বিদেশে রাষ্ট্রবিরোধী বক্তব্যদাতাদের পাসপোর্ট বাতিলের উদ্যোগ

যেসব প্রবাসী বাংলাদেশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছেন, তাদের সবার পাসপোর্ট বাতিল করা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

গতকাল দুপুরে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির এক বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান। মোজাম্মেল হক আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভাপতি।

তিনি বলেন, বিদেশে বসে যারা রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ড ও বক্তব্য দিচ্ছেন, তাদের তালিকা করে পাসপোর্ট বাতিলের জন্য উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বে ব্যক্তির বিষয়ে বক্তব্য দিলে তা রাষ্ট্রদ্রোহিতা নয় বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, বিদেশে বসে অনেক লোক এমন মিথ্যাচার করছে। তারা কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে বলতে পারে। কিন্তু রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বললে রাষ্ট্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

মোজাম্মেল হক বলেন, রাষ্ট্রবিরোধী যেসব কাজ বিদেশে বসে যারা করছে তাদের পাসপোর্ট যেন বাতিল করা হয়, সে জন্য আমরা পরামর্শ দিয়েছি তাদের তালিকা প্রস্তুত করা হোক। তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে যদি দেখা যায় তারা সক্রিয়ভাবে অব্যাহতভাবে এই কাজ করে যাচ্ছে, তবে তাদের পাসপোর্ট বাতিলের জন্য উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, দেশদ্রোহী ও দেশের স্বার্থবিরোধী কোনটা, সেটার সংজ্ঞা আইনে আছে। রাষ্ট্রে স্বার্থ পরিপন্থী কোনগুলো সংবিধান ও সিআরপিসিতে যা আছে সেটা মেনেই সেটা করা হবে। নতুনভাবে কোন কিছু সংজ্ঞায়িত করা হবে না।

তিনি বলেন, যেকোন সরকারি চাকরিতে নিয়োগের আগে ডোপ টেস্ট হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির আগেও ডোপ টেস্ট করা হবে। ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করার জন্য দ্রুত একটি আইন করা হবে।

দেশের বাইরে বাংলাদেশি যারা বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত হয় তাদের বিষয়ে দূতাবাসগুলোকে সক্রিয় থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে জানিয়ে মোজাম্মেল হক বলেন, আমেরিকা সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কয়েকজন সদস্য সম্পর্কে বিরুপ মন্তব্য করা হয়েছে। আমরা সেগুলো পর্যালোচনা করে মনে করেছি, সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে বা কিছু ভুল তথ্যের কারণে, ইউটিউব বা ওই সমস্ত মিডিয়াতে যেসব তথ্যবলী অহরহ প্রচারিত হয়, সেগুলো যথাযথভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে, যাচাই-বাছাই না করে উনারা এ মন্তব্য করেছেন।

বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২২ , ২৯ পৌষ ১৪২৮ ৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

বিদেশে রাষ্ট্রবিরোধী বক্তব্যদাতাদের পাসপোর্ট বাতিলের উদ্যোগ

যেসব প্রবাসী বাংলাদেশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছেন, তাদের সবার পাসপোর্ট বাতিল করা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

গতকাল দুপুরে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির এক বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান। মোজাম্মেল হক আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভাপতি।

তিনি বলেন, বিদেশে বসে যারা রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ড ও বক্তব্য দিচ্ছেন, তাদের তালিকা করে পাসপোর্ট বাতিলের জন্য উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বে ব্যক্তির বিষয়ে বক্তব্য দিলে তা রাষ্ট্রদ্রোহিতা নয় বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, বিদেশে বসে অনেক লোক এমন মিথ্যাচার করছে। তারা কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে বলতে পারে। কিন্তু রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বললে রাষ্ট্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

মোজাম্মেল হক বলেন, রাষ্ট্রবিরোধী যেসব কাজ বিদেশে বসে যারা করছে তাদের পাসপোর্ট যেন বাতিল করা হয়, সে জন্য আমরা পরামর্শ দিয়েছি তাদের তালিকা প্রস্তুত করা হোক। তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে যদি দেখা যায় তারা সক্রিয়ভাবে অব্যাহতভাবে এই কাজ করে যাচ্ছে, তবে তাদের পাসপোর্ট বাতিলের জন্য উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, দেশদ্রোহী ও দেশের স্বার্থবিরোধী কোনটা, সেটার সংজ্ঞা আইনে আছে। রাষ্ট্রে স্বার্থ পরিপন্থী কোনগুলো সংবিধান ও সিআরপিসিতে যা আছে সেটা মেনেই সেটা করা হবে। নতুনভাবে কোন কিছু সংজ্ঞায়িত করা হবে না।

তিনি বলেন, যেকোন সরকারি চাকরিতে নিয়োগের আগে ডোপ টেস্ট হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির আগেও ডোপ টেস্ট করা হবে। ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করার জন্য দ্রুত একটি আইন করা হবে।

দেশের বাইরে বাংলাদেশি যারা বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত হয় তাদের বিষয়ে দূতাবাসগুলোকে সক্রিয় থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে জানিয়ে মোজাম্মেল হক বলেন, আমেরিকা সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কয়েকজন সদস্য সম্পর্কে বিরুপ মন্তব্য করা হয়েছে। আমরা সেগুলো পর্যালোচনা করে মনে করেছি, সঠিক তথ্য না পাওয়ার কারণে বা কিছু ভুল তথ্যের কারণে, ইউটিউব বা ওই সমস্ত মিডিয়াতে যেসব তথ্যবলী অহরহ প্রচারিত হয়, সেগুলো যথাযথভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে, যাচাই-বাছাই না করে উনারা এ মন্তব্য করেছেন।