কুমিল্লায় সৎমায়ের বিরুদ্ধে ছেলের সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগ

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহনাজ পারভীনের বিরুদ্ধে প্রায় অর্ধশত কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগ করেন মো. আল মামুন বাবু। তিনি সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় কুমিল্লা প্রেসক্লাবের হলরুমে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের নিকট এ লিখিত অভিযোগ করেন। মো. আল মামুন বাবু ফতেহাবাদ ইউনিয়নের সাইচাপাড়া গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহনাজ পারভীনের সৎ ছেলে। লিখিত অভিযোগে আল মামুন বাবু বলেন, ‘তার বাবা গোলাম মোস্তফা স্ত্রী ও ছোট দুই সন্তান রেখে ১৯৯৫ সালে শাহনাজ পারভীনকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। পরবর্তীতে শাহনাজ পারভীন তার বাবাকে ফুসলিয়ে স্ত্রী-সন্তানদের বঞ্চিত করে অধিকাংশ সম্পত্তি নিজের নামে লিখে নেন। বর্তমানে শাহনাজ পারভীন তাদের কিছু মূল্যবান সম্পত্তি বিক্রির পায়তারা করছেন। এ নিয়ে প্রতিবাদ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে গোলাম মোস্তফা ও শাহনাজ অবৈধ প্রভাব খাটিয়ে নানাভাবে হয়রানিসহ হত্যার হুমকি দিচ্ছেন।

অত্যাচার সইতে না পেরে প্রাণভয়ে তারা বাড়ি ছেড়ে উপজেলার শিবপুর গ্রামে মামার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।’ আল মামুন বাবুর মা নাছিমা আক্তার (৪৫) বলেন, ‘সন্তানদের প্রাণে বাঁচাতে প্রায় ১৮ বছর ধরে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছি। স্বামীর সম্পত্তিসহ সকল সুযোগ সুবিধা থেকে আমার সন্তানদের বঞ্চিত করে রাখা হয়েছে। শাহনাজ অনেক সম্পদ বিক্রি করে নির্বাচন করছেন।

আমাকেসহ সন্তানদের মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছেন। স্থানীয়ভাবে বিচার চেয়েও পাইনি। এ বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’ সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন মো. আল মামুন বাবুর স্ত্রী রোকেয়া ইসলাম পিংকি ও ছোট ভাই মো. আল আমিন। অভিযোগের বিষয়ে গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘নাছিমা আক্তার আমার প্রথম স্ত্রী, তাকে অনেক আগে ডিভোর্স দিয়েছি। দ্বিতীয় স্ত্রী শাহনাজ পারভীন কর্তৃক সম্পত্তি থেকে আমার সন্তানদের বঞ্চিত করা কিংবা তাদের নির্যাতন করার অভিযোগ সঠিক নয়।’

বুধবার, ১২ জানুয়ারী ২০২২ , ২৮ পৌষ ১৪২৮ ৮ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

কুমিল্লায় সৎমায়ের বিরুদ্ধে ছেলের সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগ

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহনাজ পারভীনের বিরুদ্ধে প্রায় অর্ধশত কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগ করেন মো. আল মামুন বাবু। তিনি সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় কুমিল্লা প্রেসক্লাবের হলরুমে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের নিকট এ লিখিত অভিযোগ করেন। মো. আল মামুন বাবু ফতেহাবাদ ইউনিয়নের সাইচাপাড়া গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহনাজ পারভীনের সৎ ছেলে। লিখিত অভিযোগে আল মামুন বাবু বলেন, ‘তার বাবা গোলাম মোস্তফা স্ত্রী ও ছোট দুই সন্তান রেখে ১৯৯৫ সালে শাহনাজ পারভীনকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। পরবর্তীতে শাহনাজ পারভীন তার বাবাকে ফুসলিয়ে স্ত্রী-সন্তানদের বঞ্চিত করে অধিকাংশ সম্পত্তি নিজের নামে লিখে নেন। বর্তমানে শাহনাজ পারভীন তাদের কিছু মূল্যবান সম্পত্তি বিক্রির পায়তারা করছেন। এ নিয়ে প্রতিবাদ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে গোলাম মোস্তফা ও শাহনাজ অবৈধ প্রভাব খাটিয়ে নানাভাবে হয়রানিসহ হত্যার হুমকি দিচ্ছেন।

অত্যাচার সইতে না পেরে প্রাণভয়ে তারা বাড়ি ছেড়ে উপজেলার শিবপুর গ্রামে মামার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন।’ আল মামুন বাবুর মা নাছিমা আক্তার (৪৫) বলেন, ‘সন্তানদের প্রাণে বাঁচাতে প্রায় ১৮ বছর ধরে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছি। স্বামীর সম্পত্তিসহ সকল সুযোগ সুবিধা থেকে আমার সন্তানদের বঞ্চিত করে রাখা হয়েছে। শাহনাজ অনেক সম্পদ বিক্রি করে নির্বাচন করছেন।

আমাকেসহ সন্তানদের মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছেন। স্থানীয়ভাবে বিচার চেয়েও পাইনি। এ বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’ সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন মো. আল মামুন বাবুর স্ত্রী রোকেয়া ইসলাম পিংকি ও ছোট ভাই মো. আল আমিন। অভিযোগের বিষয়ে গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘নাছিমা আক্তার আমার প্রথম স্ত্রী, তাকে অনেক আগে ডিভোর্স দিয়েছি। দ্বিতীয় স্ত্রী শাহনাজ পারভীন কর্তৃক সম্পত্তি থেকে আমার সন্তানদের বঞ্চিত করা কিংবা তাদের নির্যাতন করার অভিযোগ সঠিক নয়।’