শতাংশ কমেছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ১৮৯টির বা ৫০ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে ইস্টার্ন কেবলসের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের কার্যদিবস ইস্টার্ন কেবলসের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৩৫.৩০ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়িয়েছে ১৪৮.৮০ টাকায়। অর্থাৎ কোম্পানিটির শেয়ার দর ১৩.৫০ টাকা বা ৯.৯৭ শতাংশ বেড়েছে। এর মাধ্যমে ইস্টার্ন কেবলস ডিএসইর টপটেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে।

এদিন ডিএসইতে টপটেন গেইনার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে তিতাস গ্যাসের ৯.৯৭ শতাংশ, ন্যাশনাল টিউবসের ৯.৯৬ শতাংশ, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের ৯.৯৩ শতাংশ, আরএকে সিরামিকের ৯.৯৩ শতাংশ, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৯.৯২ শতাংশ, বসুন্ধরা পেপারের ৯.৮৫ শতাংশ, স্যোসাল ইসলামী ব্যাংকের ৯.৭৪ শতাংশ, বিবিএস কেবলসের ৯.৫৮ শতাংশ এবং ইফাদ অটোসের শেয়ার দর ৯.৪৭ শতাংশ বেড়েছে।

বুধবার, ১২ জানুয়ারী ২০২২ , ২৮ পৌষ ১৪২৮ ৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সূচক ফের সাত হাজার পয়েন্টে, লেনদেন তিন মাসে সর্বোচ্চ

image

আগের কার্যদিবসের মতো সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবস গতকাল বড় উত্থান হয়েছে শেয়ারবাজারে। এদিন শেয়ারবাজারের সব সূচক বেড়েছে। সূচকের সাথে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর এবং টাকার পরিমাণে লেনদেও বেড়েছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন তিন মাসের মধ্যে সবচেয়ে বেশি হয়েছে আর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এক মাস পর সাত হাজার পয়েন্স ছাড়াল।

গতকাল প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৫৪.৯৯ পয়েন্ট বা ০.৭৮ শতাংশ বেড়ে সাত হাজার ৪৯.১৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। ডিএসইর এই সূচকটি এক মাস চার দিন বা ২৩ কার্যদিবস পর আবার সাত হাজার পয়েন্ট অতিক্রম করেছে। এর আগে আগের বছরের ৭ ডিসেম্বর সূচকটি সাত হাজার ৪ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। গতকাল ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১৫.১৮ পয়েন্ট বা ১.০২ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২০.১১ পয়েন্ট বা ০.৭৭ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৪৯৫.৮৭ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ৬২৬.৬৬ পয়েন্টে।

ডিএসইতে গতকাল এক হাজার ৯৭৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ডিএসইর গতকালকের লেনদেন তিন মাস চার দিন বা ৬৫ কার্যদিবসের মধ্যে সর্বোচ্চ। আগের বছরের ৭ অক্টোবর গতকালকের চেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছিল। ওই দিন লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ৪৯৭ কোটি টাকার। ডিএসইতে গতকাল ৩৭৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৮৯টির বা ৫০ শতাংশ শেয়ার ও ইউনিটের দর বেড়েছে। দর কমেছে ১৪৬টির বা ৩৮.৬২ শতাংশের এবং ৪৩টি বা ১১.৩৮ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১৮৯.৫৬ পয়েন্ট বা ০.৯২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার ৬৬৭.৩৫ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ৩১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১৬৫টির, কমেছে ১১৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩১টির দর। গতকাল সিএসইতে ৬২ কোটি ৭০ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ১৪৬টির বা ৩৮.৬২ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের অনাগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের কার্যদিবস খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১১.৬০ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়িয়েছে ১০.৮০ টাকায়। অর্থাৎ কোম্পানিটির শেয়ার দর ০.৮০ টাকা বা ৬.৮৯ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং ডিএসইর টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে।

এদিন ডিএসইতে টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৫.১৯ শতাংশ, খান ব্রাদার্সের ৫.১৪ শতাংশ, এমারেল্ড অয়েলের ৫.০২ শতাংশ, রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স ওয়ান মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৪.৯১ শতাংশ, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৬৮ শতাংশ, পদ্মা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৫৫ শতাংশ, মেঘনা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৪৭ শতাংশ, সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৪.৪৪ শতাংশ এবং অলটেক্সের শেয়ার দর ৪.৪৪ শতাংশ কমেছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ১৮৯টির বা ৫০ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে ইস্টার্ন কেবলসের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। আগের কার্যদিবস ইস্টার্ন কেবলসের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ১৩৫.৩০ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে কোম্পানিটির শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়িয়েছে ১৪৮.৮০ টাকায়। অর্থাৎ কোম্পানিটির শেয়ার দর ১৩.৫০ টাকা বা ৯.৯৭ শতাংশ বেড়েছে। এর মাধ্যমে ইস্টার্ন কেবলস ডিএসইর টপটেন গেইনার তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে।

এদিন ডিএসইতে টপটেন গেইনার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে তিতাস গ্যাসের ৯.৯৭ শতাংশ, ন্যাশনাল টিউবসের ৯.৯৬ শতাংশ, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের ৯.৯৩ শতাংশ, আরএকে সিরামিকের ৯.৯৩ শতাংশ, ফারইস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৯.৯২ শতাংশ, বসুন্ধরা পেপারের ৯.৮৫ শতাংশ, স্যোসাল ইসলামী ব্যাংকের ৯.৭৪ শতাংশ, বিবিএস কেবলসের ৯.৫৮ শতাংশ এবং ইফাদ অটোসের শেয়ার দর ৯.৪৭ শতাংশ বেড়েছে।